শনিবার, ৩রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

দ্রোহে-প্রেমে নজরুল সাহিত্য: প্রসঙ্গ নার্গিস আসার খানম

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ২৬, ২০১৭
news-image

প্রভাষক মনিরুজ্জামানঃ
“কাজী নজরুল ইসলাম
বাসায় একদিন গেছিলাম।
বায়া লাফ দেয় তিন হাত,
হেসে গান গায় দিন রাত,
প্রাণে ফুর্তির ঢেউ বয়;
ধরার পর তার কেউ নয়।”
কবি গোলাম মোস্তফার (১৮৯৫-১৯৬৪) এ ছড়াটির মধ্যেই কাজী নজরুল ইসলামের (১৮৯৯-১৯৭৬)
চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য একটি সুস্পষ্ট রূপ লাভ করেছে। অদম্য প্রাণশক্তি নিয়ে জন্ম তাঁর এবং এদিক দিয়ে সমগ্র বাংলা কাব্য-সাহিত্যে একমাত্র মধুসূদনের সাথেই কিছুটা তুলনা মেলে। প্রাণে দুর্বার স্পৃহায়, প্রচন্ড আবেগে, প্রবল উচ্ছ্বাসে তিনি আজীবন তাড়িত ও আবর্তিত হয়েছেন। দারিদ্র্যকে তিনি ভ্রƒকুটি হেনেছেন, অভাব-অনটনকে হাসিমুখে সহ্য করেছেন, শত বাধা-বিপত্তিকে উপেক্ষা করে সম্মুখ পানে এগিয়ে গেছেন। সমাজের বাধা-নিষেধ, বিদেশী সরকারের শাসনদন্ড, কারাবাসের নির্মম অত্যাচার, কোনটাই তাকে হত-উদ্যম করতে পারেনি। রবীন্দ্রনাথ কাব্যে যে যৌবনের অভিষেক করেছেন, সেই যৌবনকে তো আমরা জীবনে প্রথম প্রত্যক্ষ করলাম তাঁর মাধ্যমে।
নজরুল জাত বোহেমিয়ান। সংসারের হিসেবের খাতায় তাঁর জমা শূন্য। সারাটা জীবন তিনি
কাটালেন বাউলেপনা করে। কোন হিসেব-নিকেশ করে তাঁর জীবন চলেনি। যখন তাঁর যা খেয়াল চেপেছে তাই তিনি করেছেন। (১) তথ্য সূত্র: নজরুল প্রতিভা- মোবাশ্বের আলী, পৃষ্ঠা: ১১
কবির ভাষায়
আমি তাই করি ভাই, যখন চাহে এ মন যা
করি শত্রুর সাথে গলাগলি, মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা।


-বিদ্রোহী বৈচিত্র্যময় এক বিরল প্রতিভা কাজী নজরুল ইসলাম । বীর রস, করুণ রস, হাস্যরস, বাৎসল্য রস কি ছিলো না তাঁর সৃষ্টির ভান্ডারে? বেদনায় আকণ্ঠ নিমজ্জিত কবি জগৎ ব্রহ্মান্ডের জন্য রেখে গেলেন এক মহৎ উত্তরাধিকার । পরাধীন মাতৃভূমির স্বাধীনতার জন্য একাধারে ছিলেন বিদ্রোহী, অসহায় মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য সংগ্রামী-রাজনীতিক, সঙ্গীতজ্ঞ, চলচ্চিত্রকার এবং প্রেম ও দ্রোহের কবি ছিলেন তিনি। এমন বিচিত্র প্রতিভার, বড় মাপের মানুষটির অন্তরের নিভৃত কোনটি কেমন ছিলো, কোন সে মহীয়সীর পদভারে স্পন্দিত-মথিত হয়েছিল তাঁর হৃদয় মন্দির- এ যাবৎ এ সম্পর্কে খুব একটা খোঁজ-খবর আমরা করিনি। অথচ লক্ষ-কোটি মানুষের প্রিয় কবি এই কাজী নজরুল ইসলাম। (২) তথ্য সূত্র: নজরুল জীবনে নারী ও প্রেম
-ড. আবুল আজাদ
আপাদমস্তক প্রতিবাদী এই মানুষটির জীবনেও প্রেম ছিলো, ছিলো ভালোবাসা। অন্তরের নিভৃত কোণে
এই কবিও গেঁথেছেন বিনি সুতার মালা। মানব ধর্মে মহীয়ান এই কবিও হৃদয়ের সমস্ত ভালাবাসা উজাড় করে দিয়ে আপন করে পেতে চেয়েছেন প্রিয়তমাকে ।
অপ্রাপ্তির দংশন তাঁকে জর্জরিত করেছে ঠিকই, কিন্তু ধ্বংস করতে পারেনি। খাঁটি সোনা বানিয়েছে।
কালের ঝঞ্ঝায় কবি হয়তো বিদ্রোহী হয়েছেন, প্রতিষ্ঠা পেয়েছেন এই অভিধায়। কিন্তু প্রেমিক স্বত্বটিও তাঁর বিস্মৃত হবার নয়।
জগতের সব বড় মাপের কবি সাহিত্যিক-শিল্পীর জীবনেই প্রেম-ভালোবাসার বিচিত্র উপাখ্যান লক্ষ্য করা যায়।
কেউ দয়িতাকে পেয়ে সৃষ্টি করেছেন ভালোবাসার মহাকাব্য। কেউবা হারিয়ে লিখেছেন করুণ রাগের অমর উপাখ্যান। এদের জীবনের মহৎ সব শ্রেষ্ঠ সৃষ্টির প্রেরণার উৎসই হয়ে আছেন তাদের দয়িতারা। বিশ্বসাহিত্যের দিকপালদের দিকে তাকালে এর পরিব্যাপ্তি নজির লক্ষ্য করা যায়। ফ্যানি ব্রাউনের গভীর প্রেমে উদ্বেলিত হয়েছিলেন কিটস। এমিলিয়াকে আপস করে পেতে কবি শেলী আমৃত্যু প্রতীক্ষায় থাকেন। বিয়ে ত্রেয়ীচের জন্য দান্তের অপেক্ষার পালাটিও ছিলো দীর্ঘ। অৎৎবঃঃব ঠধষষড়হ এর সঙ্গে ওয়ার্ডসওয়ার্থের ছিলো দীর্ঘ প্রণয়।
কোলরিচ আজীবন বিভোর ছিলেন ওয়ার্ডসওয়ার্থের বোন সারাহর প্রেমে। কিন্তু কোনদিই তাঁর সেই প্রণয়
পরিণতির মুখ দেখেনি। কবি বায়রনকে সৎবোন অংঃধৎঃ এর সঙ্গে প্রেম করার কারণে দেশ থেকে বের করে দেয়া হয়েছিল। লরাকে ঘিরে বেড়ে উঠেছিল পেত্রাকের প্রেমিকের প্রেমিক জীবন। জনাথন সুইফটের ঝঃবষষধ এবং ইয়েটস- এর মডগান তাদের সাহিত্যিক জীবনে অপরিসীম প্রভাবের সৃষ্টি করেছিলেন। জগৎ বিখ্যাত এমনতর আরো অকে রথি কবি সাহিত্যিকের নামোল্লেখ করা যায়- এডমন্ড স্পেন্সার, স্যার ফিলিপ সিডনি, জনডান, ব্রাউনিং এরা সকলেই ছিলেন প্রেমের পূজারী, দয়িতা আরাধ্য পুরুষ।
আমাদের চন্ডীদাসের রামী, মাইকেল মধুসূদন দত্তের হেনরিয়েটা এবং রবি ঠাকুরের কাদম্বরীকেইবা এ
প্রসঙ্গে স্মরণ না করা কোনো? তেমনিভাবে কবি কাজী নজরুল ইসলামের জীবনেও লক্ষ্য করি নার্গিসের জন্য অপরিসীম একাগ্রতা ।
১৯২১ সালের (বাংলা ২৩ চৈত্র ১৩২৭) আলী আকবর খান (১৮৮৯-১৯৭৭) এর সাথে কাজী
নজরুল ইসলাম চট্টগ্রাম মেলে কুমিল্লা হয়ে মুরাদনগরের দৌলতপুরে আসেন। এখানে প্রায় ২ মাস ১১ দিন অবস্থান করেছিলেন। বিবাহ উপলক্ষ্যে নজরুলের সাথে প্রথম দেখা হয় খান সাহেবের ভাগ্নি ষোড়শী সৈয়দা খাতুনের । তার ডাক নাম ছিল দুবি বা দুবরাজ। নজরুল তার নাম পাল্টে রাখেন নার্গিস। একদিন কবি বলেছিলেন, “এমন ফুলের মতো সৌন্দর্য, তার এই নাম কে রেখেছে? আজ থেকে তোমার নাম নার্গিস”।
সেই থেকে নার্গিস নামটা স্থায়ী হয়ে গেলো সৈয়দার জীবনে । ধীরে ধীরে গড়ে উঠে সখ্যতা। মন দেয়া-নেয়ার পালা। নজরুল ইরানী ফুলের নামে তার নাম রাখলেন নার্গিস আশার খানম। নার্গিসের রূপ, মাধুরী ও প্রকৃতির সৌন্দর্যের প্রেমে পড়ে দৌলতপুরে অবস্থান করেন। আর দ্রোহে, প্রেমে, বিরহে ও মননেই শুধু নয় নজরুলের জীবনে, গানে ও কবিতায় এই নাম অমর হয়ে রইলো । এখানে তিনি কবিতা লিখেন, লিখেন গানও।(৩)
এ যাবৎ প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী নজরুল ইসলাম দৌলতপুরে বসেই ১৬০টি গান ও ১২০টি কবিতা রচনা
করেছিলেন। উল্লেখযোগ্য কবিতাগুলোর মধ্যে, ‘বেদনা-অভিমান’, ‘অ-বেলা’, ‘অনাদৃতা’, ‘পথিক প্রিয়া’,
‘বিদায় বেলা’ ও শিশুতোষ বিখ্যাত ‘লিচু চোর’ ছড়াটি।
(৩)তথ্য সূত্র: নজরুল চর্চা ও গবেষণা, ড. কামরুল আহসান
নজরুল ও নার্গিসের প্রণয় ও পরিণয়ের প্রমাণ উপস্থাপন করার জন্য আজকের প্রবন্ধ লেখা
হয়নি। বরং নজরুলের জীবনে নার্গিস ও দৌলতপুরের পল্লী গ্রামের সবুজ শ্যামল প্রকৃতি কতটুকু প্রভাব
ফেলতে পেরেছে তাই আলোচ্য বিষয়।
নজরুল তাঁর ‘বিদ্রোহী’ কবিতায় ব্যক্ত করেছেন,-
‘মম এক হাতে বাঁকা বাঁশের বাঁশরী আর হাতে রণ তুর্য’।
অথবা,
‘আমি বন্ধনহারা কুমারীর বেণী, তন্বী নয়নের বহ্নি
আমি ষোড়শীর হৃদি সরসিজ প্রেম উদ্দাম, আমি ধন্যি’।
পৃষ্ঠা-০২
অথবা,
মানব প্রেমে আকৃষ্ট হয়ে নজরুল যেমন লিখেছিলেন বিদ্রোহের কবিতা, তেমনি প্রকৃতি ও নারী প্রেমে আকৃষ্ট হয়ে নিজেকে সমর্পণ করেছেন করুণ ভাবে। তইতো কবি নিজেকে প্রকাশ করেছেন এই ভাবে-
আমি কবি হতে আসিনি, আমি নেতা হতে আসিনি, আমি প্রেম পেতে এসেছিলাম, আমি প্রেম দিতে এসেছিলাম।
নার্গিস নজরুলের জীবনের প্রথম নারী এবং নার্গিসের সাথে তাঁর সম্পর্কের ছেদ ঘটে আকস্মিকভাবে। তাই নার্গিসকে ভোলা তাঁর পক্ষে কোনদিন সম্ভব হয়নি। নার্গিস যে তাঁর অন্তরকে কতখানি আলোড়িত করেছিল, এর স্বাক্ষর রয়ে গেছে ‘হিংসাতুর’ কবিতাটিতে। এছাড়াও ‘দোলনচাঁপা’, ‘ছায়ানট’ ও পূবের হাওয়া’য় সংকলিত হয়েছে দৌলতপুরে কবির রচিত বিভিন্ন গান ও কবিতা।
নজরুল ১৯৩৭ সালের ০১ জুলাই তারিখে কলকাতা (গ্রামোফোন-রিহার্সাল রুম, ১০৬ আপার চিৎপুর রোড) থেকে নজরুল তাঁর প্রম প্রণয়িনীর পত্রোত্তরে যে প্রাণস্পর্শী পত্র লেখেন তার কয়েকটি লাইন এখানে উল্লেখ করলো ব্যর্থ প্রেমের আঘাতে উদ্দীপ্ত কবি মানসকে বোঝা সহজ হবে।
“কল্যাণীয়াসু,
তোমার পত্র পেয়েছি সেদিন নববর্ষের নবঘনসিক্ত প্রভাতে । মেঘমেদুর গগনে সেদিন অশান্ত ধারায় বাড়ি
ঝরছিল। পনের বছর আগে এমনি এক আষাঢ়ে এমনি বারিধারার প্লাবন নেমেছিল- তা তুমিও হয়তো স্মরণ করতে পারো। আষাঢ়ের নব মেঘপুঞ্জকে আমার নমস্কার। মেঘদূত বিরহী যক্ষের বাণী বহন ক’রে নিয়ে গিয়েছিল কালিদাসের যুগে রেবা নদীর তীরে মালবিকার দেশে, তাঁর প্রিয়ার কাছে। এই মেঘপুঞ্জের আশীর্বাণী আমার জীবনে এনে দেয় চরম বেদনার সঞ্চয়। এই আষাঢ় আমায় কল্পনায় স্বর্গলোক থেকে টেনে এনে ভাসিয়ে দিয়েছে বেদনার অনন্ত ¯্রােতে। আমার অন্তর্যামী জানেন, তোমার জন্যে আমার হৃদয়ে কী গভীর ক্ষত, কি অসীম বেদনা! কিন্তু সে বেদনার আগুনে আমিই পুড়েছি, তা দিয়ে তোমায় কোনদিন দগ্ধ করতে চাইনি। তুমি সেই আগুনের পরশমণি না দিলে আমি
অগ্নিবীণা বাজাতে পারতাম না, আমি ধূমকেতুর বিস্ময় নিয়ে উদিত হতে পারতাম না।………

আর পড়তে পারেন