বৃহস্পতিবার, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

পেশাগত দায়িত্ব পালনে বাঁধা, সাংবাদিককে বের করে দিলেন কুবি সহকারী প্রক্টর

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ২২, ২০২২
news-image

 

কুবি  প্রতিনিধি:

পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে সাংবাদিককে হেনস্তা করে উপাচার্যের কার্যালয় থেকে বের করে দিয়েছেন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) সহকারী প্রক্টর ও গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাহবুবুল হক ভূইঁয়া।

বৃহস্পতিবার বিভিন্ন দাবি-দাওয়া নিয়ে শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা উপাচার্যের কার্যালয়ে গেলে উপাচার্য ও ছাত্রলীগের মাঝে বাগবিতন্ডা ঘটে। এ ঘটনা ভিডিও করতে গেলে বাংলাদেশ জার্নালের কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি নাঈমুর রহমান রিজভীকে হেনস্তা করে কার্যালয় থেকে বের হয়ে যেতে বলেন সহকারী প্রক্টর।

প্রত্যক্ষদর্শীসূত্রে জানা যায়, ছাত্রকল্যাণ ফান্ড গঠন, ছাত্রীদের কমনরুম, ক্যাফেটেরিয়ার খাবারে ভর্তুকিসহ ১৪ দফা দাবিতে মানবববন্ধন করে শাখা ছাত্রলীগ ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা। দেড়ঘণ্টার মানববন্ধনে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কেউ না আসলে উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করতে যান তারা। পরে চাকরি, টেন্ডারসহ বিভিন্ন বিষয়ে বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন উপাচার্য ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

এসময় মুঠোফোনে ভিডিও করতে গেলে সাংবাদিক নাঈমুর রহমান রিজভীকে ভিডিও করার কারণ জানতে চেয়ে সহকারী প্রক্টর মাহবুবুল হক ভূইঁয়া বলেন, ‘আপনি কী করতেছেন? পারমিশন নিছেন? এটা তো আপনি করতে পারেন না।’ তখন সাংবাদিক পরিচয় দিলে তিনি বলেন, ‘কোথাকার সাংবাদিক? আপনি কি নিউজের জন্য করতেছেন? এটা তো মামলা করার মতো কাজ করছেন?’ পরে সাংবাদিককে হেনস্তা করে উপাচার্য কক্ষ থেকে বের হয়ে যেতে বলেন তিনি।

ভুক্তভোগী সাংবাদিক নাঈমুর রহমান রিভজী বলেন, উপাচার্যের সাথে ছাত্রলীগের উচ্চবাচ্য হলে আমার পেশাদারিত্বের জায়গা থেকে ভিডিও করি। এসময় ভিডিও করায় একজন সহকারী প্রক্টর আমাকে মামলার হুমকি দিয়ে হেনস্থা করেন। এসময় আমাকে উপাচার্যের কক্ষ থেকে বের হয়ে যেতে বলেন তিনি।

তবে সাংবাদিককে বের করে দেয়ার বিষয় অস্বীকার করে সহকারী প্রক্টর মাহবুবুল হক ভূইঁয়া বলেন, ‘বের হয়ে যাওয়ার কথা আমি বলি নাই। ভাইস চ্যান্সেলর বলেছে, পরে আমরা বলেছি। সে সাংবাদিক পরিচয় দেয়নি।’
তবে সাংবাদিক পরিচয় দেয়ার পরও মামলার কথা বলার কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, মামলা করার বিষয় যখন বলেছি তখন জানতাম না সে সাংবাদিক।

মামলার বিষয়ে কেন বলছেন জানতে চাইলে তিনি মন্তব্য করতে রাজি নন বলে জানান।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর ড. কাজী ওমর সিদ্দিকী বলেন, এখানে প্রায় ৫০ জনের মতো লোক ছিলো। আসলে এগুলো ফরমাল নেয়ার দরকার নেই। সাংবাদিক পরিচয় পাওয়ার পর আমি চেষ্টা করেছি বিষয়টি থামাতে। মামলার বিষয়ে তিনি বলেন, আমি আরেক সাইডে ছিলাম। এ বিষয়ে আমি মন্তব্য করতে চাচ্ছিনা।

এ বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ. এফ. এম. আবদুল মঈন বলেন, এ বিষয়ে ঐ শিক্ষকের কাছে জানতে চাইলে ভালো হবে। আমি এ বিষয়ে মন্তব্য করতে চাই না।

আর পড়তে পারেন