বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

ফের কৃষ্ণনগর ইউনিয়নে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ আহত-১০,আটক-২

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ২৯, ২০১৮
news-image

 

মো. আরিফুল ইসলাম,নবীনগর:

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়নে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে ৩০ বছরের দাংগা নিষ্পত্তির পরও ফের ওই ইউনিয়নের গৌরনগর গ্রামে  শনিবার ২৯ সেপ্টেম্বর বিবাদমান দুই গ্রুপের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ বাধেঁ। ওই গ্রামের আধিপত্য নিয়ে সরকার বাড়ি ও আজাইড়া বাড়ির মধ্য দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল।

সরকার বাড়ির নেতৃত্ব দেন বর্তমান চেয়ারম্যান মো. জিল্লুর রহমান আজাইড়া বাড়ির নেতৃত্বে দেন মাসুম মোল্লা। তারই জের ধরে গতকাল সকালে গ্রামের চক বাজারে সরকার বাড়ির লোকজন প্রতিপক্ষে উপর হামলা চালালে দু’পক্ষ দেশীয় অস্ত্র সস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পরে। সংঘর্ষে ১০ জন আহত হয়ে।

গুরুতর আহত দুলাল মিয়া (৬৫) ও জয়নাল মিয়া (৫৫), আলাল মিয়া (৫০)কে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হাসপাতালে পাঠালে অবস্থা অবনতি হলে তাদের দ্রুত ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরন করা হয়। খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।

পরবর্তী সংঘর্ষ এড়াতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ ঘটনায় জিঙ্গাসাবাদের জন্য পুলিশ দু’জনকে আটক করেছে।

ওই দুই বাড়ির মধ্যে বিভিন্ন সময়ে গ্রামে দাংগা হাংগামা মামলা মোকদ্দমার কারণে গ্রামে একটি ভীতিকর পরিস্থির মধ্যে বসবাস করে আসছে সাধারণ মানুষ।

গত ২০১১ সালে ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গৌরনগরে ওই দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে একটি মার্ডার হয়। কৃষ্ণনগর ইউনিয়নে গৌরনগর, হাজীর হাটি, সাতঘর হাটি ও থানাকান্দি এই ৪টি গ্রামে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিভিন্ন সময় নানা ইস্যুতে সংঘঠিত সংঘর্ষে ৪ খুন ও ২৫টি পাল্টাপাল্টি মামলা হয়েছে। ওই এলাকায় গত ৩০ বছরের দাংগা নিষ্পত্তি লক্ষ্যে স্থানীয় সাংসদ ফয়জুর রহমান বাদল গত বছর অক্টোবরে উপজেলা আইন শৃংখলা কমিটির মাধ্যমে গ্রামের শান্তি শৃংখলা ফিরিয়ে আনতে আইনী প্রক্রিয়ায় ও সামাজিক ভাবে নিষ্পত্তি করেছিলেন।

এ ব্যাপারে নবীনগর থানার অফিসার ইনর্চাজ আসলাম সিকদার বলেন,পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে পুলিশের নিয়ন্ত্রনে রয়েছে, পরবর্তী সংঘর্ষে এড়াতে পর্যাপ্ত পরিমানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে ।

 

আর পড়তে পারেন