মঙ্গলবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বাংলাদেশের গর্ব আয়রনম্যান সামছুজ্জামান আরাফাত

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ২১, ২০২১
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট:

মোহাম্মদ সামছুজ্জামান আরাফাত । চলতি বছরের ১৮ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের সেন্ট জর্জে অনুষ্ঠিত আয়রনম্যান ৭০.৩ বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নেন। প্রতিযোগিতার নির্দিষ্ট সময়ের কম সময়, ৫ ঘণ্টা ১৫ মিনিট ৪৩ সেকেন্ড সময় নিয়ে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে চ্যালেঞ্জ সম্পন্ন করেন। এই সময়ে আরাফাত ১.৯৩ কিলোমিটার সাঁতার, ৯০ কিলোমিটার সাইক্লিং ও ২১.১ কিলোমিটার দৌড়ান। এ ছাড়া তিনি যুক্তরাষ্ট্রের সল্ট লেক সিটিতে ব্রাইনম্যান ট্রায়াথলনের অলিম্পিক ডিসট্যান্স ট্রায়াথলনে বিজয়ী হিসেবে তৃতীয় স্থান অর্জন করেন। ২০১৭ সালে আরাফাত দৌড়ে পাড়ি দিয়েছিলেন টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়ার এক হাজার কিলোমিটারের বেশি পথ। ২০১৫ সাল থেকে পরপর সাত বছরে সাতবার বাংলা চ্যানেল সাঁতার কেটে পাড়ি দিয়েছেন।

 

মোহাম্মদ সামছুজ্জামান আরাফাত। ২০১৭ সালে দৌড়ে পাড়ি দিয়েছিলেন টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া, যা প্রায় এক হাজার কিলোমিটারের বেশি পথ। বাংলাদেশে প্রথম তরুণ হিসেবে এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে দৌড়ে যাওয়ার এই কৃতিত্ব একমাত্র তারই। ২০১৫ সালে বাংলা চ্যানেল, অর্থাৎ টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিন সাঁতার কেটে যান। এরপর টানা সাত বছরে আরাফাত সাতবার বাংলা চ্যানেল সাঁতার কেটে পাড়ি দিয়েছেন। এমন কৃতিত্ব গড়ার পর রোমাঞ্চ যেন পিছু ছাড়ে না তার। এই রোমাঞ্চের কারণেই দেশ-বিদেশের নানা অভিযানে অংশ নিতে থাকেন তিনি। এরই ধারাবাহিকতায় তিনি প্রথম আয়রনম্যান আয়োজনে অংশ নেন ২০১৭ সালে মালয়েশিয়াতে। এরপর ২০১৯ সালে আয়রনম্যান ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে এবং একই বছর আয়রনম্যান মালয়েশিয়া ও ২০২০ সালে থাইল্যান্ডে অনুষ্ঠিত আয়রনম্যান ৭০.৩-এ অংশ নেন আরাফাত।

গত ১৮ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের সেন্ট জর্জে অনুষ্ঠিত আয়রনম্যান ৭০.৩ বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নেন আরাফাত। যেখানে ১.৯৩ কিলোমিটার সাঁতার, ৯০ কিলোমিটার সাইক্লিং ও ২১.১ কিলোমিটার দৌড়ান। এই কঠিন চ্যালেঞ্জ সম্পন্ন করতে আরাফাত সময় নেন মাত্র ৫ ঘণ্টা ১৫ মিনিট ৪৩ সেকেন্ড, যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়েও অনেক কম। এই ইভেন্টে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশের হয়ে এককভাবে প্রতিনিধিত্ব করেন তিনি। প্রতিযোগিতায় নিজের বয়স ক্যাটাগরিতে আরাফাত ২৮৮ জন প্রতিযোগীর মধ্যে ১৫৩তম স্থান অর্জন করেন। আয়রনম্যান ৭০.৩ বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপ সম্পর্কে আরাফাত বলেন, ‘আয়রনম্যান ৭০.৩ বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপ- ২০২১ ইভেন্টে ৮০ দেশের তিন হাজার ৫৫৫ জন কোয়ালিফাইড ট্রায়াথলেট অংশগ্রহণ করার সুযোগ পেয়েছিলেন। বাংলাদেশ থেকে আমি অংশগ্রহণ করার সুযোগ পাই। বাংলাদেশকে ট্রায়াথলনের বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপে নিয়ে আসতে পেরে আমি খুব আনন্দিত ও গর্বিত। সফলভাবে ৫ ঘণ্টা ১৫ মিনিট সময় নিয়ে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে এ চ্যালেঞ্জ সম্পন্ন করি। এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের সল্ট লেক সিটিতে ব্রাইনম্যান ট্রায়াথলনের অলিম্পিক ডিসট্যান্স ট্রায়াথলনে তৃতীয় স্থান অর্জন করি, যা বাংলাদেশের ট্রায়াথলনে গ্লোবাল স্টেজে একটা বড় মাইলফলক হয়ে থাকবে।’

যেভাবে শুরু:

একটু পেছনে ফিরে শুরুর কথা জানতে চাইলে আরাফাত বলেন, ‘আমি ছোটবেলা থেকেই যে খেলাধুলা পছন্দ করতাম খুব, তা কিন্তু নয়। খেলাধুলার সঙ্গে খুব ভালোভাবে যুক্তও ছিলাম না। বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে মূলত স্পোর্টসের সঙ্গে যুক্ত হই। একসময় পর্বতারোহণটাকে গুরুত্ব দিতে থাকি। পর্বতারোহণের জন্য প্রশিক্ষণও নিই। এ জন্য লম্বা দূরত্বে দৌড় শুরু করি। ২০১৩ সালে আয়রনম্যান ট্রায়াথলন সম্পর্কে জানতে পারি। এর পর থেকে ধাপে ধাপে আয়রনম্যান ট্রায়াথলনের জন্য প্রস্তুতি নিয়ে মালয়েশিয়া, ইউরোপ, থাইল্যান্ড ও যুক্তরাষ্ট্রের আয়রনম্যানে অংশগ্রহণ করি এবং তা সফলভাবে সম্পন্ন করি। আর এতে তাদের দেওয়া নির্ধারিত সময়ের চেয়েও কম সময়ে ইভেন্টগুলো সম্পন্ন করি। ২০১৭ সালে আয়রনম্যান মালয়েশিয়াতে আমার সময় লাগে মাত্র ১২ ঘণ্টা ৪৩ মিনিট। ২০১৯-এ আয়রনম্যান ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপ-২০২১, ফ্রাঙ্কফুর্টে অংশগ্রহণ করে ১২ ঘণ্টা ১৫ মিনিট সময়ে সম্পন্ন করি। এরপর আয়রনম্যান মালয়েশিয়া ২০১৯-এ পুনরায় অংশগ্রহণ করে ১১ ঘণ্টা ৪৮ মিনিটে সম্পন্ন করি। ২০২০-এ থাইল্যান্ডের বাংসায়েনে আয়রনম্যান ৭০.৩-এ অংশগ্রহণ করি, যেখানে ১.৯ কিলোমিটার সাঁতার, ৯০ কিলোমিটার সাইক্লিং এবং ২১.১ কিলোমিটার দৌড় মাত্র ৫ ঘণ্টা ৫ মিনিট সময়ে সম্পন্ন করি।’

বেড়ে ওঠা ও বর্তমান ব্যস্ততা:

১৯৯০ সালের ১০ জানুয়ারি নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ থানার মুছাপুর গ্রামে আরাফাতের জন্ম। গ্রামেই তার বেড়ে ওঠা। ২০০৬ সালে মাধ্যমিক পরীক্ষায় পাস করে আরাফাত উচ্চ মাধ্যমিকে ভর্তি হন ঢাকা কমার্স কলেজে। এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মার্কেটিংয়ে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেন। আরাফাতের কর্মজীবন শুরু হয় ২০১৬ সালে; এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংকে চাকরির মাধ্যমে । ২০১৭ সালে ৩৫তম বিসিএসের নন-ক্যাডারে সমাজসেবা অধিদপ্তরে সুপারিশপ্রাপ্ত হন । এরপর ২০১৮ সালে বাংলাদেশ ব্যাংকে সহকারী পরিচালক হিসেবে যোগদান করেন ।

পুরস্কার-সম্মাননা:

আরাফাত পিকেএসএফের তৃণমূল পর্যায়ের ক্রীড়া কর্মসূচির ২০১৭ সালের ক্রীড়া দূতের সম্মাননায় ভূষিত হন। এ ছাড়া বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে প্রায় অর্ধশত পুরস্কার জেতেন। তিনি মেঘনা গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজ ও আকাশ ডিটিএইচের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর হিসেবে রয়েছেন। আরাফাতের আয়রনম্যান ৭০.৩ বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নিতেও সহযোগিতা করছে মেঘনা গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজ, আকাশ ডিটিএইচ, ডিএইচএস মোটরস এবং বাংলাদেশ ফাইন্যান্স লিমিটেড।

আগামীর স্বপ্ন:

পরপর সাত বছরে সাতবার বাংলা চ্যানেল সাঁতরে পাড়ি দেওয়া আরাফাত সামনের দিনে পাড়ি দিতে চান ইংলিশ চ্যানেল। এ ছাড়া খেলাধুলার মাধ্যমে সুস্থ বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখেন আরাফাত। খেলাধুলার বিশ্বমঞ্চে বাংলাদেশের ভিত আরও মজবুত করতে চান। সেই লক্ষ্যে কাজও করে যাচ্ছেন। তরুণদের অনুপ্রাণিত করছেন এবং আরও ব্যাপকভাবে অনুপ্রাণিত করতে চান রোমাঞ্চপ্রিয় আরাফাত। তার সেই স্বপ্নের পথে নিশ্চয়ই পাড়ি দেবে আগামীর বাংলাদেশ!

সূত্র: সমকাল।

আর পড়তে পারেন