রবিবার, ১৪ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

ভূয়া ডাক্তার জসিম বাঁশের চটি দিয়ে হাড় ভাঙ্গা রোগীর চিকিৎসা করায় পঙ্গু হচ্ছে শতশত মানুষ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ৪, ২০১৮
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:

গত ২৭ মার্চ দেবিদ্বার উপজেলার মোহাম্মদপুর সেরাজুল হক কলেজ মাঠে মোহাম্মদপুর এ. আর. উচ্চ বিদ্যালয়ের এস. এস. সি পরীক্ষার্থী ছাত্র মো: সোহাগ ক্রিকেট খেলতে গিয়ে তার ডান পা ভেঙ্গে যায়। তখন তাকে চিকিৎসার জন্য দেবিদ্বার জসিম ডাক্তারের পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ৩ মাস চিকিৎসার পর দেখা যায় তার পায়ের হাড় শুকিয়ে পা ছোট হয়ে যায়।

এমত অবস্থায় তাকে ময়নামতি ক্যান্টনমেন্ট জেনারেল হাসপাতালে ২৩ জুন ২০১৮ খ্রি: ভর্তি করা হয়। লে: কর্ণেল ডাঃ মোঃ শাহনেওয়াজ হোসেন খান, বিভাগীয় প্রধান, অর্থোপেডিক, ট্রমা সার্জারী বিভাগ, সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল, কুমিল্লা সেনানিবাস।

তিনি রোগীর পরীক্ষা নিরীক্ষা করার পর জানান যে, ভূল চিকিৎসার কারণে হাড় জোড়া লাগে নাই। এবং হাড় শুকিয়ে পা ছোট হয়ে গেছে। রোগীর পুরাতন বেনডেজ খোলার পর দেখা যায় ভিতরে বাঁশের চটি দিয়ে মোড়ানো। চটির আঘাতে তার ভাঙ্গা পায়ের ক্ষতের সৃষ্টি হয়।

খোজ নিয়ে জানা যায় জসিম ডাক্তারের কোন সরকারী সনদ নাই। তিনি দীর্ঘ দিন যাবত দেবিদ্বার উপজেলায় হাড় ভাঙ্গা রোগীর চিকিৎসা করে আসছেন। তার ভূল চিকিৎসার ফলে শতশত রোগী পঙ্গুত্ব বরণ করছে। যার সর্বশেষ উদাহরণ ছাত্র সোহাগ। যার ফলে ক্ষতি গ্রস্থ হচ্ছে গ্রামের দরিদ্র অসহায় সাধারন মানুষ। গত ২৯ জুন উক্ত রোগীর অপারেশন করা হয়। বর্তমানে ছাত্র সোহাগ ময়নামতি জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দিন আছে।

আর পড়তে পারেন