শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

দাউদকান্দিতে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের উপর হামলা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১৬, ২০১৮
news-image

 

জাকির হোসেন হাজারী,দাউদকান্দি:
আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মুক্তিযোদ্ধার বাড়ী ও পুকুর জোরপূর্বক দখলের চেষ্টা চালালে বাধা দেয়ায় তাঁর ছেলে ও প্রতিবেশিকে পিটিয়ে জখম করেছে সন্ত্রাসীরা ।

গত শনিবার কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলা সদর উত্তর ইউনিয়নের বাহেরচর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল জলিল খানঁ এর বাড়ীতে এ ঘটনা ঘটে। মুক্তিযোদ্ধার ছেলে ভাজরা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আবুল খান ও প্রতিবেশী মাসুম আহত হয়ে দাউদকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার আব্দুল জলিল খান এ ব্যাপারে দাউদকান্দি মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানাযায়, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল জলিল খান প্রায় ২৫ বছর পূর্বে ভাজরা মৌজার ১১৫৬ খতিয়ানভূক্ত ১০শতাংশ জমি(পুকুর) ক্রয়সূত্রে মালিক হয়ে ভোগদখল করছেন। ওই জমি হতে গত বছরের জুন মাসে সে তার দুই ছেলেকে ৮শতাংশ দান করেন। বাড়ী করার জন্য ছেলেরা বালু ভরাটের কাজ শুরু করলে একই গ্রামের মৃত আব্দুল বাতেন মীরের ছেলে আলম মীর , ভাই ইমন ও ছেলে সাকিব মীর ভরাটকৃত জমিতে জোরপূর্বক দখলকরে অস্থায়ী ঘর নির্মান করে। এলাকার প্রভাবশালী ও সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক হওয়ায় ওই সময় মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল জলিল কুমিল্লা অতিঃ জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট কোর্টে মামলা করলে বিজ্ঞ আদালত উভয় পক্ষের প্রতি নিষেধাজ্ঞা জারী করে । আদালতের নিষেধাজ্ঞা গত শনিবার অমান্য করে প্রতিপক্ষ আলমগং পুনরায় ঘর নির্মান করতে গেলে মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল জলিল খানের ছেলে স্কুল শিক্ষক আবুল খান বাধা প্রদান করলে । এতে ক্ষিপ্ত হয়ে প্রতিপক্ষরা আবুল খান ও প্রতিবেশী মাসুমকে পিটিয়ে মারাত্মক আহত করে। এ ঘটনায় মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল জলিল খান দাউদকান্দি মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন আহত প্রধান শিক্ষক আবুল খান জানান, আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্বেও আলম মীরের ভাই ইমন ও ছেলে সাকিবসহ ৪/৫জন মিলে আমার জায়গা দখলের চেষ্টা করে। শনিবার বিকালে স্কুল থেকে ফেরার পথে দেখে তাদেও বাধা দিলে আমার উপর হামলা করে। আমার চিৎকার শুনে প্রতিবেশি মাসুম এগিয়ে আসলে তাকে মারধর করে মারাত্মক আহত করে।

দাউদকান্দি মডেল থানার ওসি(তদন্ত) নুরুল ইসলাম জানান, শনিবারের ঘটনায় একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। এ সম্পত্তি নিয়ে আদালতে চলা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন গত বছর ১১ নভেম্বর আদালতে দাখিল করা হয়েছে। আইন শৃঙ্খলা রক্ষার্থে আদালতের মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত ওই জায়গা কেউ যেতে পারবেনা বলে উভয়কে ওই সময় নোটিশ প্রদান করা হয়েছে। এখন তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আর পড়তে পারেন