মঙ্গলবার, ২৮শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মতলব উত্তর আওয়ামীলীগ-যুবলীগ-ছাত্রলীগের আনন্দ মিছিল

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ৮, ২০১৮
news-image

মো. দ্বীন ইসলাম, মতলব উত্তর :
বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দূর্নীতি মামলার রায়কে স্বাগত জানিয়ে মতলব উত্তর উপজেলায় আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলো আনন্দ মিছিল বের করে।

বৃহস্পতিবার রায়ের পরপরই থানা সদর ও বিভিন্ন এলাকা থেকে মিছিল বের করা হয়। উপজেলার ছেঙ্গারচর বাজার, লুধুয়া প্রধান সড়ক, এনায়েতনগর সাহেব বাজার, মোহনপুর, ফরাজীকান্দি, সুজাতপুর বাজার, হরিণা, নিশ্চিন্তপুর, আনোয়ারপুর, বাগানবাড়ি, সাদুল্লাপুর, কালিপুর, ঘনিয়ারপাড়সহ বিভিন্ন এলাকায় সমাবেশ ও আনন্দ মিছিল করে।

মতলব উত্তর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মনজুর আহমদের নেতৃত্বে ফরাযীকান্দি ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স প্রাঙ্গণে সমাবেশ ও আনন্দ মিছিল বের হয়। সমাবেশে অংশগ্রহন করেন, ফরাযীকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন দানেশ, ইউনিয়ন কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সাধারন সম্পাদক ফখরুল ইসলাম সরকার, সাবেক উপজেলা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা আহ্বায়ক আঃ রব প্রধান, ইউপি সদস্য মাহবুব আলম মিষ্টার, ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারন আতাউর রহমান সবুজ, ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক নাছিম রানাসহ নেতৃবৃন্দ।
উপজেলার সুজাতপুর বাজার ও নিশ্চিন্তপুরসহ কয়েকটি স্থানে উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আরিফুল ইসলামের নেতৃত্বে আনন্দ মিছিল ও মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা বের হয়। উপস্থিত ছিলেন, দূর্গাপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আক্তারুজ্জামান আরমান, সাধারন সম্পাদক ইসমাইল হোসেন ডালিম, ফতেপুর পূর্ব ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারন সম্পাদক ইলিয়াছ প্রধান, আওয়ামীলীগ নেতা মনির হোসেন, দূর্গাপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি এসএম সেলিম রেজা, সাধারন সম্পাদক ফখরুল ইসলাম রনি, ইসলামাবাদ ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক তামজিদ পাটোয়ারী রিয়াদ প্রমূখ।

এদিকে উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক ও চাঁদপুর জেলা পরিষদের সদস্য মিনহাজ উদ্দিন খানের নেতৃত্বে বিশাল আনন্দ মিছিল ও মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা বের হয়। মিছিলে অংশ গ্রহন করেন, ছাত্রলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক তামজিদ সরকার রিয়াদ, উপজেলা ছাত্রলীগের সদস্য আমিনুল ইসলাম, যুবলীগ নেতা খোরশেদ আলম, ছেঙ্গারচর পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি তোফায়েল আহমেদ সরকার, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মলীগের সাধারন সম্পাদক খোরশেদ আলম অপু, ফতেপুর পূর্ব ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি আলমগীর দেওয়ান, ফতেপুর পশ্চিম ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক মেহেদী হাসান কাজলসহ ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ।
বিকেলে ছেঙ্গারচর পৌর আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে পৌর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আতাউর রহমান ঢালীর সভাপতিত্বে ও উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক তামজিদ সরকার রিয়াদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত আওয়ামীলীগের আনন্দ মিছিল ও সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মনজুর আহমদ, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি দেওয়ান জহির, সাধারন সম্পাদক কাজী শরীফ প্রমূখ। সমাবেশে দলীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দূর্নীতি মামলার রায়কে কেন্দ্র করে অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে ও আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি সুষ্ঠু ও স্বাভাবিক রাখতে মতলব উত্তর থানার পুলিশ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলো সার্বক্ষণিক নজরদারি ও টহলরত ছিল। এ রায়কে কেন্দ্র করে উপজেলার কোথায় কোন অপ্রীতিকর কোন ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। তবে বিএনপির চেয়ারপার্সনের রায়কে কেন্দ্র করে ঘোষিত কর্মসূচী পালনে বিএনপির কোন নেতাকর্মীকে মাঠে দেখা যায়নি।

মিছিল শেষে উপজেলার ছেঙ্গারচর পৌর আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠন কার্যালয় সম্মুখে সমাবেশ করে। সমাবেশে বক্তারা বলেন, আইনের উর্ধ্বে কেউ নয়। দূর্নীতে করে যে কেউ পাড় পাওয়া যায় না, তার প্রমাণ দূর্নীতিবাজ খালেদা জিয়া। আদালতে তিনি দূর্নীতিবাজ প্রমাণিত হয়েছে। আমরা আদালতের এ রায়কে স্বাগত জানাই। বিএনপি-জামায়াত নেতাকর্মীদের হুঁশিয়ার করে বক্তারা বলেন, এ রায়কে কেন্দ্র করে মতলবের মাটিতে কোন অরাজকতা ও নৈরাজ্যের পায়তারা করলে তার সমচিৎ জবাব দেওয়া হবে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া (বীর বিক্রম) এমপির পবিত্র মতলবের মাটিতে কোন নাশকতাকারীর ঠাঁই নেই। কেউ নৈরাজ্য, বিশৃঙ্খলা ও মতলবকে অশান্ত করতে চাইলে কোন ছাড় দেওয়া হবে না। নাশকতাকারীদের কঠোর হাতে প্রতিহত করা হবে।

এদিকে খালেদা জিয়ার এ রায়কে কেন্দ্র করে চাঁদপুর জেলা সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার (মতলব সার্কেল) রাজন চন্দ্র দাস ও মতলব উত্তর থানার ওসি মো. আনোয়ারুল হক কামালের নেতৃত্বে বিভিন্ন স্থানগুলো নজরদারি ও পুলিশ টহল ছিল। ওসি মো. আনোয়ারুল হক বলেন, বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দূর্নীতি মামলার রায়কে কেন্দ্র করে যাতে কোন অপ্রীতিকর পরিস্থিতি ঠেকাতে আমরা সর্বোচ্চ সতর্কতায় ছিলাম। উপজেলার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলো নজরদারি ও পুলিশ টহল ছিল। জনগনের জান-মাল নিরাপত্তার স্বার্থে পুলিশের এ টহল ও নজরদারি অব্যাহত থাকবে।

আর পড়তে পারেন