শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

দাউদকান্দিতে শিশু অপহরণের চেষ্টা, আটক-২

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ২২, ২০১৮
news-image

 

জাকির হোসেন হাজারী, দাউদকান্দিঃ
দাউদকান্দিতে ৭ মাসের শিশুকে অপহরনের চেষ্টার অভিযোগে ২ জনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে এলাকাবাসী।

বুধবার রাতে উপজেলার গৌরীপুর ইউনিয়নের হারিয়ালা গ্রামের ইসমাইল সরকারের বাড়ীতে ৭মাসের শিশু সন্তানকে নিয়ে যাওয়ার সময় একই গ্রামের আলী মিয়ার ছেলে হযরত আলী(২৫) এবং মৃত রশিদ মিয়ার ছেলে আলম মিয়া (২৬)কে আটক করে পুলিশকে খবর দিলে তাৎক্ষনিক গৌরীপুর ফাঁড়ি পুলিশের উপ-পরিদর্শক শহিদুল ইসলাম ও সহকারী উপ-পরিদর্শক ফিরোজ ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে আটকৃতদের থানায় নিয়ে আসে। এঘটনায় বৃহস্পতিবার বিকেলে শিশুটির বাবা দাউদকান্দি উপজেলা যুবলীগ সদস্য ইসমাইল সরকার বাদী হয়ে দাউদকান্দি মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করে।

অভিযোগে জানা যায়, কয়েকদিন আগে গৌরীপুর তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্য আব্দুন নুর ও ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাসেম সরকার এই ইউনিয়নকে মাদকমুক্ত করার লক্ষে ইউপি পরিষদ মিলনায়তনে মতবিনিময় সভা করে। ওই সভায় প্রতিটি ওয়ার্ডের মেম্বার এবং গ্রামের গন্যমান্য ব্যাক্তিদের এলাকায় মাদকের কুফল ও ভয়াবহতা সম্পর্কে গ্রামে গ্রামে জনসচেতনতামূলক সভা করার জন্য বলা হয়্ । সে লক্ষে হাড়িয়ালা গ্রামে গত মঙ্গলবার বিকালে প্রস্তুতি সভা ডাকা হয়। এতে এলাকার মাদক ব্যবসায়ী মিন্টু ও স্বপন ছাড়া প্রায় অধিকাংশ লোকজনই উপস্থিত ছিলো। অপরদিকে মাদক ব্যবসায়ী মিন্টু ও স্বপনগংরা মাদক নির্মূলসভায় উপস্থিত না হয়ে আয়োজকদের দেখে নেয়ার হুমকি দেন বলে এলাকাবাসী জানান। এঘটনার জের ধরে পরদিন বুধবার রাত সাড়ে ১০টায় মাদক নির্মূল আয়োজক কমিটির সদস্য ইসমাইল সরকারের ৭ মাসের ছেলে আল আরাফকে কাঁথা দিয়ে মুড়িয়ে নিয়ে যাওয়ার সময় শিশুটির শোর চিৎকার করলে এক পর্যায়ে ফেলে চলে যাওয়ার সময় এলাকাবাসী হযরত আলী ও আলম মিয়াকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে।

ইসমাইল সরকার জানান, আমাদের এলাকায় মাদক বিক্রী থেকে শুরু করে চুরি, ছিনতাইয়ের মূল হোতা স্বপন ও মিন্টু। আমাদের চেয়ারম্যান ও ফাড়ির ইনচার্যের আহবানে মাদকের বিরুদ্ধে জনসচেতনতা বাড়ানোর জন্য হাড়িয়ালা ও দৈয়াপাড়া গ্রামে সভা করার প্রস্তুতি গ্রহন করলে তারা আমাকে দেখে নেয়ার হুমকি দেয়। এর পরই আমার ছেলেকে অপহরনের চেষ্টা। আমি বাদী হয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি।

ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাসেম সরকার বলেন, মাদকমুক্ত গৌরীপুর গড়ার লক্ষ্যে প্রশাসনের কর্মকর্তাদের উপস্থিতে পরিষদের সদস্য ও এলাকার গন্যমান্য লোকজনদের নিয়ে আমার অফিসে আলোচনাসভা করি। সেখানে গ্রাম ভিত্তিক মাদকের কুফল ও ভয়াবহতা সম্পর্কে জনসচেতনতামূলক সভা করার জন্য সকলের সহযোগিতা চাওয়া হয়। হাড়িয়ালা গ্রামে ইসমাইল সরকারকে সভা করার জন্য বলা হয়। আমি শুনেছি ওই এলাকার কিছু মাদক ব্যবসায়ী ও মাদকসেবীরা তার ছেলেকে অপহরনের চেষ্টা করেছে এবং এলাকাবসী দু’জনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে। সত্যিই এ ধরনের ঘটনা ঘটে থাকলে আমি অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করছি।

গৌরীপুর তদন্ত কেন্দ্রের উপ-পরিদর্শক শহিদুল ইসলাম বলেন, খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক আটককৃত দু’জনকে থানায় আসি। এ ব্যাপারে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি।

আর পড়তে পারেন