সোমবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

খাদি কাপড়ের অমূল্য দলিল

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ১৮, ২০২২
news-image

 

আহসানুল কবীর:
কুমিল্লার ঐতিহ্যের অন্যতম অনুসঙ্গ খাদি বা খদ্দর।১৯২০ সনে মহাত্মা গান্ধীর বিলেতী পণ্য বর্জনের আহবানের মধ্য দিয়ে এটি তুমুল জনপ্রিয়তা অর্জন করে।এর জনপ্রিয়তা ছড়িয়ে পড়ে গোটা ভারতবর্ষে।এমনকি দেশের বাইরেও রফতানী হতো। ১৯৪৭ এ দেশ ভাগের পর এক শ্রেণীর লোক খাদিকে কংগ্রেসীদের পোষাক বলে অপপ্রচার চালায়।অপরদিকে দেশভাগের পর স্বাভাবিক কারনেই অভয় আশ্রমের কর্মকান্ডেও ধীরগতি পরিলক্ষিত হয়।এসময় খাদিকে বাঁচাতে এগিয়ে আসলেন মহৎপ্রাণ ড.আখতার হামিদ খান।খাদি শিল্পকে বাঁচাতে তিনি গঠন করলেন”দি খাদি এন্ড কটেজ ইন্ডাস্ট্রীজ কো-অপারেটিভ এসোসিয়েশন লিমিটেড”।

১৯৫৬ সনে গঠিত এ প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের সংখ্যা ছিলো ৫০ হাজার । প্রতিটি শেয়ারের মূল্য ছিল ১০ টাকা।অর্থাৎ অনুমোদিত মূলধন পাঁচ লক্ষ টাকা।আজকের দিনে মনে হতে পারে এ আর এমন কি! ১৯৫৬ সনে এক ভরি স্বর্ণের দাম ছিল ৫০ থেকে ৫৫ টাকা।তার মানে এই পরিমান টাকায় প্রায় এক হাজার ভরি স্বর্ণ কেনা সম্ভব ছিল।এবার ভাবুন কত সমৃদ্ধ ছিলো এই প্রতিষ্ঠানটি।

পরিচালনা পর্ষদ গঠিত হয়েছিল শহরের ৮ জন বিশিষ্ট নাগরিকদের নিয়ে।তাঁরা হলেন ১.ড.আখতার হামিদ খান-অধ্যক্ষ ভিক্টোরিয়া কলেজ ২.আশরাফ উদ্দিন আহমদ চৌধুরী -এম এল এ ৩.ধীরেন্দ্র নাথ দত্ত – এমএলএ ৪. কামিনী কুমার দত্ত -এডভোকেট ৫.হরেন্দ্র চন্দ্র বর্ধন -এডভোকেট ৬.বিধুভূষণ দাস গুপ্ত- এডভোকেট ৭.ক্ষিতিভূষন দত্ত -ব্যাংকার ৮.প্রবোধ চন্দ্র দাস গুপ্ত -সমাজ সেবী।

প্রতিষ্ঠানের তথ্য-উপাত্ত ঘেটে দেখা যায় ১৯৫৬ থেকে ৬১ পর্যন্ত এটি প্রতিবছর লোকসান দিয়েছে।এসময় মোট লোকসানের পরিমাণ ৭৬ হাজার ৩৭০ টাকা।কিন্তু এতেও আখতার হামিদ খান হাল ছেড়ে দেননি ফলে ১৯৬২ সন থেকে এটি লাভের মুখ দেখতে শুরু করে।১৯৬২ থেকে ১৯৭০ পর্যন্ত সময়ে প্রতিষ্ঠানটি মুনাফা করে ৪২ হাজার ৭৭৮ টাকা।তারপরে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়ে গেলো।স্বাধীনদেশে প্রতিষ্ঠানটি সগৌরবে মাথা তুলে দাঁড়াবে এটিই ছিলো স্বাভাবিক।কিন্তু যোগ্য নেতৃত্বের অভাব এবং অন্যান্য কারনে কুমিল্লার গৌরব এ প্রতিষ্ঠানটি ক্রমান্বয়ে ধ্বংশের পথে ধাবিত হয়েছে।এখানে প্রতিষ্ঠানের ১৯৭০-৭১ সনে করা নিরীক্ষা প্রতিবেদনের ব্যালেন্স শীট পড়লে পাঠক বুঝতে পারবেন কত সমৃদ্ধ এবং সম্পদশালী ছিলো প্রতিষ্ঠানটি।

-আহসানুল কবীর
লেখক ও গবেষক

আর পড়তে পারেন