মঙ্গলবার, ২৮শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

গৃহহীন মুক্ত মডেল হচ্ছে হাজীগঞ্জ ॥ পরিবারের কাছে ১৫২ টি ঘর হস্তান্তর

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ২৮, ২০১৮
news-image

সুজন দাস, হাজীগঞ্জঃ
সবার জন্য বাসস্থান নিশ্চিত করার লক্ষ্যে স্থানীয় প্রশাসনের উদ্যোগে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলায় ১৫২ টি গৃহহীন পরিবারকে বসবাসের জন্য ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে। গৃহহীন আরো ২০০ টি পরিবারকে দুই মাসের মধ্যে ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হবে। দুই মাস পর হাজীগঞ্জ উপজেলাকে গৃহহীন মুক্ত করার উদ্যোগ নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন প্রশাসনের কর্মকর্তারা।

জেলা প্রশাসন ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১৭ সালের জেলা প্রশাসকদের (ডিসি) সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁদেরকে (ডিসি) নতুন আইডিয়া নিয়ে কাজ করার নির্দেশনা দেন। পরে জেলা প্রশাসক আব্দুস সবুর মন্ডল জেলার উন্নয়ন সমন্বয় সভায় জেলার সকল ইউএনওকে নতুন কাজের আইডিয়া দেন। বেসরকারি অর্থায়নে ও স্থানীয় ধনী ব্যাক্তিদের সহযোগিতায় ঘর নির্মাণের কাজ শুরু হয়। প্রথম পর্যায়ে প্রতি ইউনিয়নে ১০টি করে ১২টি ইউনিয়নে ১২০টি ঘর নির্মাণে সিদ্ধান্ত হয়। প্রথম পর্যায়ের ঘরগুলি ইতিমধ্যে গৃহহীনদের বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে।

ইউএনওর কার্যালয়ের অফিস সহকারি নাছির উদ্দিন জানান, এ পর্যন্ত ১৫২টি পরিবারকে ঘর বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। আরো ২০০ ঘর নিমার্ণের সিদ্ধান্ত হয়েছে। উপজেলা প্রশাসন স্থানীয় উদ্যোগে ও বেসরকারি অর্থায়নে গৃহহীনদের জন্য এ প্রকল্প হাতে নিয়েছে। এটি একটি ব্যতিক্রমধর্মী উদ্যোগ। সারা দেশের মধ্যে একমাত্র হাজীগঞ্জ উপজেলায় সর্বপ্রথম এ কাজ শুরু হয়েছে।

দ্বিতীয় পর্যায়ের ২০০ ঘর নির্মাণের জন্য ১৭ জানুয়ারী জেলা প্রশাসক আব্দুস সবুর মন্ডল হাজীগঞ্জ উপজেলার রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও বৃত্তবানদের নিয়ে সার্কিট হাউজে বৈঠক করেন। ওই বৈঠকে ২০০টি ঘরের মধ্যে রাজনৈতিক নেতারা, ব্যবসায়ী ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান প্রধানগণ ১০০ ঘর নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। বৈঠকে জেলা প্রশাসক আব্দুস সবুর মন্ডল বলেন, হাজীগঞ্জ উপজেলার প্রতি প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ নজর রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর একান্ত ইচ্ছা দেশে কেউ গৃহহীন থাকবে না। প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছাকে গুরুত্ব দিয়ে হাজীগঞ্জকে গৃহহীন মুক্ত করার কাজ শুরু হয়েছে। সারাদেশের মধ্যে হাজীগঞ্জ উপজেলাকে এ কাজের মডেল হিসাবে ধরা হবে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সারা উপজেলা থেকে ইউএনওর কার্যালয়ে প্রায় ৭০০ গৃহহীন পরিবারের তালিকা আসে। প্রতিটি ইউনিয়ন থেকে ৫০/৬০টি ঘরের তালিকা দেওয়া হয়। বড়কুল পূর্ব ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কবির হোসেন মিয়াজী বলেন, তাঁর ইউনিয়ন থেকে ৬০ জনের তালিকা দেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে ছয়জনকে ঘর বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। আরো কয়েকটি নির্মাণ কাজ হচ্ছে।

সরজমিনে গিয়ে কথা হয় ঘর পাওয়া কয়েকটি পরিবারের সাথে। হাটিলা পূর্ব ইউনিয়নের টঙ্গির পাড় গ্রামের বাসিন্দা পারুল বেগম বলেন, ঘর ছাড়া এতদিন দুইটি ছেলে নিয়ে ঝুপটিতে ছিলাম। ঘর পেয়েছি, সাথে সৌর বিদ্যুৎ দেওয়া হয়েছে। এখন ঘরের মধ্যে ভালোভাবে থাকতে পারি। বড়কুল পূর্ব ইউনিয়নের রায়চোঁ গ্রামের দেলোয়ার মিয়া বলেন, ঘর ছাড়া ছেলে মেয়ে নিয়ে খুব কষ্টে ছিলাম। এখন ঘর পেয়েছি, খাই আর না খাই থাকার ব্যবস্থা হয়েছে।

ইউএনও বৈশাখী বড়–য়া বলেন, হাজীগঞ্জ উপজেলাকে গৃহহীন মুক্ত করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। স্থানীয় এমপি মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীর-উত্তম মহোদয়, উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউপি চেয়ারম্যান, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও ধণাঢ্য ব্যাক্তিদের প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় ও অর্থায়নে এ কার্যক্রম চলছে। ঘর দেওয়ার পাশাপাশি এ সব পরিবারকে বিভিন্ন প্রকল্পের আওতায় এনে স্বাবলম্বী করা হবে। তিনি বলেন যাদের ভাঙ্গাচোরা ও জরাজীর্ণ ঘর আছে তাঁদেরকে এ কর্মসূচির আওতায় আনা হয়নি। একবারে যাদের মাথা গোজার ঠাঁই নেই তাঁদেরকে এই কর্মসূচির আওতায় আনা হয়েছে।

আর পড়তে পারেন