মঙ্গলবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

২ বছরের মেয়াদের কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের কমিটি চলছে ৭ বছর ধরে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ২, ২০২১
news-image

০  ১ যুগ ধরে চলছে দেবিদ্বার উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কমিটি

০  দেবিদ্বার পৌর ছাত্রলীগ কমিটি নিয়েও মত বিরোধ রয়েছে

০  ২ জন দিয়ে চলছে চান্দিনা উপজেলা ছাত্রলীগ

০  অছাত্র ও বিবাহিতদের নিয়ে চান্দিনা পৌর ছাত্রলীগের কমিটি !

০ আ’লীগের দুই গ্রুপের দ্বন্দ্বে ৬ বছর ধরে চলছে দাউদকান্দি উপজেলা ছাত্রলীগ

০ মেয়াদ নেই হোমনা উপজেলা ছাত্র্রলীগের

০ বহিস্কৃত নেতাকে দিয়ে তিতাস উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা

০ সম্মেলন হলেও কমিটি ঘোষণা হয়নি মেঘনায়

০ করোনাকালে প্রশংসনীয় কাজ করেছে উত্তর জেলা ছাত্রলীগ

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু:

২ বছরের মেয়াদের কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের কমিটি চলছে ৭ বছর ধরে। বিবাহিত, অছাত্র ও বির্তকে জর্জরিত প্রায় কমিটি। আ’লীগের দু’গ্রুপের দ্বন্দ্বে কয়েকটি উপজেলায় কমিটি দিতে পারছে না জেলা ছাত্র্রলীগ। তবে সবকিছু ছাড়িয়ে করোনাকালে বেশ প্রশংসনীয় কাজ করেছে কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগ। ২০১৪ সালের ৬ ডিসেম্বর কুমিল্লা উত্তর জেলা শাখা ছাত্রলীগের ৫ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটি গঠন করা হয়েছে। আবু কাউসার অনিককে সভাপতি ও ফরহাদ আহমেদ ফকিরকে সাধারণ সম্পাদক করে গঠিত নতুন এ কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- সহ সভাপতি আল আমিন সরকার, হালিম মিয়াজী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান ইউসুফ ও সাংগঠনিক সম্পাদক বাহারউদ্দিন বাহার।ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি এইচএম বদিউজ্জামান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলম কমিটি অনুমোদন করেন । ২০২০ সালে ফরহাদ আহমেদ ফকির তিতাস উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান হওয়ার পর সাধারণ সম্পাদক পদে আসেন গাজী বোরহান উদ্দিন ভূইয়া।

এক যুগ ধরে চলছে দেবিদ্বার উপজেলা ছাত্র্রলীগ:

এক যুগ ধরে চলছে দেবিদ্বার উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কমিটি। ইকবাল হোসেন রুবেলকে আহ্বায়ক করে কমিটি ঘোষণা করা হয়েছিল। ইকবাল হোসেন রুবেল সাংবাদিকতাও করছেন। তিনি এখন বিবাহিত। এই কমিটি ২৭ সদস্য বিশিষ্ট। এই কমিটি নিয়ে তৃণমূলে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। নতুন নেতৃত্ব সৃষ্টি হচ্ছে না। এ বিষয়ে কুমিল্লা উত্তর জেলা শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি আবু কাউসার অনিক জানান, আগামী সপ্তাহেই এই উপজেলায় নতুন কমিটি ঘোষণা করা হবে।

দেবিদ্বার পৌর লীগ:

চলতি বছরের (২০২১ সাল) ৩১ জুলাই বিবাহিত ও অছাত্রদের নিয়ে দেবিদ্বার পৌর ছাত্রলীগের কমিটি গঠনের অভিযোগ উঠে। এ নিয়ে কুমিল্লা উত্তর জেলা ও দেবিদ্বার উপজেলা ছাত্রলীগের মধ্যে দ্বন্দ্ব চরম আকার ধারণ করে। দেবিদ্বার পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি হিসাবে ছাব্বির আহমেদ ও নাজমুল হাসানকে সাধারণ সম্পাদক করে এক বছরের কমিটি করা হয়। সেটি অনিকের আইডি থেকে পোস্ট করা হয়। কিছুক্ষণ পরেই দেবিদ্বার উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক ইকবাল হোসেন রুবেল তার আইডি থেকে জানান, দেবিদ্বার পৌর ছাত্রলীগের কোনো কমিটি গঠন করা হয়নি। এরপর থেকেই দৃশ্যমান হয়ে ওঠে দেবিদ্বার উপজেলা এবং কুমিল্লা উত্তর ছাত্রলীগের মধ্যে চরম অসন্তোষ। অনিকের দেওয়া পোস্টে ইকবাল হোসেন রুবেলের একটি মন্তব্য স্ক্রিনশট দিয়ে অনেক সদস্যকে পোস্ট দিতেও দেখা যায়। সেই মন্তব্যে অনিককে উদ্দেশ্য করে রুবেল লিখেছেন, তোর কপালে দুর্গতি আছে। ছাত্রলীগ কর্মীরা জানান, নবগঠিত পৌর কমিটির সভাপতি বিবাহিত এবং সাধারণ সম্পাদক অছাত্র। সভাপতি সাব্বির আহমেদ সম্প্রতি পার্শ্ববর্তী মুরাদনগর উপজেলার পাহাড়পুর গ্রামে বিয়ে করেন এবং সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হাসান বিগত ৭-৮ বছর আগে পড়াশোনা ছেড়ে দিয়েছেন। কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবু কাউছার অনিক বলেন, দেবিদ্বার পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের মাস্টার্স শেষ পর্বের ছাত্র। সাধারণ সম্পাদকও কুমিল্লা সরকারি কলেজের ছাত্র। দলের জন্য এদের অনেক ত্যাগ রয়েছে। যদি কেউ প্রমাণ করতে পারে এদের কেউ বিবাহিত বা অছাত্র তাহলে সাথে সাথে কমিটি বাতিল করা হবে। বাণিজ্যের বিষয়ের অভিযোগ সঠিক নয় বলে তিনি দাবি করেন।

এর আগে ২০১৫ সালের ৮ অক্টোবর দেবিদ্বারের সুজাত আলী সরকারী কলেজ শাখার ছাত্রলীগের কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে পদ বঞ্চিত বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ করে। ওই সময় ওই কমিটির কমিটির সভাপতি মোঃ বিল্লাল হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক কাজী সিহাব উদ্দিনের মালিকানাধীন দুটি দোকান ভাংচুর করে বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা। ওই ছাত্রলীগ’র কমিটি ঘোষণা করেন জেলা কমিটির সভাপতি মোঃ আবু কাউছার অনিক। ওই সময় দেবিদ্বার উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক মোঃ ইকবাল হোসেন রুবেল জানান, ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী পুর্নাঙ্গ কমিটি সম্মেলনের মাধ্যমে করার নিয়ম থাকলেও এ কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে আমরা কিছুই জানিনা এবং কাজী সিহাব উদ্দিন বিবাহিত হওয়ার পরও তাকে এ কমিটির সাধারন সম্পাদক করা হয়।

২ জন দিয়ে চলছে চান্দিনা উপজেলা ছাত্রলীগ:

সাংগাঠনিক কার্যক্রমে স্থবিরতা আসায় ২০১৯ সালের ১০ সেপ্টেম্বর চান্দিনা উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করেন কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগ। বিলুপ্ত কমিটির সভাপতি ছিলেন মো. মহিউদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক মো. আবু কাউসার। ওই দিনই সংগঠনের গতিশীলতা আনয়নের জন্য এক বছরের জন্য চান্দিনা উপজেলা শাখার আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হল। এতে সভাপতি হিসেবে কাজী ইয়াছিন আহম্মেদ (অভি) ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে কাউছার আলমের (আপন) নাম ঘোষণা করা হয়। এ কমিটি এখন ২ বছর ধরে চলছে । পূর্ণাঙ্গও হয়নি এই কমিটি। এ বিষয়ে সভাপতি কাজী ইয়াছিন আহম্মেদ (অভি) জানান, চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে আমরা ৭১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি জমা দিয়েছি। কিন্তু এখনো বর্ধিত কমিটি অনুমোদন দেয়া হয় নি। এ বিষয়ে কুমিল্লা উত্তর জেলা  ছাত্রলীগের সভাপতি আবু কাউসার অনিক জানান, জমাকৃত কমিটিতে সমন্বয়হীনতা ছিল, অসাংগাঠনিক ও বির্তক হবে এমন কিছু বিষয় ছিল । তাই অনুমোদন দেইনি। পুনরায় সংশোধন করে কমিটি জমা দেওয়ার জন্য তাদের বলেছি।

চান্দিনা পৌর লীগ:

চলতি বছরের (২০২১) ১৭ মার্চ মো. ইকবাল হোসেনকে সভাপতি ও মাকসুদুল হাসান নোবেলকে সাধারণ সম্পাদক করে চান্দিনা পৌর ছাত্রলীগের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. আবু কাউসার অনিক ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক গাজী বোরহান উদ্দিন ওই কমিটির অনুমোদন প্রদান করেন। এছাড়াও কমিটিতে তানভীর হোসেন ও শেখ সজীব কে সহ-সভাপতি, মেহেদী হাসান সাগর, কাজী ইমদাদুল ইসলাম জয়, সৈয়দ মো.নাজিম হাসান, তানভীর মাহমুদ কে যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও প্রদীপ আচার্য্য নিরব , রাকিব খন্দকার, আশিকুর রহমান, রাকিবুল ইসলাম রাব্বিকে সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয় । অভিযোগ রয়েছে বর্তমান কমিটিতে বিবাহিত ও অছাত্র রয়েছে।

মুরাদনগর উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি :

চলতি বছরের ২৮ জানুয়ারি মুরাদনগর উপজেলা শাখার নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে । কুমিল্লা  উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি  মোঃ আবু কাউছার অনিক ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক গাজী মোঃ বোরহান উদ্দিন ভূইয়া স্বাক্ষরিত প্যাডে মোঃ শফিকুল ইসলাম তুহিনকে সভাপতি ও মোঃ হাফিজ খাঁনকে সাধারণ সম্পাদক করে আগামী এক বছরের জন্য ১১ সদস্য বিশিষ্ট মুরাদনগর উপজেলা ছাত্রলীগের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয় । নবগঠিত কমিটির অন্যান্যরা হলো সহ-সভাপতি পলাশ চন্দ্র দেবনাথ, মেজবাহ উদ্দিন, এইচ এম ইয়াছিন আহমেদ রবিন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক রাজিব আহমেদ, কামরুল হাসান। সভাপতি শফিকুল ইসলাম তুহিনকে নিয়ে কিছুটা বির্তক রয়েছে। বেশ কয়েকজন তুহিনকে মাদকাসক্ত বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তথ্য প্রকাশ করেছে। এমন কিছু স্ক্রিণশট আজকের কুমিল্লার টিমের কাছে রয়েছে।

বহিস্কৃত নেতাকে দিয়ে তিতাস উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা:

চলতি বছরের (২০২১ সাল) ২২ জুলাই তিতাস উপজেলা ছাত্রলীগের মেয়াদ উত্তীর্ণ কমিটি বিলুপ্ত করে ১১ সদস্যের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। কাউন্সিল বা সম্মেলন ছাড়াই গোপনে কমিটি ঘোষণা করায় বৈধতা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা যাচ্ছে । কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আবু কাউসার অনিক এবং সাধারণ সম্পাদক(ভারপ্রাপ্ত) গাজী বোরহান উদ্দিন ভূইয়া স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে আংশিক কমিটিতে কামরুল হাসান তুষারকে সভাপতি এবং খায়রুল খন্দকার রুবেলকে সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেয়া হয়। ঘোষিত কমিটি নিয়ে তিতাস উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক আহবায়ক তোফাজ্জল হোসেন তাঁর ফেসবুক ওয়ালে সমালোচনা করে লিখেন “ একটি অস্বচ্ছ পদ্ধতিতে সৃষ্ট তিতাস ছাত্রলীগের কমিটি বিতর্কের আরেকটি নতুন অধ্যায়ের সূচনা করলো” । তিতাস উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পারভেজ হোসেন সরকার বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে যখন সারাদেশে আওয়ামীলীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগসহ অঙ্গসংগঠনের কমিটি গঠন এবং বিলুপ্ত করা নিষেধ, সেখানে ঈদের পরদিন করোনা মহামারির এই কঠিন সময়ে গোপনে কমিটি ঘোষণা কোন উদ্দেশ্য হাসিলের জন্যই! আমি কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদকের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি, অবৈধভাবে ঘোষিত এই কমিটির কার্যক্রম স্থগিত করে কুমিল্লা উত্তরের মেয়াদ উত্তীর্ণ সকল কমিটিকে গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ঢেলে সাজানোর জন্য। সদ্য বিলুপ্ত কমিটির সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন সাদ্দাম বলেন, জেলা ছাত্রলীগ কর্তৃক বহিস্কৃত খায়রুল হাসান রুবেলকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে। তার বাড়ী হোমনা উপজেলার নিলুখি গ্রামে। ছয় মাস আগে পাশের মেঘনা উপজেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন হলেও এখন পর্যন্ত কমিটি ঘোষণা হয়নি। আমাদের এখানে কি এমন হয়েছে যে কোন রকমের পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই কমিটি করে দিয়েছে। জেলা ছাত্রলীগের এই অনৈতিক কর্মকান্ডের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে এই কমিটি বাতিল করা দাবী জানাচ্ছি। তা না হলে লকডাউনের পর কঠোর আন্দোলনে নামবে তিতাস উপজেলার তৃণমূলের নেতাকর্মীরা । জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ আহম্মেদ ফকির বলেন, গঠনতন্ত্র লঙ্ঘন করে এ কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। আর আমি দায়িত্বে থাকাকালীন সংগঠন বিরোধী কাজে জড়িত থাকায় খায়রুল খন্দকার রুবেল বহিস্কার করে ছিলাম। অন্য উপজেলার একজন বহিস্কৃতকে কিভাবে সাধারণ সম্পাদক পদে পদায়ন করে! এ কমিটি ঘোষণার মাধ্যমে ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্রকে কবর দেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে কুমিল্লা জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আবু কাউসার অনিক বলেন, কমিটি করার প্রক্রিয়া দু’টি, একটি হলো সম্মেলনের মাধ্যমে, অন্যটি সম্মেলন ছাড়া। সম্মেলনের মাধ্যমে আনুষ্টানিকতা হলো লোক দেখানো। তিতাস উপজেলা ছাত্রলীগের পুর্ণাঙ্গ কমিটি না থাকায় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের মৌখিক নির্দেশে প্রথম অধিবেশন ছাড়াই দ্বিতীয় অধিবেশন করেছি। এখন কারো কোন অভিযোগ থাকলে কেন্দ্রে করুক।

দাউদকান্দি উপজেলা ছাত্রলীগ:

২০১৫ সালের ১৬ নভেম্বর ১ বছরের জন্য ৭ সদস্য বিশিষ্ট দাউদকান্দি উপজেলা ছাত্র্রলীগের কমিটি ঘোষণা করেন কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবু কাওসার অনিক  ও ওই সময়ের সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ আহমেদ ফকির। ওই কমিটিতে সভাপতি পদে তরিকুল ইসলাম নয়ন, সহ সভাপতি পদে মহিউদ্দিন বশর রণী, সাধারণ সম্পাদক পদে সালাউদ্দিন সরকার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে মোমেন খান, সাংগাঠনিক সম্পাদক পদে মামুন দেওয়ান, মেহেদী হাসান সজীব ও বিল্লাল হোসেনকে রাখা হয়। সভাপতি তারিকুল ইসলাম নয়ন ৪ বছর আগে বিয়ে করেন। চলতি বছরে দাউদকান্দির চক্রতলা বাজারে ১৫ আগষ্টের শোক সভা সমাবেশে হামলার অভিযোগে তাঁর বিরুদ্ধে আদালতে মামলা রয়েছে। সাধারণ সম্পাদক সালাউদ্দিন সরকার ২ বছর পূর্বে মারা গেছেন। তার স্থলে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্বে রয়েছেন নাসির । জানা যায়, নাসির বিএনপি সমর্থিত পরিবার থেকে এসেছে । এদিকে উপজেলা সভাপতি তরিকুল ইসলাম নয়ন উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যান হওয়াই সভাপতি পদও শূণ্য হয়েছে। এক বছরের কমিটি দীর্ঘদিন ধরে চলার পেছনে ওই আসনের আ’লীগের দুই গ্রুপের দ্বন্দ্বই মূল কারণ বলে একাধিক সূত্র দাবি করেছে।

হোমনা ছাত্রলীগ:

২০১৫ সালের ৫ আগস্ট কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ফয়সাল আহমেদ অনিক ও সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ আহমেদ ফকির এর স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে  হোমনা থানা ছাত্রলীগের সকল কার্যক্রম স্থগিত ঘোষণা করেন। পরে ফয়সাল আহমেদকে সভাপতি ও ফোরকান আহমেদ পলাশকে সাধারণ সম্পাদক করে ৭ সদস্য বিশিষ্ট উপজেলা ছাত্রলীগ কমিটি ঘোষণা করা হয়। এই কমিটিও ২ বছর পার করে ফেলেছে। এখনো পূর্ণাঙ্গ হয়নি। কমিটির মেয়াদও শেষ।

মেঘনা উপজেলা ছাত্রলীগ:

২০১৫ সালের ১৬ জুন মোহাম্মদ আল-আমিনকে সভাপতি এবং মহসিন সোহাগকে সাধারণ সম্পাদক ও গাজী পারভেজকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে বার্ষিক মেয়াদে মেঘনা উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করে কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগ। চলতি বছরে প্রায় ৬ মাস পূর্বে কমিটি গঠনের জন্য উপজেলার মানিকার এল এল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু কমিটি ঘোষণা না করেই সম্মেলন শেষ হয়। সম্মেলনে জেলা ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতারা এবং স্থানীয় এমপি মেজর জেনারেল অবঃ সুবিদ আলি ভূইয়াসহ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি শফিকুল আলম, উপজেলা চেয়ারম্যান সাইফুল্লাহ মিয়া রতন শিকদারসহ উপজেলার শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন। বর্তমান কমিটির সভাপতি বিবাহিত। উপজেলায় ছাত্রলীগের দুটি গ্রুপ রয়েছে। স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, ওই আসনের সাংসদ সুবিদ আলী ভূইয়া ও কেন্দ্রীয় নেতা প্রকৌশলী সবুরের মধ্যে দ্বন্দ্ব থাকায় এখানে কমিটি দিতে হিমশিম খাচ্ছে উত্তর জেলা ছাত্রলীগ।

করোনাকালে প্রশংসনীয় কাজ করেছে উত্তর জেলা ছাত্রলীগ:

করোনাকালে সর্বোচ্চ মানবিকতার পরিচয় দিয়েছে কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগ। এ সময় কুমিল্লা-৪ আসনের সাংসদ রাজী মোহাম্মদ ফখরুলের নির্দেশে অসহায় মানুষের পাশে দাড়াঁনোর জন্য তারা গঠন করে “হ্যালো ছাত্র্রলীগ” নামের মানবিক সংগঠন। অসহায়-দু:স্থদের বাসায় খাবার পৌছে দেওয়া, করোনা আক্রান্তদের বাসায় বাসায় গিয়ে মৌসুমী ফল বিতরণ, শীত বস্ত্র বিতরণ, ডেঙ্গু মশক নিধন কার্যক্রম, কৃষকের ধান কাটা ও মাড়াই করে বাড়ি পৌছে দেওয়া, বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী, হাসপাতাল পরিষ্কার করা, ঈদ সামগ্রী বিতরণ, ফ্রি অক্সিজেন সেবা চালু, করোনা প্রতিরোধক বুথ স্থাপন এবং করোনায় মৃত ব্যক্তির লাশ দাফনে “ ওরা ৪১ জন দাফন টিম” গঠন করে প্রশংসিত হন হ্যালো ছাত্রলীগ। করোনাকালে হ্যালো ছাত্রলীগ একটি হটলাইন নাম্বার চালু করে। এই নাম্বার ছড়িয়ে দেওয়া হয় চারদিকে। যখনই কোন অসহায় মানুষের ফোন পেয়েছেন তখনি খাবার নিয়ে হাজির হয়েছেন হ্যালো ছাত্রলীগ। হ্যালো ছাত্রলীগের প্রধান সমন্বয়ক ও কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবু কাউসার অনিকের নেতৃত্বে দেবিদ্বারের সাংসদ রাজী মোহাম্মদ ফখরুলের অনুপ্রেরণা ও সহযোগিতায় প্রায় ১০ হাজার অসহায়, নি:স্ব ও কর্মহীন মানুষকে খাবার দিয়েছে হ্যালো ছাত্রলীগ। এছাড়া “ওরা ৪১ জন দাফন টিম” জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রায় ২ শতাধিক করোনায় মৃত ব্যক্তিদের দাফন ও সৎকার করেন।

কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবু কাউসার অনিক জানান, দীর্ঘদিন ছাত্রলীগের রাজনীতি করেছি। মানুষের সেবা করেছি। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দকে অনুরোধ করেছি- যাতে আমাদের এই ইউনিটের সম্মেলনটি প্রথম দিকে রাখে। কুমিল্লা উত্তর জেলায় সম্মেলন করে সম্মানের সহিত ছাত্রলীগ থেকে বিদায় নিতে চাই। নতুন নেতৃত্ব সৃষ্টিতে সহায়তা করতে চাই।

আর পড়তে পারেন