বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

আর্মি এভিয়েশন গ্রুপের অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব পেলেন কুমিল্লার মেয়ে ফারহানা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ৩০, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
‘এটা অত্যন্ত গর্বের অনুভূতি। আমরা এই দিনটির জন্য ১৬-১৭ বছর ধরে নিজেদের তৈরি করেছি। কমান্ড হচ্ছে এক ধরনের চ্যালেঞ্জ। সেই চ্যালেঞ্জ রাষ্ট্র ও সরকার আমাদের হাতে তুলে দিয়েছে। সেটার মর্যাদা রক্ষা করে আরও এগিয়ে যাব। এটাকে বলা যায় নবযাত্রায় স্বপ্ন পূরণের সোনালি রেখায় হেঁটে চলা। দিন দিন সেই রেখা আরও উজ্জ্বল হবে। এমন একদিন আসবে, যেদিন হয়তো কোনো নারী কর্মকর্তা সেনাপ্রধান হিসেবে বাহিনীর নেতৃত্ব দেবেন।’

সেনাবাহিনীর ইতিহাসে প্রথমবারের মতো দীর্ঘমেয়াদি কোর্সের চার নারী কর্মকর্তা মেজর থেকে লে. কর্নেল পদে পদোন্নতি পেয়েছেন। এরপর তাদের ফাইটিং ফোর্সের প্রথম ব্যাটালিয়ন অধিনায়কও করা হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে আরেকটি নতুন অধ্যায়ের যাত্রা শুরু হলো সেনাবাহিনীতে। গতকাল মঙ্গলবার সকালে ঢাকা সেনানিবাসে এক সাক্ষাৎকারে পদোন্নতিপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তারা কাছে অভিব্যক্তি ও স্বপ্নের কথা তুলে ধরেন তাদের।

পদোন্নতিপ্রাপ্ত চার নারী লে. কর্নেল হলেন- আর্টিলারির সানজিদা হোসেন, সৈয়দা নাজিয়া রায়হান, ফারহানা আফরীন ও ইঞ্জিনিয়ার্সের সারাহ্‌ আমির। এর আগে গত বৃহস্পতিবার সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ তাদের নতুন র‌্যাঙ্ক ব্যাজ পরিয়ে দেন। গত রোববার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে গণভবনে সাক্ষাৎ করেন পদোন্নতিপ্রাপ্ত এই চার নারী কর্মকর্তা।

সাক্ষাৎকারে লে. কর্নেল সারাহ্‌ আমির বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর নারীর ক্ষমতায়নের অঙ্গীকারের অংশ হিসেবে ২০০০ সাল থেকে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর দীর্ঘমেয়াদি কোর্সে নিয়মিতভাবে নারী অফিসার নিয়োগ করা হচ্ছে। ৪৭তম দীর্ঘমেয়াদি কোর্স থেকে শুরু হওয়া এসব নারী কর্মকর্তা এরই মধ্যে নিজ নিজ কর্মক্ষেত্রে পেশাগত দক্ষতা প্রদর্শনে সফল হয়েছেন। কঠিন প্রতিযোগিতার মধ্য দিয়ে সেনাবাহিনীতে যোগদানের জন্য মনোনীত হয়েছি। ৪৭তম দীর্ঘমেয়াদি কোর্সের জন্য ৩০ হাজার প্রার্থী পরীক্ষায় অংশ নেয়। সেখান থেকে চূড়ান্তভাবে ৩০ জন নারীকে বিএমএ ট্রেনিংয়ের জন্য মনোনীত করা হয়। দু’বছর প্রশিক্ষণের পর ২০ জন শেষ পর্যন্ত সেখানে পাস করেছিলেন। ছেলেমেয়ে সবার সঙ্গে প্রতিযোগিতা করেই এ পর্যায়ে আসতে হয়েছে।’

সারাহ্‌ আমিরের গ্রামের বাড়ি বরিশালে। তার বাবা কর্নেল (অব.) আমির হোসেন। মা মাহমুদা খাতুন। সারাহ্‌র স্বামী লে. কর্নেল মাহমুদ হাসান। এক প্রশ্নের জবাবে সারাহ্‌ বললেন, ‘সেনাবাহিনীতে যোগদানের পর পরই যেটা প্রথম শেখানো হয়েছে, তা হলো- ‘তুমি স্যার, তুমি ম্যাডাম নও।’ কাজের ক্ষেত্রে নারী-পুরুষের কোনো পার্থক্য নেই। যোগ্যতা, কর্মনিষ্ঠা ও নেতৃত্বগুণের মধ্য দিয়ে একজন অফিসার তৈরি হয়। সারাহ্‌ স্কুল অব ইনফ্যান্ট্রি অ্যান্ড ট্যাকটিসের অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

লে. কর্নেল সানজিদা হোসেন বলেন, ‘স্বপ্নের কোনো সীমানা নেই। আকাশ আমাদের শেষ সীমানা। স্বপ্নের সিঁড়ি বেয়ে আমরা এগিয়ে চলছি। কাউকে তো অবশ্যই শুরু করতে হবে, যা আগামী প্রজন্মকে আরও বহুদূর থেকে সহায়তা করবে। সেনাবাহিনীতে যোগদান ছিল জীবনের শ্রেষ্ঠ সিদ্ধান্ত। যখন সেনাবাহিনীতে যোগদান করেছি, তখনই তো বড় চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেছি। সেই চ্যালেঞ্জ জয় করেই এগিয়ে চলছি। সেনাবাহিনীতে আসার কারণে নিজের মধ্যে কী ধরনের শক্তিমত্তা রয়েছে, তা জানতে পেরেছি। ২০০২ সালের ৩১ ডিসেম্বর যখন দীর্ঘমেয়াদি কোর্সে উত্তীর্ণ হয়েছি, সেটাই ছিল জীবনের সবচেয়ে স্মরণীয় মুহূর্ত।’

সানজিদার বাবা এটিএম দেলোয়ার হোসেন একটি বেসরকারি ব্যাংকের অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা। মা বিলকিছ আরা চৌধুরী। সানজিদার স্বামী লে. কর্নেল কামরুল হাসান। সানজিদার গ্রামের বাড়ি ফেনীতে। তিনি রংপুরের খোলাহাটিতে সাত ফিল্ড রেজিমেন্টের অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করবেন।

ফারহানা আফরীন বলেন, ‘কখনও ভাবিনি লে. কর্নেল হবো, সেটা হওয়ার পর পত্রিকা ও টেলিভিশনে তা প্রচার ও প্রকাশ পাবে। সেটা হতে পেরে অত্যন্ত অভিভূত। নারীদের জন্য কমান্ড পরিচালনা করাই একটা বড় চ্যালেঞ্জ। যে দায়িত্ব পেলাম তা পরবর্তী প্রজন্মকে অবশ্যই অনুপ্রেরণা দেবে। নারীরা যে পিছিয়ে নেই, এটাই তার প্রমাণ। এখন সত্যিকার অর্থে আত্মবিশ্বাস বেড়ে গেছে। মোট ১০ জন নারী কর্মকর্তা লে. কর্নেল হবেন, এটা অনুমোদন হয়েছে। আমরা চারজন র‌্যাঙ্ক পরেছি। বাকিরা পরবর্তী সময়ে পরবেন। একদিন হয়তো সেনাপ্রধানের পদেও একজন নারী দায়িত্ব পালন করতে পারেন।’
আফরিনের বাবা মৃত আমিনুল ইসলাম সাবেক ডিআইজি-প্রিজন। ফারহানার স্বামী লে. কর্নেল মোস্তাফিজুর রহমান। তার মা নিলুফা ইসলাম। ফারহানার গ্রামের বাড়ি কুমিল্লায়। তিনি আর্মি এভিয়েশন গ্রুপের অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

লে. কর্নেল সৈয়দা নাজিয়া রায়হান বলেন, “দীর্ঘমেয়াদি প্রশিক্ষণ ছিল সবচেয়ে সব চ্যালেঞ্জ। সেখানে শেষ পর্যন্ত টিকে রাখতে নিজেকে নানাভাবে তৈরি করতে হয়। এসব পথ পাড়ি দিয়ে একটা বড় স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। পরবর্তী লক্ষ্য হলো- কীভাবে নিজের ইউনিটকে এগিয়ে নিয়ে যাব। কমান্ডের দায়িত্ব পাওয়া একটা সৌভাগ্যের বিষয়। এটা একটি বড় চ্যালেঞ্জ। এই চ্যালেঞ্জের দায়িত্ব পাওয়ার পর সহকর্মী ও পরিচিতজনরা অভিনন্দন জানিয়েছেন। যেদিন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গিয়েছি, সেদিন সেখানে তিন বাহিনীর প্রধান ছিলেন। ওই দিন প্রধানমন্ত্রীর একটি কথা সারাজীবন মনে রাখব। প্রধানমন্ত্রী বলছিলেন, ‘নারীদের যেখানে দায়িত্ব দেওয়া হয়, সেখানে তারা ভালো করে।’ এটা ঠিক, আমরাও সব পারি। প্রমাণ হয়েছে এটা। নারীর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ সত্যিকার অর্থে রোল মডেল। সেনাবাহিনীতে নারীকে তার যথাযথ সম্মান দেওয়া হয়।”

নাজিয়ার বাবা সৈয়দ আবু রায়হান অবসরপ্রাপ্ত যুগ্ম সচিব। তার মা রিনা খান। নাজিয়ার গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইলের কালিহাতি। তার স্বামী লে. কর্নেল মো. তানভীর হোসেন। নাজিয়াকে ময়মনসিংহের ৪, ফিল্ড রেজিমেন্টের অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে

আর পড়তে পারেন