রবিবার, ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

পুতিন: গুপ্তচর থেকে বিশ্বের অন্যতম ক্ষমতাধর ব্যক্তি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২২
news-image
বিশ্ব ব্রহ্মাণ্ডে বসবাস করে অথচ ভ্লাদিমির পুতিন নামটি শুনেননি, এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। কারণ বিশ্বের অন্যতম ক্ষমতাধর এই ব্যক্তিকে আমরা মূলত চিনি বিশ্বের সবচেয়ে বড় দেশ (আয়তনে) রাশিয়ার বর্তমান এবং দেশটির সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ রাষ্ট্রপতি হিসেবে। একাধারে ইসরায়েল, আমেরিকাকে টেক্কা দিয়ে চলার মত বর্তমান পৃথিবীতে বোধহয় এই একজন মানুষই বেঁচে আছেন। যিনি একজন অকুতোভয় চরিত্রের অধিকারী। কিন্তু এসবের বাইরেও আছেন আরেক পুতিন। যার সম্পর্কে জানে না বিশ্বের অসংখ্য মানুষ। মানুষ জানে না ক্ষমতাধর এই ব্যক্তির ব্যক্তিগত, পারিবারিক জীবন ও তার ছেলেবেলার অজানা অসংখ্য মুহূর্ত। ভ্লাদিমির পুতিনের এই ‘না জানা’ বিষয় সম্বন্ধে সকলকে জানানোর জন্যই আমাদের আজকের এই আলোচনা-
ভ্লাদিমির পুতিন কে?
যদিও এ সম্পর্কে আলাদাভাবে বলার প্রয়োজন নেই। তবে আলোচনা স্বার্থে আমাদের আগে জানাতে হবে কে এই ভ্লাদিমির ভ্লাদিমিরোভিচ পুতিন! পুতিন হলো পৃথিবীর সবচেয়ে বড় রাষ্ট্র রাশিয়ার বর্তমান প্রেসিডেন্ট। গত দুই দশকের বেশি সময় ধরে তিনি দেশটিকে একজন যোগ্য নেতার মতোই পরিচালনা করে চলেছেন। ১৯৯৭ সালে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট বরিস ইয়েলেৎসিনের নিরাপত্তা সার্ভিসের প্রধান হিসেবে নিয়োগের পর ১৯৯৯ সালে পুতিনকে ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট করা হয়। এরপর ২০০০ ও ২০০৪ সালে পর পর দু’বার দেশটির প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন পুতিন। কিন্তু রাশিয়ার নিয়ম অনুযায়ী, কোন ব্যক্তি পরপর ৩ বার প্রেসিডেন্ট নির্বাচন করতে পারে না। তখন পুতিন প্রধানমন্ত্রী পদে নির্বাচন করেন। পরে ২০১২ সালে তিনি তৃতীয়বারের মতো প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়লাভ করেন।

কিশোর পুতিন

কিশোর পুতিন
পুতিনের দুরন্ত শৈশব:

১৯৫২ সালের ৭ই অক্টোবর তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের লেলিনগ্রাদে খুবই সাধারণ এক পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন ভ্লাদিমির ‘ভ্লাদিমিরোভিচ’ পুতিন। পুতিনের মা মারিয়া শিলোমোভা অসম্ভব রকমের নরম মনের মানুষ ছিলেন। নিজ মাকে নিয়ে পুতিন একবার বলেছিলেন, ‘আমরা খুবই সাধারণভাবে জীবনযাপন করতাম। আমাদের খাদ্যতালিকায় ছিল বাঁধাকপির স্যুপ, কাটলেট এবং প্যানকেক। তবে রবিবার ও উৎসবের দিনে আমার মা বাঁধাকপি, মাংস এবং চালের সমন্বয়ে খুবই সুস্বাদু খাবার তৈরি করতেন, সাথে থাকতো কাস্টার্ড। আমি নিজেও একজন স্বাভাবিক সাধারণ মানুষের মত জীবন কাটিয়েছি এবং সবসময়েই সেই বিষয়টা বজায়ে রেখেছি’। জীবনে বড় কিছু করার সবগুণ নিয়ে জন্মালেও শৈশবের পুতিন ছিলেন মারাত্মক দুষ্টু প্রকৃতির কিশোর ও পড়াশুনায় অমনযোগী এক ছাত্র।

কিশোর বয়সেই জুডো প্রশিক্ষণে ব্লাকবেল্ট পেয়েছিলেন পুতিন। পুতিনের মা প্রথমদিকে ছেলের জুডো অনুশীলন একদম পছন্দ করতেন না। পুতিন একবার বলেছিলেন, ‘যখনই আমি জুডো প্রশিক্ষণের উদ্দেশ্যে বের হতাম, মা গালিগালাজ করতেন। অবশ্য আমার জুডো কোচ যেদিন আমার বাসায় এসে মা-বাবাকে বুঝান এরপরেই সব বদলে যায়। আমার এই খেলার প্রতি পরিবারের দৃষ্টিভঙ্গি বদলে যায়’।

পুতিনের বাবা প্রথম জীবনে একজন যোদ্ধা ছিলেন। ১৯৫০ এর দশকে যখন পুতিন জন্ম নেন হয় তখন তার বাবা একজন সিকিউরিটি গার্ড হিসেবে কর্মরত ছিলেন। পরবর্তীতে তিনি ফোরম্যান হিসেবে কাজ শুরু করেন। পুতিন জানান, ‘বাবা ১৯১১ সালে সেইন্ট পিটার্সবার্গে জন্মগ্রহণ করেন। ১ম বিশ্বযুদ্ধ শুরু হওয়ার পর সেইন্ট পিটার্সবার্গে খাদ্যের অভাব শুরু হলে সেখানে বসবাস করাও কঠিন হয়ে পড়ে। তাই পুরো পরিবার রাশিয়ার টিভের এর পোমিনোভো গ্রামে চলে আসি, যা ছিল আমার দাদীর পৈতৃক গ্রাম’।

শিক্ষা জীবন:

স্কুল জীবনে পুতিন ছিলেন ক্লাসের দুষ্টু ছেলে হিসেবে পরিচিত। ১৯৬০ থেকে ১৯৬৮ সাল পর্যন্ত ভ্লাদিমির লেলিনগ্রাদের স্থানীয় একটি প্রাইমারি স্কুলে পড়েন তিনি। ৬ষ্ঠ শ্রেণী পর্যন্ত পুতিনের লেখাপড়ার প্রতি তেমন একটা আগ্রহ ছিল না। কিন্তু শিক্ষকের প্রভাবে পাল্টে যান তিনি। ষষ্ঠ শ্রেণীতে পড়ার সময়ে ভ্লাদিমির সিদ্ধান্ত নেন তাকে জীবনে বড় কিছু অর্জন করতে হবে, এরপর থেকেই তিনি ভালো ফলাফল করতে শুরু করেন।

পরে অষ্টম শ্রেণী পাশ করে তিনি প্রাইমারি ছেড়ে হাইস্কুলে ভর্তি হন। এটি ছিল রসায়ন বিদ্যায় বিশেষ প্রাধান্য দেয়া একটি প্রযুক্তি শিক্ষাকেন্দ্র। ১৯৭০ সালে পুতিন এখান থেকে পাশ করে বের হন। সেই সময়ে তার মনোভাবের বিষয়ে পুতিন বলেন, ‘আমার কাছে এই ব্যাপারটি স্পষ্ট হয়ে উঠেছিল যে সাধারণ ভালো ছাত্র হওয়াটা যথেষ্ঠ নয়, কাজেই আমি খেলাধুলায় অংশ নিতে শুরু করলাম। কিন্তু সেটাও আমার মর্যাদাকে ধরে রাখার জন্য যথেষ্ঠ মনে হলো না, আমি বুঝতে পেরেছিলাম আমার পড়াশুনাতেও ভাল করতে হবে’।

স্কুল শেষ করার আগেই পুতিন ঠিক করে ফেলেন তিনি ইন্টেলিজেন্সের হয়ে কাজ করবেন। হাইস্কুলে পড়ার সময়ে তিনি কেজিবি’র একটি শাখার পাবলিক রিসিপশনে গিয়ে শোনেন কিভাবে একজন স্পাই বা গুপ্তচর হওয়া যায়। সেখানে তিনি জানতে পারেন, হয় তাকে সেনাবাহিনীতে কাজ করতে হবে, অথবা তার একটি কলেজ ডিগ্রি থাকতে হবে। আর সবথেকে ভালো হয়, যদি সেই ডিগ্রিটি আইনের ওপর হয়। তারপরেই পুতিন লেলিনগ্রাদ স্টেট ইউনিভার্সিটির আইন বিভাগে ভর্তির জন্য প্রস্তুতি নিতে শুরু করেন। ১৯৭০ সালে পুতিন লেলিনগ্রাদ বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগে ভর্তি হন। তার শ্রেণীতে ১০০ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে পুতিনসহ মাত্র ১০জন ছিল হাইস্কুল পাশ করা ছাত্র। বাকি সবাই মিলিটারি জীবন শেষে এখানে এসেছিল। এই ১০টি আসনের জন্য পরীক্ষা দিয়েছিল ৪০০ জন শিক্ষার্থী।

বৈবাহিক জীবন ও সন্তান:
পুতিনের মত একজন মানুষ প্রেমে পড়েছিলেন এটা ভাবতে মানুষ অবাক হলেও আশির দশকের শুরুতে লুডমিলা নামের এক তরুণীর প্রেমে পড়েছিলেন পৃথিবীর সবচেয়ে ক্ষমতাধর এই ব্যক্তি। পুতিন তার একজন বন্ধুর মাধ্যমে লুডমিলার সাথে পরিচিত হন। লুডমিলা সরকারি এয়ার লাইনের একজন ফ্লাইট এটেন্ডেন্ট হিসেবে কর্মরত ছিলেন এবং এক বন্ধুর সাথে তিন দিনের জন্য লেলিনগ্রাদে বেড়াতে এসেছিলেন। নিজের প্রণয়ের স্মৃতিচারণ পুতিন বলেন, ‘আমি তখন সেইন্ট পিটার্সবার্গে কেজিবির প্রধান শাখায় কাজ করছিলাম। আমার এক বন্ধু আমাকে ফোন দিয়ে আরকাডে রাইকিন থিয়েটারে আমন্ত্রণ জানায়। সে আমাকে বলে সে আগেই টিকেট কিনে রেখেছে এবং আমাদের সাথে দুইজন তরুণীও থাকবে। আমরা নাটক দেখতে গেলাম এবং সেই তরুণীরাও যোগ দিয়েছিল। পরের দিন আমরা আবার থিয়েটারে গেলাম এবং সেদিন আমি নিজেই টিকেট কিনেছিলাম। তৃতীয় দিনও একই ঘটনা। এরপর আমি দুই তরুণীর একজনের সাথে ডেট করা শুরু করলাম। আমি লুডমিলার সাথে খুবই ঘনিষ্ঠ হয়ে পড়লাম’।

বিয়ের দিনে পুতিন

বিয়ের দিনে পুতিন
পরিচয়ের তিন বছরের মাথায় পুতিন লুডমিলাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন। ১৯৮৩ সালের ২৮ জুলাই পুতিন ও লুডমিলা বিয়ে করেন। কিন্তু ২০১৩ সালে বিবাহ বিচ্ছেদের মধ্য দিয়ে তাদের ৩০ বছরের সংসারের ইতি ঘটে। বিয়ের দুই বছর পর ১৯৮৫ সালে এই দম্পতির বড় মেয়ে মারিয়ার জন্ম হয়। পরের বছরই তাদের দ্বিতীয় মেয়ে ক্যাটরিনা জন্মগ্রহণ করে। ক্যাটরিনার জন্ম হয় জার্মানির ডিসডেনে। পুতিনের দুই কন্যার নাম তাদের দাদী ও নানীর সম্মানে রাখা। মারিয়া (পুতিনের মা) ক্যাটরিনা (লুডমিলার মা)।

পরিবারসহ পুতিন

পরিবারসহ পুতিন
যেভাবে শুরু করেন কর্মজীবন:
একজন গুপ্তচর হিসেবে দেশের সেবা করার স্বপ্ন পূরণ করতে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাশ করার পরই তিনি যোগ দেন রাশিয়ার জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থায়। পরিচালকের সহকারী হিসেবে ইন্টেলিজেন্সে তার কাজের শুরু হয়। পরবর্তীতে তিনি কাউন্টার ইন্টেলিজেন্স এ বদলি হন। কাউন্টার ইন্টেলিজেন্স শাখায় তিনি পাঁচ মাসের মত কাজ করেন। ইন্টেলিজেন্সে কাজ করার প্রায় ছয় মাসের মাথায় তাকে বেশ কয়েকটি অপারেশনে পাঠানো হয়। তারপর তিনি আবার কাউন্টার ইন্টেলিজেন্সে ফিরে আসেন এবং আরও ছয় মাস সেই বিভাগে কাজ করেন। ১৯৯৭ সালে বরিস ইয়েলেৎসিন যখন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট তখন ভ্লাদিমির পুতিন ক্রেমলিনে আসেন এবং তাকে কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা সার্ভিসের প্রধান হিসেবে নিয়োগ করা করা হয়। ১৯৯৯ সালে নতুন বছরের প্রাক্কালে ইয়েলেৎসিন প্রেসিডেন্টের পদ থেকে পদত্যাগ করেন এবং ভ্লাদিমির পুতিনকে ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট হিসেবে ঘোষণা করেন।

বাবা মায়ের সাথে পুতিন

বাবা মায়ের সাথে পুতিন
জার্মানিতে পুতিন:
১৯৮৫ থেকে ১৯৯০, পাঁচ বছর রাশিয়ার এজেন্ট হিসেবে পূর্ব জার্মানিতে কাজ করেন পুতিন। জার্মানিতে থাকাকালীন সময়ে তিনি পদন্নোতি পেয়ে প্রথমে লেফটেন্যান্ট কর্ণেল এবং পরে আবারও পদন্নোতি পেয়ে বিভাগীয় প্রধানের প্রধান সহকারী হন। পরে ১৯৯০ সালে পুতিন জার্মানিতে তার কাজ শেষ করে লেলিনগ্রাদে ফিরে আসেন। সেখানে তিনি লেলিনগ্রাদ স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালকের সহকারী হিসেবে যোগ দেন। এই পদে তাঁর দায়িত্ব ছিল আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ে পরিচালককে সহায়তা করা। বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দেয়ার পর তিনি লেলিনগ্রাদ সিটি কাউন্সিলের সভাপতির বিশেষ উপদেষ্টাও হয়ে যান। ১৯৯১ সালের জুনে সেইন্ট পিটার্সবার্গ সিটি হল এর আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব নেন; এবং ১৯৯৪ সাল থেকে সেন্ট পিটার্সবার্গ সিটি গভর্মেন্টের ডেপুটি চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পান। এই কাজ শুরু করার সময়ে তিনি কেজিবিতে তার পদত্যাগ পত্র পাঠান।
মস্কো ও প্রধানমন্ত্রিত্ব:

জাতীয় সম্পদ ব্যবস্থাপনা প্রশাসনের সহকারী প্রধান হওয়ার প্রস্তাব পেয়ে ১৯৯৬ সালে পুতিন তার পরিবারের সাথে মস্কোতে চলে যান। এরপর থেকে তার ক্যারিয়ার রকেটের গতিতে উপরের দিকে উঠতে শুরু করে। ১৯৯৭ সালের মার্চ মাসে একই সাথে রাষ্ট্রপতির প্রশাসনিক অফিসের সহকারী চিফ অব স্টাফ এবং প্রধান নিয়ন্ত্রক দপ্তরের প্রধান হিসেবে নিয়োগ পান। ১৯৯৮ সালের মে মাসে তিনি রাষ্ট্রপতির প্রশাসনিক দপ্তরের প্রধান চিফ অব স্টাফ হিসেবে পদোন্নতি লাভ করেন এবং সেই বছরের জুলাইয়েই তিনি ফেডারেল সিকিউরিটি সার্ভিসের পরিচালক হিসেবে নিয়োগ পান। ১৯৯৯ সালের মার্চ থেকে তিনি রাশিয়ান ফেডারেশানের নিরাপত্তা বিষয়ক কাউন্সিলের সচিব হিসেবে আসীন হন।

সেই বছরেই আগস্ট মাসে তিনি রাশিয়া সরকারের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ পান। রাশিয়ার তৎকালীন রাষ্ট্রপতি বরিস ইয়েলৎসীন নিজে থেকে পুতিনকে এই পদে আসীন হওয়ার জন্য প্রস্তাব দেন। পুতিন এই ব্যাপারে বলেন, ‘ইয়েলৎসীন আমাকে তার সাথে দেখা করার জন্য ডেকে পাঠান এবং আমাকে প্রধানমন্ত্রীর পদটি নেয়ার জন্য প্রস্তাব দেন। আমার সেই সময়ের চিন্তা ছিল, আমি যদি এর মধ্য দিয়ে এক বছর ভালোভাবে টিকে যেতে পারি সেটাই হবে একটা ভালো শুরু’।

বরিস ইয়েল‌ৎসীনের সাথে পুতিন

বরিস ইয়েল‌ৎসীনের সাথে পুতিন
প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন: রাশিয়ার সুপারহিরো-
২০০০ সালে রাশিয়ার তৎকালীন রাষ্ট্রপতি বরিস ইয়েলৎসীন পুতিনকে ফের ডেকে পাঠান। এবার তাকে আপৎকালীন রাষ্ট্রপতি হওয়ার প্রস্তাব দেন তিনি। পুতিন সেদিনের স্মৃতিচারণ করে বলেন, ‘নববর্ষের দুই সপ্তাহ আগে ইয়েলৎসীন আমাকে তার অফিসে ডেকে নিয়ে জানান যে তিনি পদত্যাগ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। যার মানে ছিল আমাকে আপৎকালীন রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করতে হবে’। পরে ১৯৯৯ সালের ৩১শে ডিসেম্বর পুতিন রাশিয়ার আপৎকালীন রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

আপৎকালীন রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব নেয়ার কিছুদিন পরেই পুতিন ২০০০ সালের ২৬শে মার্চ নির্বাচিত রাষ্ট্রপতি হিসেবে আবির্ভূত হন। সেই বছরের ৭ই মে তিনি রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন। তার শপথ গ্রহণের পর জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া প্রথম ভাষণে তিনি বলেন, ‘আমাদের সবার লক্ষ্য এক। আমরা সবাই চাই রাশিয়া একটি মুক্ত, উন্নত, প্রাচূর্যময়, শক্তিশালী এবং সভ্য দেশ হোক। এমন একটি দেশ যা নিয়ে এর নাগরিকরা গর্ব করবে এবং যে দেশ সারা বিশ্বের সম্মান অর্জন করবে। হয়তো সবসময়ে ভুলকে পাশ কাটানো সম্ভব হবে না। কিন্তু আমি যা প্রতিজ্ঞা করতে পারি, আমি সততা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করে যাবো।’

প্রথম মেয়াদে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে দারুন সফলতা ও সাধারন রাশিয়ানদের মাঝে দারুন জনপ্রিয়তা অর্জন করার পর ২০০৪ সালের ৪ মার্চ পুতিন আবারও রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন। ২০০৮ সালের ৮ মে পুতিন দ্বিতীয়বারের মত রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ পান। পুতিনের মতে জনগনই একজন প্রধানমন্ত্রীর মনযোগের কেন্দ্রবিন্দু হওয়া উচিৎ। প্রশাসনকে অবশ্যই জনগনের সমর্থন অর্জন করতে হবে। যদি সেই সমর্থন তারা না পান, তাহলে ক্ষমতায় থাকার কোনও অধিকারই তাদের নেই। পুতিনের এই মনোভাব ধারন করা এবং সেই মনোভাবকে কাজে পরিনত করার কারনেই রাশিয়ার সাধারন মানুষের মাঝে তার এতটা জনপ্রিয়তা।

২০১০ সালে দাবানলে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষজনের ঘরবাড়ি পূনর্নিমাণ কাজের দেখভাল পুতিন স্বপ্রণোদিত হয়ে গ্রহণ করেন। যেসব স্থানে ঘরবাড়ি নির্মাণের কাজ হচ্ছিল, সেখানে ২৪ ঘণ্টা সিসি ক্যামেরা চালু ছিল। ক্যামেরার ফুটেজ সরাসরি পুতিনের অফিসে ও বাসায় বসে দেখার ব্যবস্থা তো ছিলই, যে কেউ ইচ্ছে করলেই সরকারি ওয়েবসাইটে ঢুকে কাজের অগ্রগতি সরাসরি দেখতে পারতো। দাবানলের আগুনে নিহতদের প্রতিটি পরিবার সরকারের পক্ষ থেকে ১০ লাখ রাশিয়ান রুবল অর্থসাহায্য পেয়েছিল সেই সাথে দাবানলে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সকল সদস্য মাথাপিছু ১ লাখ রুবল করে পেয়েছিল।

গ্রীষ্মে লাগা দাবানলে ক্ষতিগ্রস্ত প্রতিটি পরিবার যারা গৃহ হারা হয়েছিল, সবাইকে শীত আসার পূর্বেই নতুন বাড়ি বা এ্যাপার্টমেন্ট হস্তান্তর করা হয়। যারা অনুরোধ করেছিল, বাড়ির বদলে তাদের আর্থিক ক্ষতিপূরণ দেয়া হয়। সর্বমোট ২২০০টি পরিবার এই ক্ষতিপূরণ প্রকল্পের আওতায় নতুন বাড়ি লাভ করেছিল।

রাশিয়ার কৃষিক্ষেত্র উন্নয়নে পুতিন সবসময়েই সরাসরি সমর্থন দিয়ে এসেছেন। তার মতে, ধাপে ধাপে রাশিয়া নিজেদের খাদ্য এবং কৃষির স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করছে। তিনি কৃষিক্ষেত্রে জড়িতদের সবসময়েই অন্যরকম উৎসাহ দিয়ে থাকেন। ২০১১ সালে পুতিন ঘোষণা দেন, ২০১১-১২ শিক্ষাবর্ষের মধ্যে শিক্ষকদের বেতন অন্তত প্রতিটি এলাকার অর্থনীতি অনুযায়ী সর্বোচ্চ বেতন গড়ের সমান হতে হবে। এই ব্যাপারটি তিনি ব্যক্তিগতভাবে তদারকি করেন। ২০১১ সালের নভেম্বরে পুতিন আবারও রাশিয়ার টুয়েলভথ্ পার্টি কনগ্রেস থেকে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে অংশগ্রহণের মনোনয়ন পান। ২০১২ সালের মার্চে তিনি আবারও রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন। এছাড়াও তিনি ২০১৩ সালের মধ্যে সেনাসদস্যদের পেনশনের হার উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি এবং তাদের বেতন ভাতার পরিমাণ বাড়ানোরও নির্দেশ দেন প্রশাসনকে।

পুতিনের সম্পদ:
রাশিয়ার নির্বাচন কমিশনে জমা দেয়া তথ্য অনুযায়ী, পুতিনের বাৎসরিক বেতন এক লাখ ১২ হাজার ডলার। কিন্তু দুই বছর আগে মার্কিন ট্রেজারি দফতরের কর্মকর্তারা গণমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, ভ্লাদিমির পুতিন একজন দুর্নীতিগ্রস্ত ব্যক্তি, যিনি তার সম্পদ অনেক বছর ধরে লুকিয়ে রেখেছেন। ২০০৭ সালের একটি সিআইএ নথিতে জানা যায়, তার ব্যক্তিগত সম্পদের পরিমাণ প্রায় ৪০ বিলিয়ন ডলার।

পুতিনের মহল

পুতিনের মহল
পুতিন যেভাবে অপরিহার্য হয়ে উঠলেন:
বিগত শতাব্দীতে বিশ্বে স্নায়ুযুদ্ধের শেষ দিনগুলোতে ভ্লাদিমির পুতিনের উত্থান শুরু। পূর্ব ইউরোপজুড়ে কমিউনিস্ট বিরোধী গণবিপ্লবের মুখে যখন বার্লিন প্রাচীর এবং কথিত ‘লৌহ যবনিকা’ ধসে পড়লো, তখন তিনি বেশ বেকায়দায় পড়েছিলেন। এই ঘটনা তার মনে দুটি গভীর এবং দীর্ঘস্থায়ী ছাপ রেখে গেছে। প্রথমত, গণঅভ্যুত্থানের প্রতি তার বিতৃষ্ণা। আর দ্বিতীয়টি হচ্ছে, সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙ্গে যাওয়ার পর মস্কোতে ক্ষমতার শীর্ষে শূন্যতা দেখা দিল। পুতিন নিজে ক্ষমতার শীর্ষে এ ধরণের শূন্যতার একটি উদাহরণ দিয়েছেন। ১৯৮৯ সালের ডিসেম্বরে ড্রেসডেনে বিক্ষুব্ধ জনতা কেজিবির সদর দফতর ঘেরাও করেছিল। তখন তিনি সাহায্য চেয়ে মস্কোতে যোগাযোগ করেন। কিন্তু তৎকালীন সোভিয়েত নেতা মিখাইল গর্বাচেভ ছিলেন ‌‌একেবারে নীরব। তখন তিনি সিদ্ধান্ত নিলেন কেজিবির দফতরে রাখা সব কাগজপত্র নষ্ট করে ফেলবেন। পরে একটি বইতে পুতিন এ ঘটনার স্মৃতিচারণ করেছেন, ‘আমরা এত কাগজপত্র পুড়িয়ে ফেলছিলাম যে এক পর্যায়ে চুল্লিটি বিস্ফোরিত হয়েছিল।’ পুতিনের জীবনী লেখক বরিস রেইটশুস্টার জার্মান নাগরিক। তার মতে, ‘পূর্ব জার্মানির সেই অভিজ্ঞতা যদি পুতিনের না থাকতো, তাহলে হয়তো আমরা ভিন্ন এক পুতিনকে দেখতাম।’

সমাপ্তি:

রাশিয়া বিশ্বের বৃহত্তম দেশ এবং এর ইতিহাস রক্তাক্ত ও বেদনাপূর্ণ। এক শতাব্দীর মধ্যেই এই দেশটি রাজতন্ত্রের পতন দেখেছে, দেখেছে সমাজতন্ত্রের উত্থান ও পতন, বিশ্বযুদ্ধের আঘাত সরাসরি এই দেশটিকে ক্ষতবিক্ষত করেছে, ত্রিশের দশকের ভয়াবহ অর্থনৈতিক মন্দা প্রত্যক্ষ করেছে। পুতিনের ক্ষমতাগ্রহণের আগ পর্যন্ত রাশিয়া একটি ভঙ্গুর দেশ হিসেবে বিশ্বে পরিচিত ছিল। পুতিন দেড় দশকেরও বেশি সময় ধরে রাশিয়াকে নিজ হাতে গড়েছেন। জনগনের জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন করেছেন, রাশিয়ার ভাবমূর্তি ও সম্মান বিশ্বমঞ্চে পুনুরুদ্ধার করেছেন। রাশিয়া ও নিজেকে আবারও বিশ্বের একটি অন্যতম সুপারপাওয়ারে পরিনত করেছে।

অনেকের মতেই সাম্প্রতিক কালে পুতিনের মত করে রাশিয়াকে আর কেউ বোঝেনি বা সেই অনুযায়ী চালাতেও পারেনি। তেল, গ্যাস, তামা এবং এ্যালুমিনিয়ামের মত প্রাকৃতিক সম্পদগুলোর সঠিক ব্যবহার পুতিন নিজ দায়িত্বে নিশ্চিত করেছেন। স্পাই হিসেবে নিজের সাবেক কাজের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে তিনি রাশিয়ান ইন্টেলিজেন্সকে ঢেলে সাজিয়েছেন। একজন কেজিবি গুপ্তচর, যাকে একটা সময়ে কেউই চিনত না, আজ তিনি রাশিয়ার শুধু প্রেসিডেন্টই না, পুরো জাতির সুপারহিরো।

সূত্র: রিদ্মিক নিউজ ।

আর পড়তে পারেন