বুধবার, ১৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

খুতবার আগে সরকারবিরোধী বক্তব্য দেওয়ায় দুই মুফতিসহ গ্রেফতার ৪

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ২৭, ২০২১
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে মসজিদে খুতবার আগে সরকারবিরোধী বক্তব্য দেওয়ার ঘটনায় করা মামলায় দুই মুফতিসহ চারজনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১৪।

সোমবার (২৭ ডিসেম্বর) বিকেলে পাঁচদিনের রিমান্ড চেয়ে চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে তোলা হলে বিচারক মাহবুবা আক্তার তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

গ্রেফতাররা হলেন- উপজেলার জামিয়া গাফুরিয়া দারুসসুন্নাহ ইসলামপুর মাদ্রাসার শিক্ষক মাওলানা মুফতি সফিকুল ইসলাম, মাওলানা মুফতি কাওসার হাসান। একই মাদ্রাসার ছাত্র মো. জিয়াউদ্দিন, কামরুল ইসলাম।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জহিরুল হক মুন্না জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, চার আসামিকে পাঁচদিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে তোলা হয়। পরে বিচারক রিমান্ড শুনানির দিন ধার্য করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

রোববার (২৬ ডিসেম্বর) রাতে নেত্রকোনা জেলার কলমাকান্দা উপজেলার জামিয়া দ্বীনিয়া দারুল উলুম মার্কাজ মাদরাসা থেকে ওই চারজনকে গ্রেফতার করে র‌্যাব-১৪।

এর আগে ৫ মে উপজেলা আওয়ামী লীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল মতিন বাদী হয়ে মাদরাসার শিক্ষক-ছাত্রসহ ১০ জনকে আসামি করে সন্ত্রাস দমন আইনে মামলা করেছিলেন।

পুলিশ জানায়, উপজেলার জামিয়া গাফুরিয়া দারুসসুন্নাহ ইসলামপুর মাদরাসার শিক্ষক মাওলানা মুফতি কাওসার হাসান পৌর বাজার চালমোহাল জামে মসজিদের খতিবের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।

৫ মার্চ ওই মসজিদে জুমার নামাজের খুতবার আগে ওই শিক্ষক বলেন, ‘রাষ্ট্রপতি সেনাপ্রধানের ভাইয়ের মৃত্যুদণ্ড মওকুফ করিয়া দিয়েছে অথচ অভিজিৎ হত্যার আসামিদের ফাঁসি দেওয়ার চেষ্টা করছে। তাই আমরা এই জালিম শেখ হাসিনা সরকারের বিরুদ্ধে জিহাদ ঘোষণা করবো। আপনারা এতে রাজী আছেন তো?’

এমন বক্তব্যের বিষয়ে পরদিন ওই মাদরাসার সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম বুলবুল ওই শিক্ষক কাওসার হাসানের কাছে মোবাইল ফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি যা বলেছি ঠিক বলেছি।

পরে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির মোবাইল ফোনে ধারণ করা কথোপকথন রেকর্ডটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার করা হলে ছাত্র ও শিক্ষক মিলে মাদরাসায় উত্তেজনাকর পরিবেশ সৃষ্টি করে। এ সময় মাদরাসা কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম বুলবুলের পদত্যাগ দাবি করেন তারা।

এমন পরিস্থিতিতে বিষয়টি নিয়ে উপজেলা প্রশাসন সমঝোতার চেষ্টা করে কমিটির মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটি অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করে দেন। পরে বেশ কিছুদিন বন্ধ থাকার পর মাদরাসাটি পুনরায় খুলে দেওয়া হয়। পাশাপাশি মাদরাসার কার্যকরী পরিষদের মিটিংয়ে এমন ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট শিক্ষক ও ছাত্রদের বহিষ্কার ও আইনি ব্যবস্থা নিতে সিদ্ধান্ত হলে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেন। এর পর থেকে তারা পলাতক ছিলেন।

আর পড়তে পারেন