শুক্রবার, ২০শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লায় সিগারেটের দাম বাড়াতে মানববন্ধন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ১৭, ২০১৯
news-image

 

অনলাইন ডেস্কঃ
“দেশ তামাকজনিত ব্যাধি ও অকাল মৃত্যুর কারণে ক্রমবর্ধমান অর্থনৈতিক ক্ষতির সম্মুখিন।

বাংলাদেশে শুধুমাত্র তামাক ব্যবহারজনিত বাৎসরিক আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ ৩০ হাজার ৫৭০ কোটি টাকা।

সম্প্রতি এক গবেষণার তথ্যানুযায়ী, তামাকজনিত প্রধান সাতটি রোগের ন্যুনতম একটিতে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি ৫৭ শতাংশ এবং ক্যান্সারের ক্ষেত্রে ঝুঁকি ১০৯ শতাংশেরও বেশী।

বর্তমানে দেশে ১৫ লাখের অধিক নারী-পুরুষ এবং ৬১ হাজারেরও বেশী শিশু পরোক্ষ ধুমপানের প্রভাবে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত এই তামাক সেবনের কারণে।” গত ১৭ জুন বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা দর্পণ এর প্রধান কার্যালয়ের সামনে সুশাসনের জন্য প্রচারাভিযান (সুপ্র), কুমিল্লা জেলা কমিটি ও দর্পণ এর যৌথ উদ্যোগে সিটিএফকে-র আর্থিক সহযোগিতায় তামাক পণ্যের উপর সুনির্দিষ্ট হারে কর বৃদ্ধির লক্ষ্যে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন ও সমাবেশে বক্তাগন এ কথাগুলো বলেন।

মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন সাপ্তাহিক অভিবাদন এর সম্পাদক আবুল হাসানাত বাবুল। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন কুমিল্লা প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি জহিরুল হক দুলাল।
সমাবেশে স্বাগত বক্তব্য রাখেন দর্পণ এর নির্বাহী পরিচালক মোঃ মাহবুব মোর্শেদ।

সমাবেশে অন্যান্যদের বক্তব্য রাখেন রিপোর্টাস ইউনিটির সভাপতি সাদিক মামুন, রিপোর্টাস ইউনিটির সহ-সভাপতি ও সিটিভি নিউজ এর সম্পাদক ওমর ফারুকী তাপস, বাংলাদেশ উইমেন চেম্বার অব কর্মাস এন্ড ইন্ডাষ্ট্রী কুমিল্লা জেলা শাখার সভাপতি নাগমা মোর্শেদ, ব্যবসায়ী আনোয়ার হোসেন, মহিলা কল্যাণ সংস্থার সভানেত্রী নাসিমা আক্তার, পিএসউইএস এর নির্বাহী পরিচালক কাজী মাহতাব, নারী উদ্যোক্তা মায়া নাসরিন, নারী উদ্যোক্তা মরিয়ম আক্তার মনি, নারী উদ্যোক্তা বিলকিস আক্তার লাইজু, ফটো সাংবাদিক এন. কে রিপন, নারী উদ্যোক্তা ফয়জুন নেছা মুন্নী, দর্পণের সহকারী প্রকল্প পরিচালক নাজনীন আক্তার, আওয়ার লেডি অব ফাতেমা গালর্স হাই স্কুলের সিনিয়র সহকারী শিক্ষক মো: আলাউদ্দিন, সমতটের কাগজ এর সম্পাদক জামাল উদ্দিন দামাল, এবং দর্পণের প্রোগ্রাম অফিসার আফসানা আফরোজ জুঁই।

সভায় বক্তাগন আরও বলেন, বাংলাদেশে তামাক পণ্য বিশেষ করে বিড়ি-সিগারেট, গূল, জর্দ্দা ইত্যাদির দাম অত্যন্ত কম হওয়ায় শিশু-কিশোর তথা দেশের তরুন সমাজ দিন দিন তামাকে আসক্ত হয়ে দেশে একটি দূর্বল ও মেধাশূন্য জাতি তৈরী হচ্ছে। তামাকপণ্যর কার্যকর কর বৃদ্ধি তামাকপণ্যর সম্প্রসারন রোধ করতে পারে। কিন্তু ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে এর প্রতিফলন ঘটেনি। ২০১৯-২০ সালের প্রস্তাবিত বাজেটে নিম্নস্তরে সিগারেটের দাম বৃদ্ধি করা হয়েছে শলাকা প্রতি মাত্র ২০ পয়সা বা ৫.৭ শতাংশ। অথচ এসময়ে জনগণের মাথাপিছু আয় বেড়েছে ১১.৩২ শতাংশ। সিগারেট ধূমপায়ীর প্রায় ৭২ শতাংশই নি¤œস্তরের সিগারেটের ভোক্তা। প্রস্তাবিত বাজেট কার্যকর হলে এই স্তরের সিগারেটের প্রকৃতমূল্য হ্রাস পাবে এবং ব্যবহার বাড়বে। অপরদিকে, বাজেট প্রস্তাবনায় মূল্যস্তরভেদে সিগারেট কোম্পানিগুলোকে ৩১ শতাংশ পর্যন্ত আয় বৃদ্ধির সুযোগ করে দেয়া হয়েছে। বিড়ির শলাকা প্রতি ৬ পয়সা দাম বৃদ্ধি এর ব্যবহার কমাতে কোনো ভূমিকাই পালন করবেনা।

তামাক ব্যবহারজনিত মৃত্যু এবং অসুস্থতার বোঝা মাথায় নিয়ে তামাক কোম্পানিগুলোকে লাভবান করার এই বাজেট প্রস্তাবনা চরম হতাশাজনক এবং একইসাথে জনস্বাস্থ্যবিরোধী। প্রস্তাবিত বাজেটে নি¤œস্তরে প্রতি ১০ শলাকা সিগারেটের দাম মাত্র ২ টাকা বৃদ্ধি করে ৩৭ টাকা নির্ধারণ এবং সম্পূরক শুল্ক ৫৫ শতাংশে অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে যা খুবই হতাশাজনক।

অনুষ্ঠান আয়োজনে সার্বিক সমন্বয় করেন দর্পণ এর প্রোগ্রাম অর্গানাইজার ফারহানা আক্তার।

আর পড়তে পারেন