বুধবার, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

চৌদ্দগ্রামে গবাদিপশুসহ বাড়িঘর লুটপাট ও হয়রানির অভিযোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১৬, ২০২২
news-image

স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুমিল্লা চৌদ্দগ্রাম উপজেলার কনকাপৈত ইউনিয়ন তারাশাইল গ্রামে জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে ঝগড়ায় একজন নিহত হওয়ার ঘটনায় গবাদিপশুসহ বাড়িঘর লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে।

শনিবার নগরীর চকবাজারে একটি রেস্তোরায় সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন তারাশাইল গ্রামের ভুক্তভোগি সাথী আক্তার।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি অভিযোগ করেন, জমি ও খড়ের পারা নিয়ে বিরোধের জের ধরে গত ৮ মে দুপুরে আমার আত্মীয় মোঃ হানিফ মজুমদারের পরিবারের সাথে আমার পিতা মোক্তল হোসেন ও ভাই মোঃ সজিব এর ভাই ঝগড়াঝাটি শুরু হয়। এতে উভয় পক্ষের সংঘর্ষে কয়েকজন আহত হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে সাথী আক্তার আরো বলেন, ইস্রাফিল ও আমরা একে অপরের আত্মীয় এবং একই বাড়িতে বসবাস। সামান্য জমি নিয়ে যেই বিরোধ তা নিয়ে ঘটনার পূর্বেও আমরা চৌদ্দগ্রাম থানায় দুইবার সাধারণ ডায়রি করেছি এবং আমাদের চেয়ারম্যান জাফর ইকবাল এর নিকট গ্রাম আদালতে সালিশ দেওয়া হয়েছে। নিষ্পত্তিকল্পে তিনি আমাদেরকে ২৩ মে বিচারের দিন তারিখ নির্ধারন করেন কিন্তু তার পূর্বেই গত ৮মে ইস্রাফিল ও তার পরিবার এবং বহিরাগত লোকজনদেরকে নিয়ে অতর্কিত হামলা করে। এসময় ইস্রাফিল খুন হয়। সে কিভাবে খুন হয়েছে তা আমরা জানি না, তবে আমরা ও স্থানীয় দেখেছে তার নিকট ধারালো অস্ত্র ছিল। তার অস্ত্র দিয়ে সে খুন হয়েছে কিনা তাও খতিয়ে দেখার অনুরোধ করছি প্রশাসনের নিকট। ঘটনার পর পর আমাদের বাড়ির সকল মালামাল লুট করে নিয়ে যায় এবং আমাদের গোয়ালে থাকা আটটি গরু ও ঈদে বেড়াতে আসা আমার বোন ও আত্মীয়স্বজনদের স্বর্ণ অলংকার লুট করে নিয়ে যায়। বর্তমানে আমরা নিরাপত্তা হিনতায় ভোগছি আমাদেরকে মেরে ফেলার হুমকি ধমকি দিচ্ছে। আমাদেরকে বিভিন্ন প্রকার হয়রানি করছে।

এমতাবস্থায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও কুমিল্লা জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের কাছে বিনীত অনুরোধ করছি হত্যার সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের বিচার হোক আমরাও চাই।

এ বিষয়ে নিহত ইস্রাফিলের ফুফু আয়শা বেগম বলেন, এ জমিটি নিয়ে প্রায় বছর খানেক হয়েছে বিরোধ চলছে , চলতি মাসের ২২ মে আমাদের চেয়ারম্যান জাফর ইকবাল বিষয়টি নিয়ে নিষ্পত্তির কথা বলেন কিন্তু তারই পূর্বে মোক্তল হোসেন ও তার ছেলেসহ অন্যান্যরা মিলে জোর পূর্বক জমি দখল করে খড়ের পারা দিতে গেলে তৎক্ষনাৎ আমরা চেয়ারম্যান জাফর ইকবালকে জানালে তিনি আমাদেরকে বাঁধা দেওয়ার নির্দেশ দেন এবং পরবর্তীতে আমাদের আত্মীয় স্বজনদের মাঝে বিরোধ তৈরি হয়, এক পর্যায়ে ইস্রাফিল খুন হয়।

চৌদ্দগ্রাম কনকাপৈত থানা তদন্ত অফিসে দায়িত্বরত মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সাব ইনসফেক্টর মোঃ রেজাউল করিম বলেন,  আমরা জানতাম বিষয়টি নিয়ে কনকাপৈত ইউনিয়ন চেয়ারম্যান জাফর ইকবাল সাহেব উভয় পক্ষের বিরোধ নিষ্পত্তিকল্পে দিন তারিখ নির্ধারণ করে দিয়েছে কিন্তু তারই পূর্বে এমন ঘটনা ঘটেছে।পুলিশ তৎক্ষনাৎ ঘটনাস্থলে যায় এবং সেখান থেকে রামদাসহ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করে।পলাতক আসামির বিষয়েও পুলিশ তৎপর রয়েছে। লুটপাট ও হয়রানির কথা উঠেছে তা অভিযোগ করলে অবশ্যই আমলে নিবেন পুলিশ।

আর পড়তে পারেন