বুধবার, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

কুসিক নির্বাচন: কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি হেভিওয়েটরা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১৯, ২০২২
news-image

 

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু:
নির্বাচন কমিশনের প্রথম পরীক্ষা এই কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। ইসি ও সরকার উভয়ের জন্যই এই নির্বাচন অগ্নিপরীক্ষা। তেমনিভাবে এই নির্বাচনের উপর নির্ভর করবে কুমিল্লার অনেক হেভিওয়েট রাজনৈতিক নেতার ভবিষ্যত। এই নির্বাচন কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি দাঁড় করিয়েছে হেভিওয়েটদের।

কুসিকে ৬ জন মেয়র প্রার্থী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন। তারা হলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আরফানুল হক রিফাত, সদ্য বিদায়ী মেয়র মনিরুল হক সাক্কু (স্বতন্ত্র), আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য সিআইপি মাসুদ পারভেজ খান ইমরান, নিজাম উদ্দিন কায়সার (স্বতন্ত্র), ইসলামী আন্দোলনের রাশেদুল ইসলাম, নাগরিক কমিটির কামরুল আহসান বাবুল (স্বতন্ত্র)। তাদের সবার মনোনয়নই বৈধতা পেয়েছে। এর মধ্যে আলোচনায় রয়েছেন ৪ জন। আরফানুল হক রিফাত, মনিরুল হক সাক্কু, মাসুদ পারভেজ খান ইমরান ও নিজাম উদ্দিন কায়সার। বিএনপি যেহেতু দলগতভাবে এ নির্বাচন বর্জন করেছে। তাই নিজাম উদ্দিন কায়সার আজ দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করে দল থেকে পদত্যাগ করেছেন। সন্ধ্যার দিকে সাক্কু পদত্যাগ করে প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়েছেন।

রিফাত দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার পর এমপি বাহার গ্রুপের মধ্যে আনন্দ-উচ্ছাস বেশ দেখা গেছে। এমপি বাহার নিজেও রিফাতকে নিয়ে কুমিল্লা মহানগর আওয়ামীলীগ অফিসে এসে বক্তব্য দিয়েছেন। নির্বাচন আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে নির্বাচন কমিশন তাদেরকে সর্তক করেছেন। রিফাত মনোনয়ন পাওয়ায় অনেক আ’লীগ নেতাকর্মী ধারণা করেছিলেন সাক্কু নির্বাচন করবে না। কিন্তু পরিস্থিতি ভিন্ন পথে। সাক্কু নির্বাচন করবেন তা নিশ্চিত করেছেন তিনি। এছাড়া বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকায় নৌকার প্রার্থী রিফাতকে জড়িয়ে নেতিবাচক সংবাদ প্রকাশ, পরবর্তীতে প্রতিবাদ জানিয়ে মহানগর আওয়ামীলীগের সংবাদ সম্মেলন এবং পরে ভোরের কাগজের বিরুদ্ধে ১০ কোটি টাকার মানহানির মামলা দায়ের করেছেন নৌকার মনোনীত প্রার্থী আরফানুল হক রিফাত। সব মিলিয়ে নির্বাচনের মাঠ এখন ঘোলাটে।

এ নির্বাচনের পরিস্থিতি এমন দাড়িয়েছে- আ’লীগের প্রতিদ্বন্দ্বি এখন আ’লীগ, বিএনপির প্রতিদ্বন্দ্বি বিএনপি। রিফাত যেখানে একক প্রার্থী সেখানে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন আ’লীগের অপর গ্রুপের মাসুদ পারভেজ খান ইমরান। সাবেক মেয়র সাক্কুর প্রতিদ্বন্দ্বি এখন নিজাম উদ্দিন কায়সার।

মনিরুল হক সাক্কুর এটা তৃতীয় নির্বাচন। বাকি প্রার্থীদের এবারই প্রথম নির্বাচনে অংশ নেয়া হচ্ছে। সাক্কু তার প্রয়াত ভাই সাবেক নৌ পরিবহন মন্ত্রী আকবর হোসেনের কৌশলেই টানা দুইবার মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। কুমিল্লা আ’লীগের দীর্ঘদিনের অর্ন্তকোন্দল, আফজল খান-বাহার গ্রুপের মধ্যে কোন্দলের সুযোগ নিয়ে বার বার সাংসদ নির্বাচিত হতেন আকবর হোসেন। সেই কৌশল ধরে রেখেছেন মনিরুল হক সাক্কু। সেই কৌশলে সাক্কুও টানা ২ বার মেয়র হয়েছেন। যদিও কুমিল্লা মহানগরে বিএনপির ভাল ভোটব্যাংক রয়েছে। প্রথম (২০১২ সালের ৫ জানুয়ারি) ও দ্বিতীয় সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ( ২০১৭ সালের ৩০ মার্চ) আ’লীগের মনোনয়ন পেয়েছিলেন যথাক্রমে প্রবীণ রাজনীতিবিদ অধ্যক্ষ আফজল খান এডভোকেট ও তাঁর মেয়ে আনজুম সুলতানা সীমা। প্রথম নির্বাচনে সাক্কু পেয়েছিলেন ৬৫ হাজার ৫৭৭ ভোট ও আওয়ামী লীগ সমর্থিত আফজল খান পেয়েছিলেন ৩৬ হাজার ৪৭১ ভোট। দ্বিতীয় নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীকে বিএনপি প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কু পেয়েছেন ৬৮ হাজার ৯৪৮ ভোট, আর আওয়ামী লীগের প্রার্থী আনজুম সুলতানার নৌকা প্রতীকে পড়েছে ৫৭ হাজার ৮৬৩ ভোট।

গুঞ্জন রয়েছে এ পরিবারের সাথে সদর সাংসদ হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারের বিরোধ চরমে থাকায় এমপি বাহারের লোকজন সাক্কুর পক্ষে কাজ করেছে। ফলে সাক্কু টানা ২ বার মেয়র নির্বাচিত হন। কিন্তু এ বার পরিস্থিতি ভিন্ন । এবার নৌকার মনোনয়ন পেয়েছেন এমপি বাহারের বিশ্বস্থ সহকর্মী আরফানুল হক রিফাত। তাই অনেকে ভাবছেন- পূর্ব প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী মেয়র সাক্কু নির্বাচন থেকে শেষ মুহুর্তে প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নিবেন। যদিও এখনো তিনি বলছেন, যতই বাধা বিপক্তি আসুক নির্বাচন তিনি করবেন।

এখন সাবেক মেয়র সাক্কুর সামনে এখন ৩ চ্যালেঞ্জ:
প্রথমত, নির্বাচনে অংশগ্রহণ করলে এমপি বাহার গ্রুপের সাথে ওয়াদার বিচ্যুতি ঘটবে। ফলে তাদের মধ্যে সুসর্ম্পকের অবনতি ঘটবে। দ্বিতীয়ত, আর তিনি প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নিলে আ’লীগ তথা এমপি বাহারের সাথে তার যে সুসর্ম্পক তা আরো স্পষ্ট হবে। দলের কাছে তার অবস্থান আরো ক্ষীণ হবে। তৃতীয়ত, যদি নির্বাচন করে পরাজিত হলে রাজনৈতিক ভবিষ্যত হুমকির মুখে পড়বে। যেহেতু দলে তার অবস্থান অতটা পোক্ত নয়।

সেই এমপি বাহারের সামনেও এক বড় চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করছে। বিগত দুটি নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর পরাজয়ের মূল কারণ হিসেবে তিনি বলেছিলেন- অযোগ্য প্রার্থীকে মনোনয়ন দেয়াতে নৌকার ভরাডুবি হয়েছে। এবার কিন্তু এমপি বাহারের লোককেই মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। মহানগর আ’লীগ ও তার অঙ্গসংগঠনের যা কমিটি আছে, সবগুলোই এমপি বাহারের নেতাকর্মীদের দখলে। তাই এমপি বাহারের সামনে বিজয়ের বিকল্প পথ নেই। এমপি বাহারের পচ্ছন্দনীয় প্রার্থী পরাজিত হলে এর প্রভাব আগামী সংসদ নির্বাচনেও পড়তে পারে।

নির্বাচন বিষয়ে জানতে আরফানুল হক রিফাতের মুঠোফোনে কল দিলে মুঠোফোন সংযোগে তাকে পাওয়া যায়নি।

মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ সহিদ আজকের কুমিল্লাকে জানান, নৌকার প্রার্থীর বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। অপপ্রচার করে নৌকার বিজয় ঠেকানো যাবে না। নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত।

স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক মেয়র মনিরুল হক সাক্কু জানান, কে নির্বাচন করলো , না করলো তাতে কিছু যায় আসে না। আমি নির্বাচন করবো।

স্বতন্ত্র প্রার্থী নিজাম উদ্দিন কায়সার জানান, আমার দল বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছে না। দলের সিদ্ধান্তের প্রতি আমার অগাধ শ্রদ্ধা রয়েছে। জনগণের চাপে আমি নির্বাচনে আসছি। আর মনিরুল হক সাক্কু আ’লীগেরই প্রার্থী। বিএনপির বিশাল ভোটব্যাংক আমার পক্ষেই থাকবে ইনশাল্লাহ।

স্বতন্ত্র প্রার্থী মাসুদ পারভেজ খান ইমরান জানান, জনগণের স্বার্থে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছি। সিটিতে যে পরিমান হরিলুট চলছে। দুর্নীতি ও হরিলুটের হাত থেকে নগরবাসিকে রক্ষা করার জন্য নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছি।

আর পড়তে পারেন