বুধবার, ২৪শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা পরিষদ উপনির্বাচন:মনোনয়ন দৌড়ে অর্ধ ডজন নেতা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ৭, ২০২০
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:

ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা পরিষদ উপনির্বাচনকে ঘিরে মনোনয়ন দৌড়ে রয়েছেন দুদলের অর্ধডজন নেতা। এর মধ্যে মনোনয়নকে ঘিরে উপজেলা আ’লীগেই দুগ্রুপে দ্বন্দ্ব চলছে।   নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে মাত্র এক বছর চার মাস পর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা আলহাজ মো. আবু তাহের মারা যাওয়ার পর থেকেই দুটি দলের নেতারা মনোনয়নের জন্য দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। এ উপজেলায় আওয়ামী লীগ এবং বিএনপির প্রায় সমান অবস্থান বলে নির্বাচনে যোগ্য প্রার্থী মনোনয়নও একটি বড় ফ্যাক্টর বলে মনে করছেন ভোটার ও তৃণমূল নেতাকর্মীরা।

জানা গেছে, বিএনপি দুই নেতার মধ্য থেকে একজনকে প্রার্থী মনোনীত করতে দফায় দফায় বৈঠক করছে। এ দুই নেতা হলেন উপজেলা বিএনপির সভাপতি সরকার জহিরুল হক মিঠু ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক মহসীন কবীর সরকার। দুজনই মনোনয়ন চূড়ান্ত করতে কেন্দ্রে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। তবে বিএনপির কাছে আওয়ামী লীগের চেয়েও প্রয়াত চেয়ারম্যান আলহাজ মো. আবু তাহের পরিবারই মূল ফ্যাক্টর।

এদিকে উপজেলা আওয়ামী লীগও বর্ধিত সভা করে তাদের প্রার্থীর একটি তালিকা জেলায় পাঠিয়েছে। জেলা থেকে তা কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে। গত ১৬ সেপ্টেম্বর আলহাজ মো. আবু তাহের মারা যান। তিনি মারা যাওয়ার ১৩ দিনের মাথায় উপজেলা আওয়ামী লীগ বর্ধিত সভা করে প্রার্থী তালিকা করে। তালিকায় আবু তাহের পরিবারের কাউকে রাখা হয়নি। তালিকায় রয়েছে উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি জাহাঙ্গীর খান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আবদুল বারী ও আওয়ামী লীগ নেতা মনিরুল হকের নাম। এ নিয়ে ওই বর্ধিত সভায়ই হট্টগোল হয়। সভায় তৃণমূল নেতাকর্মীদের দাবি ছিল, আবু তাহের পবিবার থেকে মনোনয়ন না দিলে বিজয় আনা কঠিন হবে। তাই আবু তাহেরের ছোট ভাই বিশিষ্ট শিল্পপতি, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক অর্থ সম্পাদক হাজী আবু জাহের অথবা আবু তাহেরের ছেলে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবু তৈয়ব অপিকে মনোনয়ন দেওয়ার। সে দাবি উপেক্ষা করায় নেতাকর্মীদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

কয়েকজন শীর্ষ নেতা জানান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর খান চৌধুরী নানা কারণে বিতর্কিত ব্যক্তি। এর আগেও তিনি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান থাকায় মাদক, দুর্নীতিসহ অনেক বিতর্কের সৃষ্টি করেছেন। তার চেয়ে বড় কথা, চট্টগ্রাম বিভাগে মাদক, চোরাকারবারি ও তাদের পৃষ্ঠপোষককারীদের চিহ্নিত করতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের তালিকায় ১২ নম্বরে জাহাঙ্গীর খান চৌধুরীর নাম রয়েছে। এসব কারণে তিনি উপজেলাজুড়ে এক বিতর্কিত ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত। তার ইমেজও জনগণের কাছে তলানিতে রয়েছে। আর বাকি দুই নেতা বিএনপির প্রার্থীদের চেয়ে কম পরিচিত বলে আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতাকর্মীদের কাছেই তাদের ইমেজ সংকট রয়েছে। নির্বাচনী বৈতরণী পার হতে তাদের সেই সক্ষমতাও নেই বলে অনেকে জানান।

নেতাকর্মীরা বলেন, গত ২০১৪ সালের ১৫ মার্চ আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন না পেয়ে আলহাজ মো. আবু তাহের স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছিলেন। তখন তিনি ২০ হাজার ভোট পেয়েছিলেন। ওই নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী ভোট পান ২৪ হাজার আর আওয়ামী লীগ প্রার্থী ভোট পান ২৬ হাজার। স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েও পারিবারিক ইমেজে আবু তাহের প্রায় সমান্তরাল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ছিলেন। আর গত ২০১৯ সালের ৩১ মার্চের নির্বাচনেও মনোনয়নবঞ্চিত হয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে আলহাজ মো. আবু তাহের ভোট পান ৪০ হাজার ৬৭৩। আর আওয়ামী লীগ প্রার্থী জাহাঙ্গীর খান চৌধুরী ভোট পান ২৪ হাজার ৯৭৮টি। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে প্রায় ১৫ হাজার ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হন আবু তাহের। তার পরিবার থেকে কাউকে প্রার্থী দিলে ক্লিন ইমেজের কারণে তারা সহজেই নির্বাচনী বৈতরণী পার হতে পারবেন বলে মনে করেন নেতাকর্মীরা।

এদিকে দলীয় মনোনয়নের জন্য এবং কেন্দ্রে নাম পাঠাতে আবু তৈয়ব অপি উজেলা ও জেলা আওয়ামী লীগের মাধ্যমে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ ও প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে লিখিত আবেদন করেছেন।

এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা যুবলীগের সভাপতি সুলতান আহমেদ বলেন, ব্রাহ্মণপাড়ায় আবু তাহের পরিবারের বিকল্প এখনো সৃষ্টি হয়নি। তাদের সততা ও আদর্শই তাদের তৃণমূলের প্রাণের গভীরে পৌঁছাতে পেরেছে। এ পরিবার থেকে যে কাউকে মনোনয়ন দিলেই বিএনপির ভরাডুবি হবে। এ পরিবার বিএনপির কাছে এক আতঙ্কের নাম। তৃণমূলের ৮০ ভাগ মানুষের কাছে তাহের পরিবারটি জনপ্রিয়।

ব্রাহ্মণপাড়া সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতা হাজী জসীম উদ্দিন বলেন, সত্যি কথা বলতে কী, দলের ভেতরে-বাইরে এমনকি সাধারণ জনগণের কাছেও তাহের পরিবার খুব জনপ্রিয়। এ কারণে দলের কতিপয় নেতা ঈর্ষান্বিত হয়ে কেন্দ্রে এ পরিবারের কারও নাম পাঠাননি। তবে এ উপজেলায় আওয়ামী লীগকে আরও শক্ত অবস্থানে নিতে হলে ওই পরিবারের বিকল্প নেই।

সূত্র: আমাদের সময়।

আর পড়তে পারেন