মঙ্গলবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

তিতাসে বিজয়ী ও পরাজিত মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে আহত ১০

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ২১, ২০২১
news-image

 

মোঃ জুয়েল রানা, তিতাসঃ

কুমিল্লা তিতাস উপজেলায় ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে বিজয়ী ও পরাজিত মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে দুই পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।

শনিবার সন্ধ্যা আনুমানিক সাড়ে ৭টায় উপজেলার মজিদপুর ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের দড়িগাঁও এলাকায় বর্তমান মেম্বার আবুল ও নবনির্বাচিত মেম্বার ওহিদ মিয়ার সমর্থকদের মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। আহতদের ১০ জনকে তিতাস উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও গৌরিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করা হয়েছে।

আহতরা হলেন, সোহেল মিয়া (৩২), ফয়েজ হোসেন (১৭), শাহজালাল (২০), জাহাঙ্গীর মিয়া (৫০), মোসলেম উদ্দিন (৬০), আলিমন বেগম (৫০), ইব্রাহিম (৪০), শামীম (১৮), আয়শা আক্তার (২২) ও রুপিয়া খাতুন (৪৫)।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, বর্তমান মেম্বার আবুল মিয়ার সমর্থক হক মিয়াকে (৬০) বজয়ী মেম্বার ওহিদ মিয়ার লোকজন হুমকি ধামকি দেওয়ার কারনে হক মিয়া মসজিদে নামাজ পড়তে যায় না। শনিবার রাতে এশার নামাজ পড়ার জন্য ওই গ্রামের হাফেজ কাশেম হক মিয়াকে ডেকে নিলে নামাজ শেষে মোসলেম উদ্দিন ও হক মিয়ার সাথে কথা কাটাকাটি হয়। এর জের ধরে মসজিদ থেকে বের হয়ে উভয় পক্ষ সংঘর্ষে জরিয়ে পরে। এসময় হক মিয়ার বসতঘর, মহসিনের বসতঘর, আল আমিনের ইলেকট্রনিক দোকান, মোসলেন উদ্দিনের বিল্ডিংয়ে ডুকে আসবাবপত্র ভাঙচুর ও লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে।

এ বিষয়ে বর্তমান মেম্বার আবুল হোসেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ওহিদ মিয়া নির্বাচনে পাশ করেই আমার সমর্থক হক মিয়াসহ কয়েক জনকে হুমকি ধামকি দিয়ে আসছে। তারই জের ধরে ওহিদ মিয়ার লোকজন শনিবার রাতে হক মিয়ার ওপর হামলা করে তার বসতঘর ভাঙচুর করে এবং আল আমিনের ইলেকট্রনিক দোকান ভাঙচুর করে মালামাল লুট করে নিয়ে গেছে এবং আমার বড় ভাইয়ের খরের স্তুপে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে।

এদিকে হাফেজ আবুল কাশেম বলেন, আমি হক মিয়াকে ডেকে আনি মসজিদে নামাজ পড়ার জন্য।নামাজ শেষে হক মিয়া ও মোসলেম উদ্দিনের সাথে তর্কাতর্কি হলে আমি দুজনকেই মসজিদ থেকে বের করে দেই পড়ে কারা মারামারি করেছে আমি বলতে পারবো না।

নব নির্বাচিত মেম্বার ওহিদ মিয়া বলেন, আমি ঝগরার কিছুই জানিনা। ওহিদ মিয়ার সমর্থক সালাউদ্দিনের স্ত্রী হাফসা ইসলাম বলেন আবুল মেম্বারের লোকজন আমাদের ঘরে এসে আমার শশুরকে মারধর করে এবং আমার গলার চেইন ছিনিয়ে নিয়ে গেছে।

তিতাস থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুধীন চন্দ্র দাস বলেন, মারামারির খবর পেয়ে রাতেই ঘটনা স্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি এবং বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত আছে। তবে এখন পর্যন্ত কোনো পক্ষই লিখিত অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আর পড়তে পারেন