শুক্রবার, ২০শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

বিপিএল জুয়ায় কাঁপছে চাঁদপুর: বিপথে যুবসমাজ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ২৬, ২০১৯
news-image

মাসুদ হোসেন,চাঁদপুর:
বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ (বিপিএল) ক্রিকেট খেলা নিয়ে সমগ্র দেশ যখন উন্মাদনায় আছে ঠিক সে মূহুর্তে চাঁদপুরের আট উপজেলার বিভিন্ন এলাকার যুব সমাজ ব্যস্ত হয়ে পড়ছে বিপিএল এর জুয়া খেলায়। প্রশাসনের তেমন কোনো নজরদারি না থাকার ফলে ক্রমশ এর বিস্তার লাভ করে যুবসমাজ বিপথ গামী হচ্ছে। জুয়ায় টাকা হেরে গিয়ে অনেক যুবক চুরি ছিনতাই সহ নানা ধরনের অপরাধ মূলক কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়ছে। ’খেলা হয় ঢাকায় আর জুয়া চলে এলাকায়’ এমন পরিস্থিতি পুরো জেলা জুড়েই।

এক সময় তাস ছিল জুয়া খেলার অন্যতম মাধ্যম। আর যারা তাস খেলত তারা লুকিয়ে গোপন কোন আস্তানায় জুয়ার আসর বসাতো। তবে এখন সময় পাল্টে গেছে। এখন প্রকশ্যে জুয়া খেলা চললেও কারো করার কিছু থাকে না। গত কয়েক বছর থেকে বিপিএল খেলা শুরুর সময় থেকে ক্রিকেট জুয়ায় আসক্ত হয়ে পরেছে তরুন, যুবকসহ অনেকেই। ঘরে বা নিজ কর্মস্থানে বসেই মোবাইল ও বিকাশ একাউন্টের মাধ্যেমে ক্রিকেট জুয়া খেলছেন। জুয়া খেলায় বাজি ধরে নিজের সর্বস্ব হারিয়ে চুরি চিন্তাই সহ নানা ধরনের অপরাধ মুলক কর্মকান্ডের সাথে জড়িয়ে পড়ছে এক শ্রেণীর যুবসমাজ। বিপিএল ক্রিকেট খেলা শুরু হওয়ার পর থেকেই চাঁদপুরের প্রত্যান্ত অঞ্চলে এর প্রভাব ছড়িয়ে পড়ে। কিন্তু এক শ্রেণীর বিপথ গামী যুবসমাজ খেলাটিকে জুয়ায় রুপান্তরিত করে। প্রতিটি খেলা তারা আগ্রহের সাথে দেখে টিভির পর্দায়। খেলার ধরন বুঝে তারা বাজি ধরে ২০ ওভার খেলায় কত রান হবে, কোন দল জয়ী হবে, কোন দল হারবে। আবার কোন ৫ ওভারে কত রান হবে, কয়টি উইকেট পাবে, এইরকম নানান হিসেব নিকেশ করে তারা জুয়ার বাজি ধরে। এভাবে প্রতিদিন ৮ উপজেলার বিভিন্ন হাট বাজারে লক্ষ লক্ষ টাকার বাজি ধরা হয় বলে জানা গেছে। এই জুয়ার সাথে জড়িয়ে পড়ছে স্কুল কলেজ, বেকার যুবকেরা, রিক্সা অটো ভ্যান চালক, সেলুন, চায়ের দোকান, ব্যবসায়ীরা থেকে শুরু করে সমাজের বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষেরা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন অভিভাবক ক্ষোভ নিয়ে বলেন ক্রিকেটের বড় কোন আসর হলেই তাদের ছেলেরা বাড়িতে ঠিকমত থাকে না। বাসার থেকে এইটা লাগবে, ওইটা লাগবে বলে টাকা পয়সা নেয়। কখনো টাকা পয়সা পরিবারের পক্ষ থেকে না দিতে পারলে তারা বাসায় গন্ডগোল সৃষ্টি করে। চাঁদপুরের প্রশাসনের কাছে অসহায় বিভিন্ন অভিভাবকদের দাবি এই ক্রিকেট জুয়া খেলাটা বন্ধ করা হোক। না হলে দিন দিন অপরাধের সংখ্যা বেড়েই চলবে।

আর পড়তে পারেন