সোমবার, ২৮শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

মাদকাসক্ত ও শিবিরের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত অনেকেই কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের পদপ্রত্যাশি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ৪, ২০২২
news-image

 

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু:
২ বছরের মেয়াদের কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের কমিটি ৭ বছর অতিবাহিত করার পর চলতি বছরের ২৫ মার্চ বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি আল-নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়। পরবর্তীতে কুমিল্লা উত্তর জেলা শাখার নতুন কমিটিতে সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক পদে আগ্রহী পদ-প্রত্যাশীদের আগামী ৭ কার্য দিবসের মধ্যে দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক খন্দকার জামি উস সানি ও উপ-গ্রন্থনা প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক আমানুল্লাহ আমানের কাছে জীবনবৃত্তান্ত জমা দেয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়। প্রায় ৭৫ জন নেতাকর্মী আবেদন করেছেন। সভাপতি পদে ১৮ জন ও সাধারণ সম্পাদক পদে ৫৭ জন প্রার্থী হিসেবে আবেদন করেছেন।

আবেদনকারি বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে রয়েছে গুরুতর অভিযোগ । মাদক ব্যবসা, মাদক সেবন ও জামায়াত-শিবিরের রাজনীতিতে পূর্বে সংশ্লিষ্ট থাকার গুরুতর অভিযোগ। সভাপতি পদে চান্দিনা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি কাজী ইয়াছিন আহাম্মদ (অভি), কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক মেহেদী হাসান সৈকত, মোঃ মহিউদ্দিন, মুরাদনগর উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ হাফিজ খান, মোহসিন খন্দকার ও মুরাদনগর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক শফিক তুহিনসহ ১৮ জন রয়েছে। এছাড়া সাধারণ সম্পাদক পদে তিতাস উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুল হাসান তুষার, তিতাস উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন সাদ্দাম, কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক গাজী বোরহান উদ্দিন ভুইয়া, ঢাকা কলেজ ছাত্রলীগের সদস্য মোঃ আনোয়ার হোসেনসহ ৫৭ জন আবেদন করেছেন।

সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক পদে থাকা উল্লেখযোগ্য কয়েকজন ইতিবাচক-নেতিবাচক কর্মকান্ড নিয়ে নিম্নের এই প্রতিবেদন।

কাজী ইয়াছিন আহাম্মদ (অভি) : অভি কুমিল্লা চান্দিনা উপজেলার পৌর এলাকার বাসিন্দা। সে ঢাকা ভিক্টোরিয়া ইউনিভার্সিটিতে (বিবিএ)অধ্যয়নরত। কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি পদপ্রার্থী । সে বর্তমানে চান্দিনা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি পদে দায়িত্ব পালন করছেন। প্রয়াত সাংসদ অধ্যাপক মো: আলী আশরাফের আত্মীয়। তাঁর বাবা আলহাজ্ব কাজী শামছুল হক চান্দিনা পৌর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি। চান্দিনা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সিনিয়র সহ- সভাপতি আলহাজ্ব মো: মোন্তাকিম আশরাফ টিটু তার খালাতো ভাই। করোনা মহামারির সময় “চান্দিনা হ্যালো ছাত্রলীগ” গঠন করে অসহায়-নি:স্ব মানুষের মাঝে খাদ্য বিতরণ করেন। আ’লীগ পরিবার থেকে উঠে আসা অভি ছাত্রলীগের সভাপতি পদে অন্যতম প্রার্থী।

মেহেদী হাসান সৈকত: কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক। দেবিদ্বার উপজেলার বাসিন্দা। সে কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি পদপ্রার্থী। সে স্থানীয় সাংসদ রাজী মো: ফখরুলের অনুসারি। তার বিরুদ্ধে তেমন কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি।

মোঃ মহিউদ্দিন: কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি পদপ্রার্থী । সে চান্দিনার বাসিন্দা। মহিউদ্দিন স্থানীয় সাংসদ ডা: প্রাণ গোপালের অনুসারি। স্থানীয় একাধিক সূত্রমতে, মোঃ মহিউদ্দিনের আপন বড় ভাই নুরুল ইসলাম বাশারি একজন শিবিরের সাথী। মহিউদ্দিন এর পিতা মোঃ উল্লাহ একজন সক্রিয় জামাতের লোক, তিনি ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত জামায়াতের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিল। মহিউদ্দিন এবার স্থানীয় ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রার্থীর বিপক্ষে সক্রিয়ভাবে কাজ করে স্বতন্ত্র প্রার্থী সেলিম প্রধানের পক্ষে বিভিন্ন নির্বাচনী প্রচারণায় অংশগ্রহণ করেন।

শফিক তুহিন: মুরাদনগর উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক ছিলেন। সে এখন সভাপতি পদপ্রার্থী। বেশ কিছুদিন পূর্বে মাদক হাতে তার ছবি ফেসবুকে ভাইরাল হয়। ফলে তাকে নিয়ে বির্তক রয়েছে।

কামরুল হাসান তুষার: সে কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী। সে তিতাস উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। সে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজে মার্ষ্টাসে অধ্যয়ণরত। সে সাংসদ সেলিমা আমেদ মেরীর অনুসারী। তার বিরুদ্ধে নেতিবাচক তেমন কিছু পাওয়া যায়নি।
এড. গাজী বোরহান উদ্দিন ভুইয়া : এড. গাজী বোরহান উদ্দিন ভুইয়া সাধারণ সস্পাদক পদপ্রার্থী । সে বিগত কমিটিতে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। দাউদকান্দি উপজেলা চেয়ারম্যান মেজর (অব:) মোহাম্মদ আলী সুমনের অনুসারী। কুমিল্লা-১ আসনের  স্থানীয় সাংসদ মেজর (অব:) সুবিদ আলী ভূইয়ার আত্নীয় বলে জানা গেছে। তার বিরুদ্ধে নেতিবাচক তেমন কিছু পাওয়া যায়নি।

তোফাজ্জল হোসেন সাদ্দাম: স্থানীয় বিভিন্ন সূত্র জানায়, তোফাজ্জল হোসনে সাদ্দাম মাদক ব্যবসার সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। জানা যায়, বিগত ২০২০ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর দৈনিক ভোরের পাতার অনলাইনে ‘‘ মাদকসম্রাট তিতাস উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম ’’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়। ওই সংবাদে উল্লেখ করা হয়- “ তিতাস উপজেলায় মাদকের একক সাম্রাজ্য গড়ে তুলেছেন তোফাজ্জল হোসেন সাদ্দাম। সম্প্রতি তিতাস উপজেলার মাছিমপুর আর আর উচ্চ বিদ্যালয়ের একটি কক্ষ থেকে এই তোফাজ্জল হোসেন সাদ্দামের মামার কক্ষ থেকে ২৪ কেইস বিয়ার উদ্ধার করে তিতাস থানা পুলিশ। বিষয়টির সঙ্গে সরাসরি সাদ্দাম জড়িত থাকার পরও অনেকেই তার বিরুদ্ধে মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছে না। এলাকায় এককভাবে মাদকের মধ্যে মরণনেশা ইয়াবার সবচেয়ে বড় ব্যবসায়ী হিসেবে কাজ করছেন এই সাদ্দাম-এমন অভিযোগ খোদ ছাত্রলীগের নেতার্কমীদের। সাদ্দামের এক ঘনিষ্ঠ বন্ধু নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, তিতাস উপজেলায় যত ধরণের মাদক ব্যবসা আছে সবগুলোর নিয়ন্ত্রণ করেন তোফাজ্জল হোসেন সাদ্দাম। এমনকি তার বাইরে গিয়ে যারা মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত তাদের কাছ থেকে নিয়মিত চাঁদা নেন। যদিও ওই সময় সাদ্দাম ওই মিডিয়াকে বলেন, তার বিরুদ্ধে আণীত অভিযোগ সর্ম্পূণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। এছাড়া কুমিল্লা উঃ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি প্রার্থী তফাজ্জল হোসেন সাদ্দাম ২০১৯ সালের ৩১শে মার্চ তিতাস উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থীর বিরুদ্ধে পারভেজ হোসেন সরকারের আনারস মার্কার পক্ষে কাজ করেন তফাজ্জল হোসেন সাদ্দাম। ওই সময় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ছিলেন মোঃ শাহিনুল আক্তার সোহেল সিকদার। এসব বিষয়ে সাদ্দাম মুঠোফোনে জানান, আমার বিষয়ে আনীত অভিযোগ মিথ্যা। আমি জীবনে সিগারেটও স্পর্শ করিনি। আমি সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী হয়েছি, তাই আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে একটি অপচক্র।

শাকিল: সে তিতাস উপজেলার বাসিন্দা। সে উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী। বিভিন্ন সূত্র জানায়, শাকিল মাদ্রাসার ছাত্র ছিলেন । সে কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের কোন কমিটিতে ছিল না বা সদস্য পদও নাই। তিতাস উপজেলা, ইউনিয়ন কিংবা ওয়ার্ড ছাত্রলীগেও তার নাম বা সাধারণ সদস্য পদও নাই।  তার ফুফাতো ভাই কড়িকান্দি ইউনিয়ন ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ছিল।

সে ঢাকা কলেজের ছাত্র না,কিন্তু মিথ্যা তথ্য দিচ্ছে। সে উত্তর জেলা ছাত্রলীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক লিখছে সিভিতে,সেটাও মিথ্যা তথ্য। ফলে তাকে নিয়ে বেশ বির্তক রয়েছে বলে স্থানীয় সূত্র জানায়।

বিভিন্ন সূত্রমতে, ঈদের পরে খুব দ্রুত কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষিত হবে। এখন দেখার বিষয় বির্তকিতদের পাশ কাটিয়ে সর্বজন গ্রহণযোগ্য একটি কমিটি উপহার দিতে পাওে কি না কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। উল্লেখ্য যে, ২০১৪ সালের ৬ ডিসেম্বর কুমিল্লা উত্তর জেলা শাখা ছাত্রলীগের ৫ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটি গঠন করা হয়। আবু কাউসার অনিককে সভাপতি ও ফরহাদ আহমেদ ফকিরকে সাধারণ সম্পাদক করে গঠিত নতুন এ কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- সহ সভাপতি আল আমিন সরকার, হালিম মিয়াজী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান ইউসুফ ও সাংগঠনিক সম্পাদক বাহারউদ্দিন বাহার।ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি এইচএম বদিউজ্জামান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলম কমিটি অনুমোদন করেন । ২০২০ সালে ফরহাদ আহমেদ ফকির তিতাস উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান হওয়ার পর সাধারণ সম্পাদক পদে আসেন গাজী বোরহান উদ্দিন ভূইয়া। ২ বছরের মেয়াদের কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের কমিটি ছিল ৭ বছর ধরে। বিবাহিত, অছাত্র ও বির্তকে জর্জরিত ছিল জেলার অর্ন্তগত বিভিন্ন উপজেলার প্রায় কমিটি। আ’লীগের দু’গ্রুপের দ্বন্দ্বে কয়েকটি উপজেলায় কমিটি দিতে পারেনি জেলা ছাত্রলীগ। তবে সবকিছু ছাড়িয়ে করোনাকালে বেশ প্রশংসনীয় কাজ করেছে কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগ।

আর পড়তে পারেন