রবিবার, ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

নোয়াখালীতে বড় বোনকে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় ছোট ভাইকে কুপিয়ে জখম

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ১৪, ২০২২
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার একটি উচ্চ বিদ্যালয়ে বড় বোনকে উত্ত্যক্ত করার প্রতিবাদ করায় সাজ্জাদুল ইসলাম সায়েম (১৪) নামের অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্রকে কুপিয়ে জখম করার অভিযোগ উঠেছে। আহত সায়েমের বোন বসুরহাট এএইচসি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী। এ ঘটনায় অভিযুক্ত ওই বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র তামজিদ ইমতিয়াজ (১৬)।

আজ রোববার বেলা ১১টায় ওই বিদ্যালয়ের চতুর্থ তলার বারান্দায় এ ঘটনা ঘটার পর ইমতিয়াজের বিরুদ্ধে কোম্পানীগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগীর বাবা।

বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সূত্রে জানা যায়, বেশ কিছুদিন থেকে বসুরহাট এএইচসি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র তামজিদ তারই সহপাঠী এক ছাত্রীকে (১৫) উত্ত্যক্ত করে আসছে। এ ঘটনায় ওই ছাত্রীর ছোট ভাই একই বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র সাজ্জাদুল ইসলাম সায়েম বোনকে উত্ত্যক্ত করতে নিষেধ করে। অভিযুক্ত তামজিদ এরপরও ওই ছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করলে ছোট ভাই সায়েম বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে অভিযোগ দেবে বলে তামজিদকে জানায়। এতে তামজিদ ক্ষিপ্ত হয়ে বিদ্যালয়ের মূল ভবনের চতুর্থ তলার বারান্দায় সায়েম ওপর হামলা করে তাকে কুপিয়ে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযোগটি তদন্ত করে।

ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও অভিভাবকেরা অভিযোগ করে বলেন, অভিযুক্ত তামজিদ ইমতিয়াজ উচ্ছৃঙ্খল প্রকৃতির ছেলে। সে ইতিপূর্বেও অন্যান্য ছাত্রের সঙ্গেও মারামারি করেছে। কারও বাড়িতে গিয়েও হামলার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

ভুক্তভোগী ছাত্রী ও সায়েমের বাবা নুর ইসলাম নওশাদ বলেন, ‘বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষে যদি কোনো শিক্ষার্থী নিরাপদ না থাকে, তাহলে এর চাইতে দুঃখজনক আর কিছু হতে পারে না।’

ঘটনাস্থলে উপস্থিত অভিযুক্ত ইমতিয়াজের মা এ ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, ‘আমার ছেলে অনলাইনে ফ্রি-ফায়ার গেমসে আসক্ত। বাড়িতেও তাকে এসব বিষয়ে শাসন করতে গেলে সে আসবাবপত্র ভাঙচুর করে।’

এ ঘটনার তদন্তকারী এসআই মুজিবর রহমান বলেন, ‘তদন্তে গিয়ে দা দিয়ে কুপিয়ে জখমের অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. মেজবা উল আলম ভূঁইয়া জানান, স্কুল কর্তৃপক্ষ আমাকে জানানোর পর ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। স্কুল কর্তৃপক্ষ ও পুলিশকে ঘটনার সঠিক তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বলা হয়েছে।

আর পড়তে পারেন