মঙ্গলবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

দলের শৃঙ্খলা ও সাংগঠনিক ইস্যু: কালো তালিকায় ২৬ এমপি, ৩ মন্ত্রী ও ১ মেয়র

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ১৮, ২০২১
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট:

আগামী ১৯ নভেম্বর আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠক। এই বৈঠকটি সাংগঠনিক বিভিন্ন কার্যক্রমের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো জানিয়েছে। আর এই বৈঠকে দলের শৃঙ্খলা এবং বিভিন্ন সাংগঠনিক ইস্যু নিয়ে আলোচনা হবে বলেও আওয়ামী লীগের নেতারা জানিয়েছেন। আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে যে, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে খুনোখুনি, মারামারি এবং সহিংসতার ঘটনার জন্য আওয়ামী লীগের এমপি এবং প্রভাবশালী নেতারাই দায়ী। আবার এই সমস্ত এলাকায় আওয়ামী লীগের এমপি এবং প্রভাবশালী নেতাদের মদদেই বিদ্রোহী প্রার্থী দাঁড় করানো হয়েছে। এরকম বিদ্রোহী প্রার্থী দাঁড় করানোর ক্ষেত্রে যারা মদদ দিয়েছেন এরকম ২৬ জন এমপি এবং ৩ মন্ত্রী কে চিহ্নিত করা হয়েছে। পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুকে অবমাননাকর উক্তি এবং দলের মধ্যে বিভক্তি সৃষ্টির অপরাধে গাজীপুর সিটি মেয়র জাহাঙ্গীর এর বিরুদ্ধে যে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে, সেই নোটিশের জবাব নিয়েও আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠকে আলোচনা হবে বলে জানা গেছে। ইতিমধ্যে গাজীপুরের মেয়র তাকে যে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছিল তার জবাব দিয়েছেন। কিন্তু আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারকরা বলছে যে তার জবাব সন্তোষজনক হয়নি।

সারাদেশে দুই ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মারা গেছে ৪০ জন। বিদ্রোহী প্রার্থীরা দ্বিতীয় দফায় আওয়ামী লীগকে কোণঠাসা করেছে। অনেক জায়গায় আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের পক্ষ থেকে দুই দফায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থীরা কিভাবে হল এবং কারা বিদ্রোহী প্রার্থীদেরকে মদদ দিল এই ব্যাপারে প্রতিবেদন তৈরি করতে বলা হয়েছে। আগামী ১৯ নভেম্বরের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠকে এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন জমা দেয়া হবে বলে জানা গেছে। আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সূত্রগুলো বলছে যে, দলের সাংগঠনিক সম্পাদকরা দেশের বিভিন্ন স্থানে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের ফলাফল বিশ্লেষণ করে প্রতিবেদন তৈরি করেছেন। এটি আওয়ামী লীগ সভাপতির কাছে দেয়া হবে। সাংগঠনিক সম্পাদকরা বিভিন্ন জায়গায় বিদ্রোহী প্রার্থীদের কারণ হিসেবে এমপিদের সমর্থন এবং মদদের কথা উল্লেখ করেছেন। এরকম মদদ দেওয়া ২৬ জন এমপিকে চিহ্নিত করেছেন।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদকরা রিপোর্টে এটিও বলেছেন যে, যেখানে এমপির মনোনীত প্রার্থী মনোনয়ন পাননি সেখানে এমপিরা বিদ্রোহী প্রার্থী দিয়েছেন। আবার কোন কোন জায়গায় দলের ত্যাগী, পরীক্ষিত এবং জনপ্রিয় ব্যক্তিকে মনোনয়ন না দিয়ে এমপিদের পছন্দের হাইব্রিড নেতাকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। এর ফলে দলের ত্যাগী, পরীক্ষিতরা বঞ্চিত হয়েছেন এবং তারা বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে দাঁড়িয়েছেন। আর এই বিদ্রোহী প্রার্থীরা এমপিদের মনোনীত প্রার্থীকে বিপুল ভোটে পরাজিত করেছেন। বিদ্রোহী প্রার্থীদের পক্ষে আওয়ামী লীগের আপামর কর্মীরা কাজ করেছেন এবং একটি গণজোয়ার তৈরি হয়েছে। এরকম গণজোয়ারের বিপরীতে এমপি এবং মন্ত্রীরা সহিংসতার পথ বেছে নিয়েছেন। আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সূত্রগুলো বলছে যে, সাংগঠনিক সম্পাদকরা সারাদেশে কোন কোন এমপি এ ধরনের তৎপরতার সাথে জড়িত তাদের একটি তালিকাও তৈরি করেছে। এই তালিকাটি আওয়ামী লীগ সভাপতির কাছে দেয়া হবে বলে জানা গেছে। এ তালিকায় ২৬ জন এমপি এবং ৩ জন মন্ত্রীর নাম রয়েছে।

আর পড়তে পারেন