রবিবার, ৫ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

কোটা বহালের দাবিতে শাহবাগে অবরোধ, ভোগান্তিতে রাজধানীবাসী

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ৪, ২০১৮
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

শাহবাগে সরকারি চাকরিতে কোটা পুনর্বহালের দাবিতে সড়কে অবস্থান নিয়েছেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড।

৪ অক্টোবর, বৃহস্পতিবারও সকাল থেকে শাহবাগের চৌরাস্তার মোড়ে স্বল্পসংখ্যক তরুণ বসে পড়েছেন এবং তারা ব্যারিকেড দিয়ে বিক্ষোভ করছেন।

টিএসসি থেকে বিএসএমএমইউ, মৎস্য ভবন থেকে শাহবাগ হয়ে কাঁটাবনগামী রাস্তা বন্ধ হয়ে গেছে। এ সব রাস্তায় কোনো ধরনের ভারী যানবাহন চলাচল করছে না।

এর আগে ৩ অক্টোবর বুধবার মধ্যরাত থেকে বিক্ষোভের অংশ হিসেবে শাহবাগের রাস্তায় বসে পড়েন এবং রাস্তায় আগুন জ্বালিয়ে প্রতিবাদ শুরু করেন তারা।

শাহবাগের চার রাস্তার মোড়ে অবস্থান নেওয়ায় রাতে ওই সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ওই রাস্তায় চলাচলকারী যানবাহনগুলো রুট পরিবর্তন করে চলাচল করে। এর প্রভাবে মধ্যরাতেও অনেক রাস্তায় যানজট দেখা গেছে। ভোগান্তিতে পড়েন অনেক মানুষ।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার ভােরের দিকে শাহবাগে অবস্থান নেওয়া মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের নেতাকর্মীদের সড়ক ছেড়ে দিতে অনুরোধ জানিয়েছে পুলিশ। কিন্তু তারা পুলিশের কথায় রাজি হয়নি। পরে কিছু সময় রাস্তা ছাড়লেও সকাল ৯টা থেকে ফের অবস্থান নিয়েছেন।
কোটা পুনর্বহালের দাবিতে শাহবাগে অবস্থান।
কোটা পুনর্বহালের দাবিতে শাহবাগে অবস্থান। ছবি: সংগৃহীত

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) রমনা বিভাগের এডিসি এইচ এম আজিমুল হক জানান, প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিলের প্রতিবাদে করা আন্দোলনকারীদের সঙ্গে পুলিশ ভােরের দিকে দেখা করেছে। তাদের সড়ক ছেড়ে দেওয়ার অনুরোধ করা হয়েছিল। তাদের সাথে কথা হয়েছে। তারা কথা রেখেছিল। কিন্তু ৯টা থেকে আবারও অবস্থান নিয়েছে বলে জানা গেছে।

সর্বশেষ খবর হলো আন্দোলনকারীরা জনগণকে ভোগান্তিতে ফেলতে চান না বলে জানিয়েছেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মেহেদী হাসান। তিনি আরও জানান, তারা দ্রুত শাহবাগের মূল চত্বর থেকে সরে যাবেন এবং এ ব্যাপারে আজ আলাপ-আলোচনা হবে। তারপর তারা সিদ্ধান্ত নেবেন। তবে তারা সরে গিয়ে জাতীয় জাদুঘরের আশপাশে থাকবেন।
কোটা পুনর্বহালের দাবিতে শাহবাগে অবস্থান।
কোটা পুনর্বহালের দাবিতে শাহবাগে অবস্থান। ছবি: সংগৃহীত

গতকাল বুধবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে বেতন কাঠামোর নবম থেকে ১৩তম গ্রেড (আগের প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির চাকরি) পর্যন্ত সরকারি চাকরিতে নিয়োগের ক্ষেত্রে সব ধরনের কোটা বাতিলের প্রস্তাব অনুমোদন দেয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে রাতে রাস্তায় নেমেছেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা।

গতকাল থেকে আন্দোলনকারীরা সরকারি চাকরিতে ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটা বহালসহ ছয় দফা দাবিতে শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নেয়। তাদের ছয় দফা দাবিগুলো হলো- সামাজিক মাধ্যমে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও মুক্তিযোদ্ধাদের বিরুদ্ধে কটূক্তিকারীদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় এনে বিচার করতে হবে, মন্ত্রিপরিষদ সচিবের নেতৃত্বে গঠিত কোটা পর্যালোচনা কমিটির প্রতিবেদন অবিলম্বে বাতিল করতে হবে, ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটার পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বিসিএসসহ সব চাকরির পরীক্ষায় প্রিলিমিনারি থেকে মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাস্তবায়ন করতে হবে।

মুক্তিযোদ্ধা পরিবার সুরক্ষা আইন প্রণয়ন ও তাদের সাংবিধানিক স্বীকৃতি দিতে হবে, স্বাধীনতাবিরোধী, রাজাকার ও বংশধরদের চিহ্নিত করে সরকারি সব চাকরি থেকে বহিষ্কার, নাগরিকত্ব বাতিল ও সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে রাষ্ট্রের অনুকূলে ফেরত নিতে হবে এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবনে হামলাকারীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।

আর পড়তে পারেন