বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

আমিরাত থেকে দেড় মাসে শতাধিক বাংলাদেশির মৃতদেহ আসলো

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ২৬, ২০২০
news-image

ডেস্ক রিপোর্ট:
সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে গত দেড় মাসে বা ৪৫ দিনে শতাধিক বাংলাদেশির মৃতদেহ দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে। উপরন্তু ৫০০০ বাংলাদেশি শ্রমিককে ভাড়া করা এবং বিশেষ ফ্লাইটের মাধ্যমে দেশে পাঠানো হয়েছে।

আবু ধাবিতে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস এসব তথ্য দিয়েছে অনলাইন গালফ নিউজকে। এতে বলা হয়েছে, যে শতাধিক মৃতদেহ ফেরত পাঠানো হয়েছে, তারা করোনা সংক্রমণ ছাড়া অন্য কারণে মারা গিয়েছেন। দূতাবাসের একজন শীর্ষ কর্মকর্তা এ তথ্য দিয়েছেন বলে খবরে বলা হয়েছে। আরো বলা হয়েছে, সংযুক্ত আরব আমিরাতে যেসব বাংলাদেশি ‘প্রাকৃতিক কারণে মৃত্যুবরণ’ করেছেন তাদের মৃতদেহের জন্য বাংলাদেশে অপেক্ষায় ছিলেন বহু আত্মীয়-স্বজন। কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারণে ফ্লাইট চলাচলে বিধিনিষেধ থাকায় এসব মৃতদেহ বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো সম্ভব হয় নি। তা মার্চ মাস থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাতের মর্গে রাখা হয়েছিল।

বাংলাদেশ দূতাবাসের চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স মোহাম্মদ মিজানুর রহমান বলেছেন, এসব মৃতদেহ আস্তে আস্তে দেশে ফেরত পাঠাতে সহায়তা করেছে দূতাবাস। তিনি বলেছেন, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাংলাদেশ সরকারের সহযোগিতার ভিত্তিতে কার্গো বিমানে করে এসব মৃতদেহ দেশে ফেরত আনা শুরু করেছে দূতাবাস। এ সময়ে সংযুক্ত আরব আমিরাত কর্তৃপক্ষের সহযোগিতায় সেখান থেকে ৫ হাজারেরও বেশি বাংলাদেশিকে কমপক্ষে ২০টি বিশেষ ফ্লাইটে বাংলাদেশে ফেরত আনা হয়েছে। এছাড়া দূতাবাস আটটি ভাড়া করা ফ্লাইটে হতাশাগ্রস্ত অথবা যারা কাজ হারিয়েছেন তাদেরকে দেশে ফেরত আনা হয়েছে। তিনি আরো বলেছেন, এখনও ২০টি মৃতদেহ ফেরত পাঠানোর অপেক্ষায় আছে। এর মধ্যে ১০টি মৃতদেহ রয়েছে আবু ধাবিতে। ১০টি দুবাইয়ে।
মিজানুর রহমান বলেছেন, যেসব শ্রমিক কাজ হারানোর পর দেশে ফেরার খরচ বহনে অক্ষম তাদেরকে সহায়তা করেছে দূতাবাস। এক্ষেত্রে তাদেরকে নিয়োগকারী কোম্পানিগুলো আর্থিক সমর্থন দিয়েছে। এ সময় তিনি সংযুক্ত আরব আমিরাতে অবস্থানরত বাংলাদেশি সম্প্রদায়কে ধৈর্য্য ধরার আহ্বান জানিয়ে সহায়তার জন্য দূতাবাস মিশনে যেতে বলেন। মিজানুর রহমান বলেন, এটা হলো সবার জন্য এক পরীক্ষার সময়- বাংলাদেশি বা সংযুক্ত আরব আমিরাত উভয় দেশের জন্যই। কিন্তু তাদের মিশন লোকজনকে দেশে ফেরার ক্ষেত্রে সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে।

সংযুক্ত আরব আমিরাত যেভাবে কোভিড-১৯ মোকাবিলা করছে তার প্রশংসা করেন বাংলাদেশি এই কূটনীতিক। তিনি আমিরাতের এই প্রচেষ্টাকে বিশ্বের অন্যতম সেরা বলে অভিহিত করেন। তিনি বলেন, আমি আমার দেশের লোকজনকে স্থানীয় সরকারের সঙ্গে সহযোগিতা করার আহ্বান জানাই।

আর পড়তে পারেন