মঙ্গলবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

একটি আদর্শবান সমাজসেবার মানসিকতাসম্পন্ন যোগ্য জনপ্রতিনিধি চাই

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ৩১, ২০২১
news-image

 

এম জামাল উদ্দিন:

দেশব্যাপী বইছে নির্বাচনের হাওয়া। বাংলাদেশে নির্বাচন হচ্ছে একটি উৎসব। এ দেশে দল বেঁধে ভোট কেন্দ্রে গিয়ে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দেয়ার একটি রীতি দীর্ঘদিন ধরে চালু আছে। নির্বাচন এলে দেশে উৎসবের আবহ তৈরি হয়। সাধারণ মানুষ নিজ নিজ এলাকায় নিজেদের ইচ্ছা অনুযায়ী।যাকে ইচ্ছা থাকেই ভোট দে। অর্থাৎ আমার ভোট আমি দেব।যাকে ইচ্ছা থাকে দিব।

কিন্তু নির্বাচন আসলেই  নির্বাচনের ফলাফলে একটি বিষয় প্রায়ই দেখা যায়- কালো টাকার মালিক বা দুর্নীতিবাজরা নির্বাচিত হচ্ছে। অর্থনৈতিক অবস্থা, শিক্ষা, নাগরিক অধিকার ও দায়িত্ববোধ সম্পর্কে ভোটাররা অসচেতন থাকার কারণেই এমনটি ঘটছে। এর ফলে রাজনীতি দুর্নীতিবাজ, খুনি, সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজদের দখলে চলে যাচ্ছে, যা বিপজ্জনক।

আজকাল ভালো প্রার্থী পাওয়া দুষ্কর। অথচ জনগণ চায় সৎ, শিক্ষিত, চরিত্রবান, আদর্শবাদী ও সমাজসেবার মানসিকতাসম্পন্ন যোগ্য মানুষ জনপ্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচিত হোক। বস্তুত যারা সুখে-দুঃখে জনগণের পাশে থাকবে, কেবল তারাই জনপ্রতিনিধি হওয়ার অধিকারী।

এলাকার রাস্তাঘাটের উন্নয়ন, যোগাযোগ, শিক্ষা, কৃষি ও সামাজিক শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষায় বলিষ্ঠ ভূমিকা পালনে সক্ষম ব্যক্তিকেই ভোট দেয়া কর্তব্য বলে মনে করা উচিত। যারা ঘুষ খায়, ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য পায়ে ধরে, ক্ষমতায় গেলে সাধারণ মানুষের উপর অত্যাচার করে, তাদের বর্জন করতে হবে।

শিক্ষা জাতির মেরুদণ্ড। শিক্ষিত জাতি গড়ার জন্য সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রের প্রতিনিধিদের শিক্ষিত হওয়া দরকার। কিন্তু দুঃখের বিষয়, আমাদের দেশে নির্বাচনে পেশিশক্তি, অর্থের প্রভাব ইত্যাদি কারণে অশিক্ষিত জনপ্রতিনিধিরা এক একটি নির্বাচনী এলাকার দায়িত্ব নেন। এদের অনেকেই অজ্ঞতার কারণে কোথায় প্রকল্প বা কোথা থেকে উন্নয়নের জন্য বরাদ্দ আনতে হয়- তা ঠিকমতো বুঝতে পারেন না। ফলে ওই এলাকা উন্নয়নবঞ্চিত হয়।

অন্যদিকে অনেক জনপ্রতিনিধি সেবার পরিবর্তে ব্যবসার জন্য রাজনীতি ও নির্বাচন করে। নির্বাচিত হয়ে সে জনসেবার কথা ভাবেই না। আমরা জনপ্রতিনিধিদের সংসদে পাঠাই দেশ ও জনগণের পক্ষে এবং জনগুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে কথা বলার জন্য। অথচ দেখি- তারা জনগণের পক্ষে যতটা না কথা বলেন, তার চেয়ে বেশি রাজনৈতিক বক্তব্য দেন। ফলে বিভিন্ন দলের মধ্যে সৃষ্টি হয় কাদা ছোঁড়াছুঁড়ি ইত্যাদি শুরু হয়।

প্রতিটি ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধিদের শিক্ষিত হওয়া আবশ্যক। দুঃখজনক হলেও সত্য, আমাদের দেশে জনপ্রতিনিধি হওয়ার জন্য নির্বাচন কমিশনের অনেক শর্ত থাকলেও প্রার্থীদের শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে কোনো শর্ত আছে কিনা, তা আমার জানা নেই। একটি শিক্ষিত জাতি গঠন করার জন্য, দেশকে উন্নত থেকে উন্নততর করার জন্য জনপ্রতিনিধিদের শিক্ষিত হওয়া বাঞ্ছনীয়।

আমাদের দেশে দিন দিন অনেক কিছুরই সংজ্ঞা বদলে যাচ্ছে। একইভাবে বদলে যাচ্ছে জনপ্রতিনিধির সংজ্ঞাও। আগে জনসেবার লক্ষ্য নিয়ে সম্ভ্রান্ত, শিক্ষিত ও সৎ মানুষরা জনপ্রতিনিধি হতেন। সাধ্যমতো তারা মানুষকে সেবা দেয়ার চেষ্টা করতেন। এখন অবৈধ অর্থের মালিক, সন্ত্রাসী বা পেশিশক্তিতে বলীয়ান ব্যক্তিরাই অধিক হারে জনপ্রতিনিধি বনে যাচ্ছেন। মান-সম্মানের ভয় আছে, এমন কোনো ব্যক্তি এসব প্রার্থীর বিরুদ্ধে প্রতিযোগিতা করারই সাহস পান না। আজকাল জনপ্রতিনিধি সম্পর্কে মানুষের ধারণাই পাল্টে বদলে যাচ্ছে এবং এর ফল যা হওয়ার সেটাই হচ্ছে।

সব দলের উচিত, প্রার্থী বাছাইকালে তাদের সততা, দক্ষতা ও জনগণকে মূল্যায়নের সক্ষমতা বিবেচনায় আনা। সৎ ও আদর্শবান রাজনৈতিক নেতাকে নির্বাচনে প্রার্থী করা হলে জনগণের প্রকৃত ক্ষমতায়ন হবে- যার দরজা শুধু দলীয় নেতাকর্মীদের জন্য নয়, বরং সাধারণ মানুষের জন্যও খোলা থাকবে; যিনি রাজনৈতিক সহাবস্থানে বিশ্বাসী হবেন। সবার কথা ভাববেন। একইসঙ্গে সৎ, যোগ্য, দেশপ্রেমিক ও নিবেদিতপ্রাণ মানুষ হবেন।

নির্বাচনের জন্য প্রার্থী বাছাই একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এ ক্ষেত্রে রাজনৈতিক দলগুলোকে সদিচ্ছার বহিঃপ্রকাশ ঘটাতে হবে। এ বিষয়ে আরও সচেতন হতে হবে। স্বজনপ্রীতি ও দুর্নীতিতে জড়িত কাউকে মনোনয়ন দেয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। মনে রাখতে হবে- ন্যায়পরায়ণ, বিবেকবান, আদর্শবান, নীতিনিষ্ঠ, সমাজ উন্নয়নে নিবেদিত ও সর্বজনশ্রদ্ধেয় ব্যক্তিরা জনপ্রতিনিধি হলে প্রতিটি ইউনিয়ন আলোর মুখ দেখতে পাবে ও সমাজ উপকৃত হবে।

লেখক: এম জামাল উদ্দিন
সাংবাদিক, সৌদি আরব রিয়াদ।