শুক্রবার, ১৯শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শ্রমিক -মালিক ঐক্য গড়ি, স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তুলি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ৩, ২০২৩
news-image

 

 

ফাহিমা আক্তার, কুবি প্রতিনিধি:

১৮৮৬ খ্রিস্টাব্দের ১লা মে যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো শহরের হে মার্কেটের শ্রমিকেরা শ্রমের ন্যায্য মূল্য এবং দৈনিক অনধিক আট ঘন্টা কাজের দাবিতে আন্দোলনে নামেন। সেদিন পুলিশ আন্দোলনরত শ্রমিকদের উপর গুলি চালান। শ্রমিকদের আত্মত্যাগের মধ্য দিয়ে দৈনিক কাজের সময় আট ঘন্টা করার দাবি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। তারপর থেকে এই দিনটি আন্তর্জাতিক ‘মে দিবস ‘ হিসেবে পালিত হয়ে আসছে।

‘মে দিবস ‘ উপলক্ষে বাংলাদেশে বিভিন্ন শ্রমিক সমাবেশ, শোভাযাত্রা, আলোচনাসভা ও সেমিনারের আয়োজন করা হয়। বাংলাদেশে এই বছর ‘মে দিবসে’র প্রতিপাদ্য বিষয় নির্ধারণ করা হয়েছে ‘ শ্রমিক -মালিক ঐক্য গড়ি, স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তুলি’। ‘মে দিবস ‘ মূলত শ্রমজীবী মানুষের ন্যায্য অধিকার আদায়ের দিন।

তবে পরিতাপের বিষয় যে, বাংলাদেশে এখনও অনেক শ্রমিক তাদের শ্রমের ন্যায্য মজুরি পান না। শ্রমিকদের প্রায় সর্বক্ষেত্রে অবহেলিত ও লাঞ্চিত হতে দেখা যায়। অথচ তাদের শ্রমের মাধ্যমেই গড়ে উঠেছে আমাদের এই আধুনিক সভ্যতা। তাদের শ্রমে গড়ে উঠেছে দেশ-বিদেশের ছোট-বড় দালানকোঠা, সুউচ্চ অট্টালিকা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন স্থাপনা।

কৃষকদের অক্লান্ত পরিশ্রমে কৃষিক্ষেত্রেও পূর্বের তুলনায় অনেক অগ্রগতি সাধিত হয়েছে। শ্রমিকদের অবদানের কারণেই পোশাকশিল্প বর্তমানে দেশের অন্যতম অর্থনৈতিক চালিকাশক্তি হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। অথচ এই শ্রমিকরাই যথাসময়ে তাদের শ্রমের ন্যায্য মজুরি পান না। বিভিন্ন অজুহাতে তাদেরকে বিভিন্ন কারখানা থেকে ছাঁটাই করা হচ্ছে। শ্রমিকরা কর্মক্ষেত্রে বিভিন্ন ভাতা, জীবনের নিরাপত্তা, অবকাশ যাপনের সুযোগ সুবিধা পান না। বিভিন্ন শিল্প কারখানায় বিস্ফোরণের কারণে প্রতিবছর অনেক শ্রমিক তাদের সর্বস্ব হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েন।

বিভিন্ন কল কারখানার মালিক-শ্রমিকদের মধ্যে প্রায়ই মজুরি নিয়ে অসন্তোষ লক্ষ্য করা যায়। বর্তমানে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য ঊর্ধ্বগতিতে বেড়ে চললেও শ্রমিকদের মজুরি কিন্তু বাড়ছে না। ফলে তাদের অবস্থা অনেকটা ‘ নুন আনতে পান্তা ফুরানোর ‘ মতো হয়ে পড়েছে। পরিবারের সদস্যদের জন্য খাবারের ব্যবস্থা করতে তাদের প্রতিনিয়ত হিমশিম খেতে হচ্ছে। শ্রমিকদের একটি বিরাট অংশ এখনও মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত।

শ্রমিকরা তাদের উপর শোষণ, নিপীড়ন ও বৈষম্যের প্রতিবাদ করার কারণে অনেক সময় চাকরিচ্যুত হওয়ার হুমকির সম্মুখীন হচ্ছেন। অথচ দেশের অর্থনৈতিক ব্যবস্থাকে আরো উন্নত করার জন্য এবং শ্রমিকদের কর্মক্ষেত্রে উৎপাদনশীলতা আরও বাড়ানোর জন্য প্রয়োজন মালিক- শ্রমিকের মধ্যে পারস্পরিক সুসম্পর্ক স্থাপন। তবেই দেশ এগিয়ে যাবে সমৃদ্ধির দিকে।

 

আর পড়তে পারেন