Tag Archives: শাহরাস্তিতে অসহায় এক বিধবার জায়গা জোরপূর্বক দখলের অভিযোগ

শাহরাস্তিতে অসহায় এক বিধবার জায়গা জোরপূর্বক দখলের অভিযোগ

 

মোঃ রুহুল আমিনঃ

চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলার টামটা দক্ষিণ ইউনিয়নের ওয়ারুক মুন্সি বাড়ির অসহায় এক বিধবার জায়গা জোরপূর্বক দখলের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা যায়, বিধবা রেজিয়া বেগম (৫৮) ২০২১ সালের মাঝামাঝি সময় স্বামী মমতাজ উদ্দিনকে হারান। স্বামীকে হারিয়ে রিজিয়া পারভীন মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়েন। তার এক ছেলে দুই মেয়ে। ছেলে ইতালী প্রবাসী আর মেয়েদেরকে পাত্রস্থ করেছেন। মেয়েরা স্বামীর সাথে রাজধানী শহর ঢাকায় বসবাস করেন। স্বামী হারা বিধবা রিজিয়া পারভীন স্বামীর ভিটা ছেড়ে অন্যত্র কোথাও যাবেন না এমন প্রতিজ্ঞায় তিনি একাকিই গ্রামের বাড়ি চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলার টামটা দক্ষিণ ইউনিয়নের ওয়ারুক মুন্সি বাড়িতে বসবাস করছেন। স্বামীর মৃত্যুর পর তার রেখে যাওয়া জমি-যিরাত রিজিয়া পারভীন প্রবাসী ছেলের পক্ষে তিনিই দেখাশোনা করে থাকেন।কিন্তু মৃত. স্বামীর রেখে যাওয়া বাড়ি ও মাঠের জমি-যিরাতের উপর কুনজর পড়ে তার মৃত. ভাসুর আনোয়ার উল্লাহর ছেলে হুমায়ুন কবির ও কিরন গংদের। স্বামী পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া ৬ শতাংশ ও ক্রয় সূত্রে মালিক ৩ মোট ৯ শতাংশ একই সাথে থাকা জমি যেন তার জন্য কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে। মৃত. ভাশুর আনোয়ার উল্লাহর ছেলে হুমায়ুন কবির ও কিরন গং পৈত্রিকভাবে পাওয়া ও একই সাথে থাকা ক্রয়কৃত রাস্তা সংলগ্ন বসতবাড়ির মোট ৯ শতাংশ জায়গা জবর দখল করে নিজেরা ভোগ দখল করতে চায়। তাদের সেই বদমতলব চরিতার্থ করতে হুমায়ূন গং রেজিয়ার স্বামীর রেখে যাওয়া জায়গায় রাতের অন্ধকারে টিনেরে ভেড়া দিয়ে তাদের সীমানার ভিতরে নিয়ে নেয় যাতে হুমায়ূন গংরা ব্যতিত আর অন্য কেউ ভিতরে প্রবেশ করতে না পারে।

এবিষয়ে গত ১২ মার্চ (রবিবার) দুপুরে সরজমিন পরিদর্শনে গিয়ে রিজিয়া পারভীনের অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়। অবৈধ জবর দখলদার হুমায়ূন এসময় ঘরে থাকা সত্বেও তার পরিবারের সদস্যরা সে বাড়ি নাই বলে এই প্রতিবেদককে জানান।

প্রসংগত উল্লেখ্য যে, অভিযোগ রয়েছে বর্ণিত জমি নিয়ে ঝগড়াঝাটি চলাকালে একদিন মমতাজ উদ্দিন স্টোক করে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরন করেন। উল্লেখিত জায়গার দখল বুঝে পেতে ও বুঝে নিতে বিজ্ঞ সহকারি জর্জ আদালত, চাঁদপুরে মৃত. মমতাজ উদ্দিন ও আনোয়র উল্লাহ্ উভয়ে ভিন্ন ভিন্ন ২টি মামলা দায়ের করেন। বিজ্ঞ আদালত দীর্ঘ শুনানী শেষে রিজিয়া পারভীনের স্বামী মমতাজ উদ্দিনের পক্ষে রায় প্রদান করেন। আদালতের রায়কে বৃদ্ধআঙ্গুল দেখিয়ে ও অমান্য করে হুমায়ূন গংরা রাত্রের অন্ধকারে ওই জায়গা দখলে নিতে মাটি কেটে ভিটি ভরাট করে ঘর তৈরির হীন অপপ্রয়াশ চালাচ্ছে।

এ বিষয়ে মুঠো ফোনে জানতে চাইলে অজ্ঞাত স্থানে লুকিয়ে থাকা হুমায়ূন জানান, আমার বসতভিটার পাশে জায়গাটি হওয়ায় তাদের বলেছি আমার কাছে বিক্রি করতে। কিন্তু তারা আমার কাছে বিক্রি করবে বলে কথা দিয়ে অন্যত্রে বিক্রি করে দিয়েছে। তাই বাধ্য হয়ে আমি সেটি দখলে রাখতে রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেছি।

রাতের আঁধারে ঘর তোলার বিষয়টি প্রত্যাখ্যান করে হুমায়ুন গং বলেন, মাটি কেটেছি দিনে। সেটি যদি অন্যায় হয় তাহলে ক্ষমা করে দিবেন।

এমতাবস্থায় বিধবা রিজিয়া পারভীন স্বামীর রেখে যাওয়া ভিটি ফিরে পেতে সমাজের সূধীজন সহ সংশ্লিষ্ট আইন প্রয়োগকারী কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।