সোমবার, ৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

কালিরবাজারে ১৫০ বছরের পুরনো পুকুর ভরাট করে অবৈধভাবে দোকান নির্মাণ!

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ২২, ২০২২
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লা  সদরের কালিরবাজার ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের অলিপুর গ্রামে একটি প্রভাবশালী চক্র  দেলোয়ার হোসেন  এবং আনোয়ারা বেগম  পরিবেশ  আইন অমাণ্য করে প্রায়  ১৫০ বছরের পুরনো একটি পুকুর ভরাট করে অবৈধভাবে দোকান নির্মাণ করছে বলে স্থানীয় সূত্র জানায়।

পরিবেশ অধিদপ্তর কর্তৃপক্ষ চলতি বছরের ৮ আগষ্ট এ ঘটনায়  জরিমানা করার পরও তারা পুকুর ভরাট করে চলেছে। পুকুর ভরাট করে বর্তমানে দোকানের নাম দেওয়া হয়েছে “বীর নিবাস”, পাশে  লেখা আছে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের নাম। মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের নাম লেখা সাইনবোর্ড ব্যবহার হচ্ছে ওই খানে স্থাপিত একটি রেস্টুরেন্টে। সাধারণত এলাকাবাসীরা বলেন,যারা দোকান তৈরি করেছেন তারাই একটি সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে দিয়েছেন।

গত ৮ আগস্ট পরিবেশ আইন ১৯৯৫ সংশোধনি ২০১ ধারায়  ১ লক্ষ ৫৬ হাজার ৮১৬ টাকা জরিমানা করা হয়। ৭ দিনের মধ্যে জরিমানা পরিশোধ করতে বলেন পরিবেশ অধিদপ্তর এবং পুকুর ভরাট কাজ বন্ধ রাখার জন্য  নির্দেশ দেওয়া হয়। অন্যথায় আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান পরিবেশ অধিদপ্তর।

পরিবেশ আইন অনুযায়ী পুকুর ,জলাশয় বা ডোবা ভরাট নিষিদ্ধ থাকলেও এরই মাঝে প্রায় এক একর আয়তনের পুকুরটির বেশ কিছু অংশ ভরাট করে দোকান নির্মান করা হয়েছে।

সরেজমিন ঘুরে স্থানীয় সূত্রে জানা যায় জেলার, আদর্শ সদর উপজেলার কালিরবাজার ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের  অলিপুর গ্রাম সংলগ্ন বাজারের পাশে পুকুরটির অবস্থান। প্রায় এক একর আয়তনের পুকুরটির মালিক স্থানীয় আনোয়ারা বেগম গং পুকুরটি ভরাট করে দোকান নির্মাণ করেন।  এই গ্রামসহ বাজারের লোকজনদের গোসল,কাপড় ধোঁয়াসহ নিত্য ব্যবহার্য গৃহস্থালীর কাজে পুকুরটি ব্যবহৃত হয়ে আসছিল।

এদিকে পুকুরটি ভরাট কার্যক্রম চলায় স্থানীয় শত শত মানুষ নিত্য ব্যবহারের  সুযোগ থেকে যেমন বঞ্চিত, তেমনি এলাকার বিরাট একটি পানির উৎসস্থল ভরাট করে ফেলায় ভবিষ্যতে স্থানীয়ভাবে জলাবদ্ধতা বা অগ্নিকান্ডের সময় পানি স্বল্পতার আশঙ্কা করছেন সাধারণ মানুষ ।

হঠাৎ করে পুকুরটি ভরাট শুরু করলে স্থানীয়ভাবে পরিবেশ ও ভূমি অফিসে বিষয়টি জানানোর পর জরিমানা করে পুকুর ভরাট বন্ধ করা হয়। পরে আবার পূনরায় কাজ শুরু করে ঐ ভরাট করা পুকুরে অবৈধ দোকান নির্মাণ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে কুমিল্লা পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ পরিচালক শওকত আরা কলি জানান,  পুকুর ভরাট করার কারনে ১ লক্ষ ৫৬ হাজার ৮১৬ টাকা জরিমানা করা হয়। কিন্তু আনোয়ারা বেগম গং জরিমানা পরিশোধ করে নাই। আমরা অফিসিয়ালভাবে জরিমানা আদায়ের জন্য আমরা দুইটি নোটিশ দিয়েছি। এখনো পর্যন্ত যোগাযোগ করে নাই। জরিমানা দেওয়ার জন্য আমাদের অফিসে আসে নাই। আমরা অফিসিয়ালভাবে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য প্রশাসনিক সহযোগিতা নিয়ে খুব দ্রুত ব্যবস্থা নিবো।

আর পড়তে পারেন