বৃহস্পতিবার, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

মনোহরপুরে যুবক-যুবতীদের ৫০ লক্ষ টাকা নিয়ে উধাও হলেন ড্রিম টাচ ট্রেনিং সেন্টার

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ২, ২০২২
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:
ড্রীম টাচ ট্রেনিং সেন্টারের মাধ্যমে কম্পিউটার ট্রেনিং, সেলাই ট্রেণিং ও লোন দেয়ার নামে কৌশলে কুমিল্লার শত শত শিক্ষার্থী, বেকার যুবক-যুবতীর কাছ থেকে প্রায় ৫০ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করে রাতের আধারে অফিস তালা দিয়ে পালিয়েছে রাসেল মিয়া শাওন (৪২) নামের এক প্রতারক।

এ ঘটনায় প্রতারিত হয়ে মো: ফরহাদ হোসেন বাদী হয়ে কুমিল্লা কোতয়ালী থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন । এছাড়া অভিযোগ করা হয়েছে কুমিল্লা র‌্যাব-১১, সিপিসি-২ কার্যালয়েও।

একাধিক সূত্র জানায়, প্রতারক রাসেল মিয়া শাওন এর আগেও নিজের নাম পরিবর্তন করে বিভিন্ন নামে অফিস খুলে মানুষের কাছ থেকে টাকা নিয়ে পালিয়েছে। এ ঘটনায় ঢাকা র‌্যাবের কাছেও অভিযোগ করেছিল প্রতারিত হওয়া মানুষগুলো। কিন্তু কোন সুরাহা হয়নি। রাসেল শাওন এর আগে তিন জায়গায় নিজের তিনটি নাম ব্যবহার করে। এর আগে রাজু, মুজাহিদ ও মনিরুজ্জামান লিমন নাম ব্যবহার করে কুমিল্লার পদুয়ারবাজার বিশ্বরোড ও যাত্রাবাড়ি এলাকায় সৃষ্টি ও সূর্য ট্রেনিং সেন্টার এবং কেরানীগঞ্জ এলাকায় কনফিডেন্স নামের ট্রেনিং সেন্টারের অফিস খুলে কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করে পালিয়ে যান। বিগত তিনটি ট্রেনিং সেন্টার খোলার পরও কেউ তার আসল পরিচয় সনাক্ত করতে পারেনি। ট্রেনিং সেন্টার বন্ধ করার সাথে সাথেই তার ব্যবহৃত মোবাইল নাম্বারটিও বন্ধ করে দেন। সে সমাজের অসহায়-কম শিক্ষিত মানুষদেরকেই বেশি লক্ষ্য করে প্রতারণার মিশন শুরু করে। সে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদেরও টার্গেট করে প্রতারিত করেন।

সর্বশেষ রাসেল মিয়া শাওন কুমিল্লা নগরীর মনোহরপুরের হাজী ম্যানশন ভবনের ৫ম তলায় ড্রীম টাচ ট্রেনিং সেন্টার খুলে প্রতারণার জাল ছড়িয়ে দেন। বোকা বানাতে থাকেন শিক্ষার্থী ও অসহায় মানুষদের। এ সময় সে কান্দিরপাড়ের ভিক্টোরিয়া কলেজ রোডের দর্জি বাড়ি নামীয় প্রতিষ্ঠানের বিল্ডিংয়ের সাথের ৫ম তলায় ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করেছেন। ২৭ জুন রাতে সবার টাকা পয়সা নিয়ে সে রাতের আধারে পালিয়ে যায়।
লিখিত অভিযোগে মোঃ ফরহাদ হোসেন উল্লেখ করেন, রাসেল মিয়া শাওন পরিচালনাধীন ড্রিম টাচ ট্রেনিং সেন্টারে আমিসহ অনেক যুবক-যুবতীদের প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। পরবর্তীতে আমাদেরকে কম্পিউটার ট্রেনিং কোর্স করাবে বলে আমাদের কাছ থেকে ৩ হাজার টাকা করে নেয়া হয়। আমাদের মাধ্যমে আরো কয়েকশত ছাত্র- ছাত্রীদের সংগ্রহ করে তাদের কাছ থেকে একই হারে টাকা সংগ্রহ করে মোট ৫০ লাখ টাকা বিবাদী রাসেল মিয়া শাওন নিয়েছে। কিন্তু আমাদের এবং আমাদের মাধ্যমে সংগ্রহকৃত ছাত্র-ছাত্রীদের কম্পিউটার প্রশিক্ষণ দেওয়ার কোনো কার্যকর ব্যবস্থা নেয়নি। এমতাবস্থায় আমরা এবং ছাত্র- ছাত্রীরা ২৮ জুন সকাল ৮টায় ট্রেনিং সেন্টারে গিয়ে দেখি যে, দরজায় তালা লাগানো। বিবাদী রাসেলের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনের সংযোগ বন্ধ পাই। পরবর্তীতে ঘটনাস্থলের বিভিন্ন লোকজনের মাধ্যমে জানতে পারি ২৭ জুন রাত ৮ টায় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের তালা বন্ধ করে তাকে চলে যেতে দেখেছে স্থানীয়রা। তখন আমরা নিশ্চিত হই যে, রাসেল মিয়া শাওন আমাদেরকে কর্মচারী হিসেবে নিয়োগ দেওয়াসহ আমাদের মাধ্যমে সংগ্রহকৃত ছাত্র- ছাত্রীদেরকে কম্পিউটার প্রশিক্ষণ দেওয়ার নামে ৫০ লাখ টাকা গ্রহণ করে পালিয়েছে।

ট্রেনিং সেন্টারে ভর্তি হওয়া ইসরাত জাহান নিশি, শান্তা আক্তার , শাহিনুর, জান্নাতুল ফেরদৌস তৃষা, মাহমুদা আক্তার, ফারজানা, খাদিজা আক্তার , ফারহানা, জান্নাতুল ফেরদৌস, রিমি সাহা, চাঁদনী আক্তার, বিউটি ভৌমিক, আনিকা আক্তার, শারমিন, বিউটি আক্তার, উম্মে ছালমা তন্নী, শাওনসহ আরও অনেকে জানান, রাসেল মিয়া শাওন নামের এই প্রতারক বিভিন্ন নামে বিভিন্ন জায়গা ট্রেনিং সেন্টার খুলে এভাবে সবাইকে বোকা বানিয়ে প্রতারণা করে যাচ্ছে। আমরা খুব টেনশনে আছি। আমাদের মাধ্যমে যারা এখানে ভর্তি হয়েছিল, তারা এখন আমাদের চাপ দিচ্ছে। আমরা প্রশাসনের সহযোগিতা চাই।

 

 

আর পড়তে পারেন