বৃহস্পতিবার, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লার বুড়িচংয়ে শিকলবন্দি জীবন পার করছে সোহেল

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ৩, ২০২২
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

পায়ে শিকল পরা অবস্থায় দিন শুরু হয়, বিকাল গড়িয়ে অন্ধকার নামে এ অবস্থাতেই। ফলে পায়ের সঙ্গে শিকল যেন নিত্যদিনের সঙ্গী হয়ে দাঁড়িয়েছে সোহেল আহাম্মদ (৩৫) নামে এক যুবকের।

কুমিল্লা জেলার বুড়িচং উপজেলার ভরাশাল গ্রামের লতু মিয়ার ছেলে সোহেল। জন্মের ২৫ বছর বয়স থেকেই পায়ে শিকল ও হাতে দড়ি বাঁধা হয়ে প্রায় ১০ বছরের বেশি সময় ধরে মানবেতর জীবনযাবন করছেন মানসিক প্রতিবন্ধী ওই যুবক।

সরেজমিন দেখা গেছে, পায়ে লোহার শিকল ও হাতে দড়ি লাগিয়ে ঘরে গ্রিলের সঙ্গে বেঁধে রাখা হয়েছে মানসিক প্রতিবন্ধী সোহেল আহাম্মদকে। কখনো সে দাঁড়িয়ে থাকছে, কখনো সে শুয়ে বসে সময় কাটাচ্ছে। আবার কখনো হাসি-কান্নার মধ্য দিয়েই কাটছে তার জীবন। কথা বলতে পারে ঠিকঠাক, কেমন আছেন বলে সে, কখনো কখনো চিৎকার করতে থাকে। সন্তানের এ অবস্থা দেখে চিন্তায় সারাক্ষণ কাঁদেন তার বাবা-মা।

পরিবারের সদস্যের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, জন্মের প্রায় ২০ বছর বয়স হওয়ার পর থেকেই তার মধ্যে মানসিক কিছু পরিবর্তন দেখা দেয়। তার অস্বাভাবিক আচরণ শুরু হয়। সেই সময় তাকে ছেড়ে দিলে ছোটাছুটি করে যাকে সামনে পেত তাকেই মারধর করত। পরে সামর্থ্য মতো কিছু দিন চিকিৎসা চালালেও সুস্থ হয়নি সোহেল তার আচরণের কোনো পরিবর্তন হয়নি। বরং অস্বাভাবিক আচার-আচরণ করাসহ পরিবারের লোকজনদেরও কাছে পেলে আঘাত করার চেষ্টা করত।

এ জন্যই পায়ে শিকল ও হাতে দড়ি দিয়ে ঘরে বেঁধে রাখা হয়েছে তাকে। এভাবেই চলতে থাকে বছরের পর বছর। মুক্ত থাকলে কখন কী দুর্ঘটনা ঘটায় এমন আশঙ্কায় বন্দি করে রাখা হয়েছে বলে জানায় তার পরিবার।

সোহেলকে রাতে ঘরের ভেতর গ্রিলের সঙ্গে এবং সকালে বাড়ির সামনে গাছের সঙ্গে বেঁধে রেখে সেখানেই খাবার দেওয়া হয়। একদিন খেলে দুদিন চলে যায় তবু খাবার খায় না। এভাবেই বছরের পর বছর ধরে চলছে সোহেলের বন্দিজীবন। প্রস্রাব পায়খানা ঘরের ভেতরে করে টয়লেট আছে সেখানে পায়খানা করে এর পর তার মা অথবা বাবা পরিষ্কার করেন।

সরকারি সহায়তায় উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করলে হয়তো স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে পারত বলে জানায় তার পরিবার।

সূত্র-যুগান্তর

আর পড়তে পারেন