শুক্রবার, ১৯শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

মুরাদনগরে হয়রানিমুক্ত ভূমি সেবা দিতে এসিল্যান্ডের ব্যাতিক্রমী উদ্যোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ২২, ২০১৭
news-image

নাজিম উদ্দিন ঃ
ভূমি সংক্রান্ত সকল সেবা হয়রানি মুক্ত করতে ব্যাতিক্রমি কিছু উদ্যোগ গ্রহন করেছেন মুরাদনগর উপজেলার সহকারি কমিশনার (ভূমি) এসিল্যান্ড মোসাম্মৎ রাশেদা আক্তার।
জানা যায় অতীতের বিভিন্ন সময়ে দালাল চক্রের মাধ্যমে অতিরিক্ত টাকা এবং ভূমির নামজারির ক্ষেত্রে ভূয়া কাগজপত্রের কারনে জমির মালিকদের বিভিন্ন হয়রানির কথা বিবেচনা করে ভূমি সংক্রান্ত বিভিন্ন সেবার সরকার নির্ধারিত ফি এবং সেবার নিয়ম ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের বিবরনের সকল তথ্য জানিয়ে উপজেলা ভূমি অফিসের দেয়ালে লিখে জনসচেতনতা তৈরী করেছেন।
জনগনের সকল প্রকার অভিযোগ জানতে খুলেছেন একটি অভিযোগ বক্স, জনগনের দেয়া অভিযোগ গুলোতে যেন কেউ হস্তক্ষেপ করতে না পারে সে কারনে বক্সের চাবির দায়িত্বে রয়েছেন এসিল্যান্ড নিজে। সোস্যাল মিডিয়ায় উপজেলা ভূমি অফিস নামে ফেইসবুক পেইজ খুলেছেন সেখানেও নেয়া হচ্ছে বিভিন্ন অভিযোগ এবং দেয়া হচ্ছে বিভিন্ন পরামর্শ।
ভূমি সেবা প্রক্রিয়া সহজ করার লক্ষে তৈরী করেছেন সেবাবক্স, সেখানেও দেয়া রয়েছে যাবতীয় আবেদনপত্রের নমুনা ও যথাযথ প্রক্রিয়া। এক কথায় ভূমি সেবা হয়রানি ও দালালমুক্ত করতে সকল পদক্ষেপ গ্রহন করেছেন এসিল্যান্ড।
এছাড়াও ভূমি সেবার জন্য আসা সর্ব সাধারনের বিশ্রামের জন্য ভূমি অফিস চত্বরে মৃত্তিকার বান্ধব নামে উপজেলায় প্রথমবারের মত একটি গোলঘর তৈরি করছেন। যা সকলের নজর কেড়েছে। উপজেলার এছাড়াও অফিসের যাবতীয় নথিপত্র নিরাপদ ভাবে সংরক্ষনের অফিস অভ্যন্তরে রের্কডরুম সংস্ককার করে নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছেন।
এছাড়াও ইউনিয়ন ভূমি অফিস গুলোতে ডিজিটাল পদ্ধতি চালু করার লক্ষে ভূমি সংস্কার বোর্ডের অর্থায়নে বিভিন্ন ভূমি অফিসে ল্যাপটপ, স্ক্যানার ও প্রিন্টার প্রদান করেন। এছাড়াও ভূমি সংস্কার বোর্ডের অর্থায়নে ইউনিয়ন ভূমি অফিসগুলোতে যাবতীয় নথিপত্র সংরক্ষনের জন্য ষ্টীলের আলমারি, তাকসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম প্রদান করেন।
উপজেলার রানীমুহুরী গ্রামের বয়োবৃদ্ধ হাজী মনিরুল হক এসেছেন নামজারি করতে। তার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি নামজারির আবেদন করতে এসেছি, কোন প্রকার হয়রানি ছাড়া ও দালালমুক্ত ভাবে আমি আমার আবেদন জমা দিয়েছি। বর্তমান এই পরিবেশে আমরা অনেক খুশি।
ভুবনঘর গ্রামের মৃত এমএ কাদের কবিরের স্ত্রী সুনন্দা কবির বলেন আমরা ঢাকায় থাকি,আমি জমির নাম জারির জন্য গিয়েছিলাম উপজেলা ভূমি অফিসে এবং কোন প্রকার হয়রানি অতিরিক্ত টাকা ছাড়া আমার জমির নামজারি হয়েছে। আমি এসিল্যান্ডের ব্যবহারে অত্যন্ত খুশি, এমন অফিসার সহসায় হয়না।
এব্যাপারে সহকারি কমিশনার ভূমি রাশেদা আক্তার বলেন জনসাধারনকে হয়রানিমুক্ত ভাবে ভূমিসেবা দেয়াই আমার লক্ষ্য এছাড়া উপজেলা ভূমি অফিস এখন শতভাগ দালাল মুক্ত। দেয়াল লিখনের মাধ্যমে আমি গনসচেতনতা তৈরির চেষ্টা করেছি যেন মানুষ কোথাও নির্ধারিত ফি’র অতিরিক্ত টাকা না দেয়।

আর পড়তে পারেন