রবিবার, ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

বর্ষায় মাথা গোঁজার ঠাঁই নেই বিধবা হাজেরা বেগমের

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ৩, ২০১৮
news-image

 

পাপ্পু মাহমুদ:

বর্ষায় মাথা গোঁজার ঠাঁই নেই বিধবা হাজেরা বেগমের। আকাশে মেঘ দেখলেই আশ্রয় নিতে হয় অন্যের ঘরে। মাঝে মাঝে রাতে বৃষ্টির পানির র্স্পশে আতঙ্কে উঠেন তিনি। তবুও স্বামীর ভিটে আকড়ে আছেন ছেলে সন্তানহীন হাজেরা বেগম। হাজেরা বেগমের ইচ্ছে তাঁর মৃত্যুটাও যেন হয় মৃত স্বামীর ভিটেমাটিতে। কিন্তু স্বামীর রেখে যাওয়া ঘরটিও মেরামতের সামর্থ্য নেই তাঁর। কারণ হাজেরা বেগমের বয়স ৫৬পার হলেও এখনো বিধবা বা বয়স্ক ভাতা কোনটাই তাঁর ভাগ্যে জুটেনি। আর কবে জুটবে তারও সঠিক আশ^াস দিতে পারেনি স্থানীয় জনপ্রতিনিধি।

হাজেরা বেগম চাঁদপুর জেলার হাজীগঞ্জ উপজেলার ৮নং হাটিলা পূর্ব ইউনিয়নের লাওকোরা গ্রামের মুন্সি বাড়ির মৃত আব্দুল করিমের স্ত্রী। আব্দুল করিম প্রায় ৮বছর আগে মৃত্যুবরণ করেন। তাদের দুই মেয়ে শশুরবাড়ি থাকলেও ছেলে সন্তান না থাকায় হাজেরা বেগম তাঁর স্বামীর ভিটায় একা বসবাস করে আসছেন। মেয়েদের সংসারেও রয়েছে আর্থিক অনটন। তাই এলাকার ও বাড়ির লোকজনের সহযোগিতায় সংসার চলে। কাল বৈশাখী ঝড়ে জড়াজীর্ণ ঘরটি দুমড়ে মুচড়ে পড়ে। সে দুমড়ে মুচড়ে পড়া ঘরেই তিনি থাকছেন। কারণ মেরামতের সামর্থ্য নেই তাঁর। ঝড় বৃষ্টিতে আশ্রয় নেন অন্যের ঘরে। কিন্তু কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে বাস অনুপযুক্ত হয়ে পড়েছে ঘরটি।

উপজেলা নির্বাহী কর্তকর্তা অফিস সূত্রে জানা যায়, সরকারী বেসরকারী উদ্যোগে হাজীগঞ্জ উপজেলায় গৃহহীনদেরকে দুইশত ১২টি ঘর প্রদান করা হয়েছে। এর মধ্যে পৌরসভায় ২১টি, ১নং রাজারগাঁও ইউনিয়নে ৩১টি, ২নং বাকিলা ইউনিয়নে ১৫টি, ৩নং কালচোঁ উত্তর ইউনিয়নে ২০টি, ৪নং কালচোঁ দক্ষিন ইউনিয়নে ১৩টি, ৫নং সদর ইউনিয়নে ৩৫টি, ৬নং বড়কুল পূর্ব ইউনিয়নে ১০টি, ৭নং বড়কুল পশ্চিম ইউনিয়নে ১১টি, ৮নং হাটিলা পূর্ব ইউনিয়নে ১৪টি, ৯নং গর্ন্ধব্যপুর উত্তর ইউনিয়নে ১২টি, ১০নং গর্ন্ধব্যপুর দক্ষিন ইউনিয়নে ১৩টি, ১১নং হাটিলা পশ্চিম ইউনিয়নে ১০টি ও দ্বাদশগ্রাম ইউনিয়নে ৭টি ঘর নির্মান করে দেয়া হয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বৈশাখী বড়–য়া জানান, আমরা আরো কিছু গৃহহীনদের তালিকা করে জেলা অফিসে আবেদন করেছি। যদি বরাদ্দ পাই তাহলে বাকি গৃহহীনদের ঘর করে দিবো। বর্তমানে আমাদের হাতে কোন বরাদ্দ নেই।

 

আর পড়তে পারেন