রবিবার, ৫ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

প্রকাশ্যে হুমকি দিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা ও গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়াসহ নানাবিধ নির্যাতন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১৬, ২০২১
news-image

ডেস্ক রিপোর্টঃ

কুমিল্লায় এক নারীকে প্রকাশ্যে হুমকি দিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা ও শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠেছে। হুমকি প্রদানের সময় ধারণকৃত ভিডিওতে স্পৃষ্ট ওই নারী ও তার মেয়েকে ধর্ষণের কথা বলছেন অভিযুক্ত ব্যক্তি। প্রকাশ্যে হুমকি দিয়ে ধর্ষণ, শ্লীলতাহানি ও নির্যাতনের ঘোষণার একটি ভিডিও ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে বুড়িচং উপজেলার পূর্ণমতি এলাকায়। এ ঘটনায় জড়িত মাহমুদুল হাসান টিটুর (৪৮) বিরুদ্ধে কুমিল্লার নারী ও শিশু নির্যাতন আদালতে মামলা করেছেন ভুক্তভোগী নারী।

ওই নারী ও তার স্বামীর অভিযোগ, আদালতে মামলা করায় আসামি টিটু আরও বেপরোয়া আচারণ করছে। সে তার পরিবারের সদস্যদের ধর্ষণ, হত্যা এবং আহত করার হুমকি দিচ্ছে।

ওই নারী জানান, টিটু প্রায় তাকে উত্ত্যক্ত করতো। সর্বশেষ ১৪ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় সে ওই নারীর বাড়িতে প্রবেশ করে ধর্ষণ চেষ্টা করে। এসময় ওই নারীর চিৎকারে বেশ কয়েকজন এগিয়ে এলে টিটু তাকে আহত করে পালিয়ে যায়। এরপর তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হয়। ঘটনার চারদিন পর ১৮ ফেব্রুয়ারি ভুক্তভোগী নারী বাদী হয়ে আদালতে মামলা করেন।

তিনি আরও বলেন, ‘এর আগে ২০১৯ সালের অক্টোবরে তার গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিয়েছিল টিটু। সেই সঙ্গে মাথার চুলও কেটে দিয়েছিল। এই ঘটনায় থানায় অভিযোগ দিতে গেলেও পুলিশ তা আমলে নেয়নি। ৪-৫ বার সে আমার সঙ্গে খারাপ আচরণ করেছে। সর্বশেষ আমার স্বামী বাড়িতে না থাকার সুযোগে টিটু আমাকে ও আমার মেয়েকে প্রকাশ্যে ধর্ষণের হুমকি দেয়। পরবর্তী সময়ে আমার বাড়িতে প্রবেশ করে যৌন নির্যাতনের চেষ্টা করে। আমি বীর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডারের মেয়ে হয়েও বর্তমানে নিরুপায়। দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে। মান-সম্মান শেষ হয়ে গেছে। এছাড়া আমার স্বামীর বিরুদ্ধে পাঁচটি ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দিয়েছে।’

এদিকে ঘটনার বেশ কয়েকটি ভিডিও ধারণ করেন নির্যাতনের শিকার ওই নারীর মেয়ে। ভিডিওতে দেখা গেছে, ভুক্তভোগী ওই নারীকে অভিযুক্ত টিটু প্রকাশ্যে অশালীন ভাষায় গালিগালাজ করছে। এক পর্যায়ে ওই নারী ও তার মেয়েকে ধর্ষণের হুমকি দেয়। এসময় উপস্থিত অনেকে তাকে (টিটু) শান্ত করার চেষ্টা করেন। ভিডিওতে দেখা যায় ভুক্তভোগী নারীর মেয়ে বলছেন, ‘এর আগেও আপনি (টিটু) আমার মাকে গালিগালাজ করেছেন। গায়ে হাত তুলেছিলেন। নির্যাতন করেছিলেন।’

ভুক্তভোগী ওই নারীর স্বামী কামরুল হাসান মুছা সোমবার রাতে মোবাইল ফোনে জানান, পারিবারিক বিরোধের জেরে তাদেরকে প্রায় হয়রানি করা হচ্ছে। বিশেষ করে তার স্ত্রী ও মেয়েকে বিভিন্নভাবে হয়রানি করা হচ্ছে। অভিযুক্ত টিটুর পক্ষে স্থানীয় সরকার দলীয় একজন নেতা কাজ করতে পারে বলে জানান তিনি। বলেন, ‘না হলে আমার বিরুদ্ধে পাঁচটি মিথ্যা হলেও তার বিরুদ্ধে আমি মামলা করতে গেলে পুলিশ আমলে নেয় না। ২০১৯ সালে আমার স্ত্রীর গায়ে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হলেও মামলা করতে পারিনি। নিরুপায় হয়ে এবার আদালতের শরণাপন্ন হয়েছি। আদালতে করা ভুক্তভোগী ওই নারী মামলাটি বর্তমানে তদন্ত করছে বুড়িচং থানার এসআই বিনোদ।

মামলাটি ভিন্ন দিকে নেওয়ার চেষ্টা চলছে বলে অভিযোগ রয়েছে– এমন প্রশ্নে পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, ‘মামলা হলে দুই পক্ষই তদবির করার চেষ্টা করে। আমি তদন্তের যেটা পাবো তাই আদালতে জমা দেব।’

টিটু জানান, ভুক্তভোগী ওই নারী তার বড় ভাইয়ের স্ত্রী। জমি সংক্রান্ত বিরোধ নিয়ে তাদের নামে পাঁচটি মামলা হয়েছে। তবে বাকি অভিযোগগুলোর মধ্যে ধর্ষণের চেষ্টা সত্য নয়। ভিডিওতে ধর্ষণের হুমকির বিষয়ে জানতে চাইলে টিটু প্রশ্নের উত্তর দিতে পারি।

এ বিষয়ে বুড়িচং থানার ওসি মোজাম্মেল হক জানান, ভুক্তভোগী নারী আদালতে মামলা করেছেন। আদালত থানা পুলিশকে ঘটনাটি তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বিষয়টি তদন্ত করছেন। দ্রুতই তদন্ত শেষ হলে আদালতে প্রতিবেদন জমা দেওয়া হবে। পরবর্তীতে আদালত যা নির্দেশ দেবেন আমরা সেই ব্যবস্থা নেবো।

আর পড়তে পারেন