শনিবার, ৩রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

‘জাল টাকার কারখানা দেখায়’ আব্দুল্লাহকে হত্যা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ৪, ২০১৬

নিউজ ডেস্ক: মোতাহারের বাড়িতে জাল টাকা তৈরির কারখানা দেখে ফেলায় আব্দুল্লাহকে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন তার স্বজনরা। দ্রুত বিচারের আশ্বাস দিলেন মন্ত্রী কামরুল বৃহস্পতিবার আব্দুল্লাহর বাবা বাদল মিয়া ও মা রিনা বেগম একথা বলেন। মোতাহার হোসেন হলেন বাদল মিয়ার চাচা এবং রিনা বেগমের মামা। ঢাকার কেরানীগঞ্জের রোহিতপুর ইউনিয়নের পশ্চিম মুগারচর গ্রামে আবদুল্লাহদের বাড়ি। মোতাহার হোসেনের বাড়িও একই এলাকায়। নিহত মো. আব্দুল্লাহ্ (১১) মুগারচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র ছিল।

187443_1
গত শুক্রবার দুপুরে খাবার খাওয়ার পর খেলতে গিয়ে সে নিখোঁজ হয়। মঙ্গলবার দুপুরে মোতাহার হোসেনের বাড়ির একটি ড্রামে তার গলিত লাশ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় কেরানীগঞ্জ মডেল থানায় একটি মামলা হয়েছে। চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ হেফাজতে পাঠিয়েছে আদালত। বাদল মিয়া বলেন, “আমার আপন চাচা মোতাহার হোসেনের সঙ্গে আমাদের কোনো পূর্ব শত্রুতা ছিল না। সে তার বাড়িতে জাল টাকা তৈরির কারখানা বানিয়েছিল। বাড়িতে সে ও তার পরিবারের সবাই জাল টাকার ব্যবসা করত।
“আমার ছেলে জাল টাকা ও জাল টাকা তৈরির ব্যবসা দেখে ফেলেছিল বলে তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে।” অনেক বছর ধরে কুয়েতে থাকেন বাদল মিয়া। কয়েকদিন আগে দুই মাসের ছুটিতে বাড়ি আসেন বলে জানান।
তার কাছ থেকে তারা মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেওয়ার জন্য এই অপহরণের নাটক সাজিয়েছিল বলে মন্তব্য করেন তিনি। আব্দুল্লাহর মা রিনা বেগম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আমার মামার জাল টাকার অবৈধ ব্যবসা দেখে ফেলায় সে-ই পরিকল্পিতভাবে সহযোগীদের নিয়ে আমার আদরের ধনকে মেরে ফেলেছে।

“আমার আপন মামা হয়ে কীভাবে সে এই জঘন্য কাজ করতে পারল!” মোতাহারের বাড়িতে অনেক অপরিচিত মানুষের আনাগোনা ছিল। প্রায় সময়ই অপরিচিত লোকজনদের সঙ্গে তার লেনদেন সংক্রান্ত ঝামেলা লেগেই থাকত বলে দাবি করেন রিনা বেগম।
এ ব্যাপারে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ওসি ফেরদৌস হোসেন বলেন, ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন এখনও হাতে পাইনি। মামলার আসামি মোতাহারকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি। ঘটনার পর থেকেই সে পলাতক রয়েছে। “জাল টাকার বিষয়টি আমার জানা নেই। তদন্ত চলছে।”

এই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই সফিকুল আলম বলেন, এই মামলার গ্রেপ্তারকৃত চার আসামির মধ্যে মেহেদী সাতদিন ও অন্য তিন আসামিকে পাঁচদিন করে রিমান্ডে আনা হয়েছে। তদন্তের স্বার্থে তাদের জবানবন্দি গোপন রাখা হয়েছে। এখনও আব্দুল্লাহকে হত্যার রহস্য উৎঘাটন হয়নি বলে জানান তিনি। জাল টাকার তৈরি ও ব্যবসা সম্পর্কে যে অভিযোগ উঠেছে সে বিষয়টি তার জানা নেই বলে জানানউৎসঃ বিডিনিউজ

আর পড়তে পারেন