বৃহস্পতিবার, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

মান-অভিমান ভুলে আবারও এক হলেন আসিফ-ন্যান্‌সি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ৩১, ২০২২
news-image

 

বিনোদন ডেস্কঃ

সংগীতশিল্পী আসিফ আকবর ও নাজমুন মুনিরা ন্যান্‌সির দীর্ঘদিনের দ্বন্দ্বের অবসান হলো। সব মান-অভিমান ভুলে আবারও এক হলেন তাঁরা। বসলেন পাশাপাশি। রাজধানীর একটি রেস্তোরাঁয় দেখা হলো। একসঙ্গে ছবিও তুললেন তারা। ন্যান্‌সির উদ্যোগেই তাদের দ্বন্দ্বের ইতি ঘটল।

আসিফ বলেন, ‘একটা ফোনের অপেক্ষায় ছিলাম চারটা বছর। অবশেষে এল সেই কাঙ্ক্ষিত ফোন। হ্যালো বলতেই শুনলাম অনেক পছন্দের আদুরে কণ্ঠটি। ভাইয়া, আমি ন্যান্‌সি বলছি—খুব ভালো লাগল ওর ফোনটা পেয়ে। দুনিয়ার সব অভিযোগ-অভিমান আমার বিরুদ্ধে, শুনে আরও ভালো লাগছিল। ন্যান্‌সি তো আমার ছোট, আমি তো বড়; তাহলে আমার মিনিমাম ভুলের ম্যাক্সিমাম শাস্তি হওয়া উচিত।’

অনেক দিন পর দুজনের দেখা হওয়ার অনুভূতি জানিয়ে আসিফ বলেন, ‘ন্যান্‌সি আমাকে বলল, “ভাইয়া, আমি রাগ কমিয়ে ফেলেছি, আপনিও রাগ কমিয়ে ফেলেন।” সঙ্গে সঙ্গেই রাজি হয়ে গেলাম। অনেক দিন পর স্নেহের ন্যান্‌সির সঙ্গে গল্প-গানের আড্ডায় নিজেকে হালকা করে ফেলেছি। তার জন্য আমার অনেক শুভকামনা। তাকে বলেছি, গান গেয়ে যাও, তোমার কণ্ঠ এ দেশের মানুষের একটা আনন্দময় ভালো লাগা। আমিও সেই দলের বাইরে নই।’

আসিফ-ন্যান্‌সির দ্বন্দ্ব শুরু হয় কয়েক বছর আগে। ফেসবুক লাইভে এসে ন্যান্‌সিকে নিয়ে আসিফের আপত্তিকর কথা বলা, সংগীতশিল্পী শফিক তুহিনের মামলায় তাঁর কারাগারে যাওয়াসহ নানা কারণে আসিফ-ন্যান্‌সির মধ্যে দূরত্ব বাড়তে থাকে। দ্বন্দ্বের মূলে ছিল আসিফ-ন্যান্‌সির গানের রয়্যালটি। ২০১৮ সালের মাঝামাঝির কথা। সে সময় তাঁদের এই ঘটনায় উত্তাল ছিল পুরো সংগীতাঙ্গন। ন্যান্‌সি দাবি করেছিলেন, ২০১৩ সালে আসিফের সঙ্গে করা “ঝগড়ার গান” অ্যালবামের প্রাপ্য সম্মানী তিনি পাননি। এ অ্যালবামে তিনি ১২টি গান গেয়েছেন। কিন্তু সম্মানী হিসাবে ২ লাখ টাকা আগাম রয়্যালটি ছাড়া আর কিছু পাননি।

ন্যান্‌সি উল্লেখ করেন, অ্যালবামের সম্মানী পাওয়ার বিষয়টি আসিফ আকবরের দায়িত্বে ছিল। এর এক বছর পর আসিফ আকবর তাঁকে আরেকটি অ্যালবাম করার প্রস্তাব দিলেও তিনি তা ফিরিয়ে দেন। এরপর ২০১৮ সালে আসিফ আকবর এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘ন্যান্‌সি ভালো গায়। কিন্তু মানুষ খারাপ, অকৃতজ্ঞ। ছয় মাস মাথা খারাপ থাকে।’ আসিফের এ মন্তব্যের পর ন্যান্‌সি আসিফ আকবরের বিরুদ্ধে মামলাও করেন। তবে সেসব আজ অতীত। প্রায় চার বছর পর তাঁদের অভিমানের বরফ গলল।

আর পড়তে পারেন