মঙ্গলবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

শিক্ষার্থীদের জন্য কোভিড ভ্যাকসিন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ৩, ২০২১
news-image

 

নাজমুল হুদা খান:
কোভিড-১৯ অতিমারীর পর থেকে বিশ্বব্যাপী আক্রান্তের সংখ্যা ২৪ কোটি ৭০ লাখের ওপর এবং মৃতের সংখ্যা ৫০ লাখ পেরিয়েছে। এর মধ্যে ১৮ বছরের কম বয়সী ছেলেমেয়েদের আক্রান্তের হার প্রায় ১৩ শতাংশ; মৃতের হার প্রায় শতকরা ১ ভাগ। ১১ মার্চ ২০২০ সালে কোভিড-১৯ কে বৈশ্বিক অতিমারী ঘোষণা করে প্রাণসংহারী ব্যাধির প্রতিরোধে বিভিন্ন গাইডলাইন প্রদান করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, সিডিসি ও ইউরোপিয়ান মেডিকেল ইউনিয়ন প্রভৃতি সংস্থাসমূহ। সে নির্দেশনার আলোকে প্রতিরোধের অংশ হিসেবে ২২৯টি দেশ ও অঞ্চলে বিভিন্ন মেয়াদে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহ বন্ধ ছিল।

ইউনিসেফের রিপোর্ট অনুযায়ী অতিমারি প্রতিরোধে বিভিন্ন দেশে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের কারণে বিশ্বের ১৬ কোটি শিশু স্কুল জীবন শুরু করতে পারেনি। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খেলাধুলার মাঠ, পার্ক, বিনোদন কেন্দ্র, পারিবারিক অনুষ্ঠানাদি বন্ধ থাকার কারণে ছেলেমেয়েরা মানসিক চাপের ঝুঁকিতে পড়েছে। তরুণ শিশু কিশোরদের মধ্যে মানসিক ভারসাম্যহীনতা, শিক্ষা থেকে ঝরে পড়া, শিশু শ্রম ও বাল্যবিয়ের মতো ঘটনা দেখা দিচ্ছে সারা বিশ্বে; বিশেষ করে তৃতীয় বিশ্বের অনেক দেশসমূহে।

দীর্ঘ প্রায় দেড় বছর পর ১২ সেপ্টেম্বর থেকে ধাপে ধাপে খুলে দেয়া হচ্ছে বাংলাদেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় পরামর্শক কমিটি দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়াকে স্বাগত জানিয়ে ৯ দফার একটি নির্দেশনা সংশ্লিষ্ট সবাইকে বিবেচনায় রাখতে অনুরোধ জানিয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে ৫ বছরের কম বয়সী শিক্ষার্থী ছাড়া সবাইকে বাধ্যতামূলক মাস্ক পরিধান, হাত ধোয়া ও সাধারণ পরিচ্ছন্নতা মেনে চলা, বিদ্যালয়ে সব ধরনের জনসমাগমজনিত কর্মসূচি বন্ধ রাখা, পরীক্ষার্থী ছাড়া অন্য শিক্ষার্থীদের ক্লাস সপ্তাহে ১/২ দিন চালু রাখা, সংক্রমণের লক্ষণ থাকলে ১৪ দিন পর্যন্ত বাড়িতে অবস্থান, স্কুলে সংক্রমণ পর্যবেক্ষণ ও রিপোর্টিং এবং সব বিধিনিষেধ নিশ্চিত কল্পে মনিটরিং টিম গঠন ইত্যাদি। এছাড়া শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় ১৯ দফা দিক নির্দেশনা প্রকাশ করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (বাউশি)।

স্কুলের শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য শিক্ষার্থীদের ভ্যাক্সিনের আওতায় আনার প্রক্রিয়া চলছিল প্রথম থেকেই। যে সব শিক্ষার্থীদের বয়স ১৮ বছর বা তদূর্ধ্বে তাদের বিষয়ে অনুমোদনবিষয়ক জটিলতা ছিল না। তবে ১২ থেকে ১৮ এর নিচের বয়সী শিক্ষার্থীদের বিষয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অনুমোদনের প্রয়োজন ছিল।

ইউরোপীয় দেশের মধ্যে যুক্তরাজ্য, ডেনমার্ক, ফ্রান্স, জার্মানি, অস্ট্রিয়া, হাংগেরী, ইতালি, সুইডেন, গ্রিস, ফিনল্যান্ড, আয়ারল্যান্ড, পোল্যান্ড, সুইজারল্যান্ড, নরওয়ে ইত্যাদি দেশ ১২-১৫ বছর বয়সী স্কুল শিক্ষার্থীদের কোভিড টিকা দেয়া শুরু করেছে। মধ্যপ্রাচ্যের সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাহরাইন; এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের ইন্দোনেশিয়া, নিউজিল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, চীন, হংকং, সিঙ্গাপুর, জাপান, ফিলিপাইন; আমেরিকা অঞ্চলের যুক্তরাষ্ট্র, মেক্সিকো, ব্রাজিল, চিলি, কানাডা, কিউবা, ইত্যাদি এবং আফ্রিকা অঞ্চলের দক্ষিণ আফ্রিকা প্রভৃতি দেশসমূহে স্কুলশিক্ষার্থীদের মধ্যে কোভিড টিকা কার্যক্রম শুরু করেছে। বেশিরভাগ দেশ টিকা হিসেবে ফাইজার, কিছু কিছু দেশ সিনোফার্ম ও সিনোব্যাক ভ্যাকসিন প্রয়োগ করছে।

ফ্রান্স ৬৬ শতাংশ ছেলেমেয়েকে ১ম ডোজ এবং ৫২ শতাংশ জনকে পূর্ণ ডোজ সম্পন্ন করেছে। তবে জার্মানি যে সব বাচ্চাদের শারীরিক ঝুঁকি রয়েছে শুধু তাদের ভ্যাকসিনের আওতায় এনেছে। সুইডেন যাদের ফুসফুসের রোগ, হাঁপানি বা এতদসংক্রান্ত জটিলতা রয়েছে তাদের ভ্যাকসিন প্রদান করছে ।

যুক্তরাষ্ট্রে ও কানাডা ১২ বা তদূর্ধ্ব বয়সী ছেলে মেয়েদের জন্য ফাইজার এবং মডার্না ভ্যাকসিন প্রয়োগের অনুমোদন প্রদান করেছে এবং জুলাই ২০২১ অবধি ৪২ শতাংশকে প্রথম এবং ৩২ শতাংশকে পূর্ণাঙ্গ ডোজ প্রদান করেছে। যুক্তরাষ্ট্রের সিডিসি তাদের গবেষণার তথ্যে বলেছে যে, ভ্যাকসিন গ্রহণকৃত ছেলেমেয়েদের চেয়ে ভ্যাকসিনবিহীনদের দেহে সংক্রমণের পরিমান ৩.৫ গুণ বেশি। চীনে তাদের প্রস্তুতকৃত সিনোভ্যাক টিকা ৩-১৭ বছরের বাচ্চাদের প্রয়োগ শুরু করেছে। ভারতে এ বয়সীদের অক্টোবর ২০২১ অবধি ভ্যাকসিন প্রদানের আওতায় আনার বিষয়ে প্রাথমিক চিন্তাভাবনা করছে। যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন অঞ্চলে ভিন্ন ভিন্ন গাইডলাইন অনুসরনে ১৮ বছরের নিচের বয়সী ছেলেমেয়েদের ভ্যাকসিন প্রদান শুরু করেছে। তারা সারাদেশের ১৬-১৭ বছর বয়সী সব ছেলেমেয়ে এবং শারীরিক ঝুঁকি রয়েছে এমন ১২-১৫ বয়সীদের ভ্যাকসিনের আওতায় এনেছে। তবে যুক্তরাজ্যের জয়েন্ট কমিটি অফ ভ্যাকসিনেশন অ্যান্ড ইমুনাইজিশন (JCVI) ১২-১৫ বছর বয়স্ক ছেলেমেয়েদের ভ্যাকসিন প্রদান না করার পরামর্শ দিয়েছে। তাদের মতে, এ বয়সীদের ভ্যাকসিন প্রদানের স্বপক্ষে কোন অকাট্য তথ্য-উপাত্ত নেই। তারা আরও বলেছে, তাদের গবেষণায় ১০ লাখের মধ্যে মাত্র দুজন ছেলেমেয়ের করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালের ইনটেন্সিভ চিকিৎসাসেবা গ্রহণ করতে হয়েছে, সুতরাং এ পরিস্থিতিতে তাদের সার্বজনীন ভ্যাকসিনের আওতায় আনার প্রয়োজন নেই।

যুক্তরাষ্ট্রের ফুড অ্যান্ড ড্রাগ এডমিনিস্ট্রেশন (FDA) ফাইজার টিকাকে ১২ বছরের ঊর্ধ্বের ছেলেমেয়েদের প্রয়োগের অনুমোদন প্রদান করেছে। ফাইজার কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এটি ১২-১৫ বছর বয়সীদের দেহে প্রায় ১০০ ভাগ কার্যকরী এবং ১৬ এবং তদূর্ধ্ব বয়সীদের দেহে সফলতা ৯১ শতাংশ। ২২০০ জন ছেলেমেয়েদের নিয়ে একটি গবেষণা জরিপে তারা প্রমাণ পান, যে ১০০৫ জন ছেলেমেয়েকে ফাইজার ভ্যাকসিন প্রদান করা হয়েছে তাদের কারো দেহে করোনা সংক্রমণ হয়নি। অপরপক্ষে ৯৭৮ জন ভ্যাকসিনবিহীনদের মধ্যে ১৫ জনের দেহে করোনা সংক্রমিত হয়েছে।

তারা গবেষণায় দেখেছে, এ ভ্যাকসিন প্রয়োগের পর শিক্ষার্থীদের দেহে ভ্যাকসিন প্রয়োগে তেমন গুরুতর কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। তবে ইনজেকশন প্রদানের স্থানে ব্যথা, ফুলে যাওয়া, লাল হয়ে যাওয়া ইত্যাদি এবং সাধারণভাবে অবসাদ, মাথাব্যথা, পেশীতে ব্যথা, কাঁপুনি, জ্বর ও বমি ভাব দেখা দিতে পারে।

ফাইজার কর্তৃপক্ষের গবেষকরা আরও জানিয়েছে যে, এ ভ্যাকসিনের মেসেঞ্জার আরএনএ দেহ কোষের নিউক্লিয়াসে প্রবেশ করে না তাই ডিএনএ ক্ষতিগ্রস্ত করার সম্ভাবনা নেই। এটি করোনাভাইরাসের স্পাইক প্রোটিনের অনুরূপ এন্টিবডি প্রস্তুত করে সংক্রমণ প্রতিরোধ করে।

এক সময় অভিযোগ উঠে যে, এ ভ্যাকসিন হৃদপিণ্ডে প্রদাহ সৃষ্টি করে। যদিও সিডিসির গবেষণায় এর সত্যতা মিলেনি। ফাইজার ও মডার্না ৫-১১ বছরের ছেলেমেয়েদেরও এ ভ্যাকসিন প্রয়োগের গবেষণা তথ্য শীঘ্রই প্রকাশ করতে যাচ্ছে বলে তারা আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এদিকে সংযুক্ত আরব আমিরাত, সিঙ্গাপুর তাদের দেশের ৩-১৭ বছরের ছেলেমেয়েদের প্রদানের জন্য চীনে তৈরি সিনোফার্ম ভ্যাকসিন অনুমোদন প্রদান করেছে।

অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনেকা ভ্যাকসিন কর্তৃপক্ষ ১২> <১৮ বছর বয়সীদের দেহে ব্যবহারের পক্ষে যথেষ্ট তথ্য উপাত্তের জন্য গবেষণা কার্য পরিচালনা করছে।

আমাদের দেশে ধাপে ধাপে দ্রুত সব শিক্ষার্থীকে ভ্যাকসিনের আওতায় আনার পরিকলপনা গ্রহণ করা হয়েছে। এ প্রক্রিয়াকে সফল ও কার্যকরী করতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, অভিভাবক ও স্বাস্থ্য সংশ্লিষ্টদের কিছু বিষয়ে নজর দেয়া প্রয়োজন।

-শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিন গ্রহণের বিষয়ে সচেতন করে তুলতে হবে।

– ভ্যাকসিন দেয়ার পূর্বে, প্রদানের সময় ও পরে এ বিষয়ে সচেতনতামূলক উপদেশ প্রদান করতে হবে।

– শিক্ষার্থীর দেহে কোন ধরনের অসুখ-বিসুখ, এলার্জি ইত্যাদি থাকলে পূর্বাহ্নে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসক বা ভ্যাকসিন বুথে অবগত করতে হবে।

– ভয়, ভীতি বা মূর্ছা যাওয়ার আশঙ্কা থাকলে শিক্ষার্থীকে শুইয়ে/বসিয়ে ভ্যাকসিন প্রদান করা যেতে পারে।

– শিক্ষার্থীর ভ্যাকসিন প্রদানের পর ১৫-৩০ মিঃ পর্যবেক্ষণের আওতায় রাখতে হবে।

– পরবর্তীতে এ সংশ্লিষ্ট কোন শারীরিক সমস্যা দেখা দিলে তৎক্ষণাৎ সংশ্লিষ্ট চিকিৎসা কেন্দ্রে অবগত করে পরামর্শ দিতে হবে।

– ভ্যাকসিন কর্মসূচি সফল করতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, স্টাফ ও ছাত্রছাত্রীদের এ বিষয়ক স্বাস্থ্য শিক্ষা, সংক্ষিপ্ত আকারে সেমিনার, ওয়ার্কশপ ইত্যাদি কার্যক্রম গ্রহণ করতে হবে।

– ইতোমধ্যে দেশের সব অভিভাবকরাই ভ্যাকসিনের বিষয়ে ওয়াকিবহাল। অভিভাবকদের ভ্যাকসিন কর্মসূচিতে ভূমিকা রাখতে উদ্বুদ্ধ করা যেতে পারে।

– ভ্যাকসিনবিষয়ক কুসংস্কার বা গুজবের বিষয়ে সব শিক্ষার্থীকে সচেতন করে তুলতে হবে। বৈশ্বিক অতিমারীর ইতিহাস এবং এর ক্ষতিকারক প্রভাব সম্পর্কে আলোচনা করা যেতে পারে।

আমাদের দেশের শিক্ষার্থীদের বিশ্বের উন্নত দেশসমূহের ন্যায় পরীক্ষিত ফাইজার ভ্যাকসিন প্রয়োগের সিদ্ধান্ত যুগান্তকারী। দেড় বছর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার পর শিক্ষা কার্যক্রম পুরোপুরি চালু করার জন্য সব শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিনের আওতায় আনার ফলে শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়মুখিতা, করোনা সংক্রমণ হ্রাস, দৈহিক ও মানসিক সুস্থতায় উন্নতি এবং সার্বিকভাবে শিক্ষায় সমৃদ্ধি আনতে সহায়তা করবে। বাংলাদেশে প্রাথমিকভাবে শহরাঞ্চলের শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিন প্রদানের কর্মসূচি সফল করতে বিভিন্ন স্থানে দক্ষ মেডিকেল টিমের সমন্বয়ে ভ্যাকসিন বুথ প্রস্তুত করা হয়েছে। দৈনিক ৪০ হাজার শিক্ষার্থীকে ফাইজার ভ্যাকসিন প্রদান করা হবে। এ লক্ষ্যে রাজধানী ঢাকায় ২৬ টি ভ্যাকসিন প্রদান কেন্দ্র খোলা হয়েছে। এ ভ্যাকসিন প্রদান কর্মসূচির মাধ্যমে শিক্ষাঙ্গনগুলোর প্রাণ ফিরে পাবে বলে আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস। তবে মনে রাখতে হবে, কোন ভ্যাকসিনই সব ধরনের করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে সমভাবে কার্যকরী নয়। তাই ভ্যাকসিন গ্রহণের পরও এ বয়সী শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। এ বিষয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ, শিক্ষক ও অভিভাবকগণকে সক্রিয় ও সচেতন থাকতে হবে।

[লেখক :

লে.কর্ণেল নাজমুল হুদা খান

সহকারী পরিচালক,

কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল]