শনিবার, ১৩ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

দাউদকান্দিতে উন্নয়নের ফিরিস্তি তুলে ভোটারদের দ্বারে আ’লীগ, সহমর্মিতা চায় বিএনপি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ৩১, ২০২১
news-image

 

জাকির হোসেন হাজারী:
চতুর্থ ধাপে কুমিল্লার দাউদকান্দি পৌরসভা নির্বাচন আগামী ১৪ ফেব্রæয়ারী অনুষ্ঠিত হবে। এবারই প্রথম ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ করা হবে এখানে। নির্বাচনে মেয়র, সাধারণ কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদের প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। আর প্রতীক বরাদ্দ পেয়েই প্রার্থীরা প্রচার-প্রচারণায় নেমে পড়েছেন পুরোদমে। নির্বাচনে ভবিষ্যৎ সম্ভাবনা ও উন্নয়নের ফিরিস্তি নিয়ে ভোটারদের কাছে ভোট চাইছে আওয়ামী লীগ। অপরদিকে মামলা-হামলার শিকার হওয়ার তথ্য তুলে ধরে সহমর্মিতা আদায়ের চেষ্টা করছে বিএনপি। উভয় দলের নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

দাউদকান্দি উপজেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, দাউদকান্দি পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র, কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে সর্বমোট ৫০ জন প্রার্থী প্রতিদ্ব›িদ্বতায় অবতীর্ণ হয়েছেন। এদের মধ্যে মেয়র পদে ৩ জন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৩৬ জন এবং সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১১ জন প্রার্থী রয়েছেন।

বুধবার (২৭ জানুয়ারী) দাউদকান্দি উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ প্রদান করা হয়। রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. কামরুল ইসলাম খান প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ করেন।
প্রতীক বরাদ্দ পাওয়ার পর পরই প্রার্থীরা প্রচার প্রচারণায় নেমে পড়েন। যে সব প্রতীকের জন্য একক প্রার্থী ছিল তারা আগেইভাগেই পছন্দের প্রতীক দিয়ে লিফলেট, পোষ্টার তৈরি করে রাখেন। আর প্রতীক বরাদ্দ পাওয়া মাত্রই আগেই তৈরি করে রাখা লিফলেট নিয়ে গণসংযোগে নেমে পড়েন প্রার্থীরা। সেই সঙ্গে নিজের ছবি ও প্রতীক সম্বলিত পোস্টার ঝুঁলানোর কাজ শুরু করেন। পাশাপাশি মাইকেও প্রচার-প্রচারণা চালাতে থাকেন সমানতালে। বেলা ২টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত প্রার্থীদের প্রতীকে ভোট চেয়ে মাইকে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চলছে। প্রার্থীরা এলাকার নিজ নিজ ওয়ার্ডে প্রচার প্রচারণা ও গণসংযোগ চালিয়ে ভোট প্রার্থনা করে চলেছেন গ্রাম মহল্লার দ্বারে দ্বারে।

পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ড ও হাট বাজারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে প্রার্থীদের প্রতীক সংবলিত পোষ্টারে ছেয়ে গেছে। চায়ের দোকান থেকে শুরু করে বিভিন্ন অফিস ব্যবসা প্রতিষ্টানসহ পাড়া মহল্লায় এখন শুধু নির্বাচনী আলোচনা। এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মেয়র প্রার্থী কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের কোষাধক্ষ ও বর্তমান মেয়র নাইম ইউসুফ সেইন (নৌকা)। আওয়ামীলীগের দুই বিদ্রোহী প্রার্থী পৌর আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক মো.শাহজাহান মিয়া ও সাবেক পৌর আ.লীগের সভাপতি প্রয়াত সাবেক মেয়র শাহ আলম চৌধুরীর মেয়ে তাছলিমা চৌধুরী সিমিন তাদের মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেয়ায় তিনি উৎফুল্ল মেজাজে রয়েছেন। অপরদিকে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী পৌর বিএনপি’র সভাপতি নুর মোহাম্মদ সেলিম(ধানের শীষ) দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহাম্মদ আবু মুছা (নারিকেল গাছ) তাঁর নিজস্ব কর্মীবাহিনী নিয়ে ছুটে চলেছেন পাড়া মহল্লায়। পাশাপাশি পরিবর্তনের বাণি নিয়ে মাইকিং পোষ্টার ও লিফলেট বিলিয়ে প্রচারণা চালাচ্ছেন। বুধবার বিকেলে থেকেই দাউদকান্দি পৌরসভা নির্বাচনে প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণা জমজমাট হয়ে উঠে গোটা পৌরসভা এলাকা।

আওয়ামী লীগের উন্নয়নের ফিরিস্তি তুলে ধরে দাউদকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আহসান হাবীব চৌধুরী বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার দেশে যে উন্নয়ন করেছে, বিগত কোনও সরকার তা করতে পারেনি। উন্নয়নের জন্য মানুষ আওয়ামী লীগের প্রার্থীকেই ভোট দেবে। তিনি বলেন, গত পাঁচ বছরে পৌরসভাসহ পুরো দাউদকান্দিতে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন হয়েছে সবচেয়ে বেশি। আর তুলনামূলক ভাবে পৌরসভায় সবচেয়ে বেশি উন্নয়ন হয়েছে যা এখন দৃশ্যমান। আর বিধবা ভাতা, বয়ষ্ক ভাতা, মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য সম্মানিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে আওয়ামীলীগ সরকারের অবদান মানুষ ভুলে যায়নি। দাউদকান্দির মানুষও এর সুফল ভোগ করছে এবং তা শেখ হাসিনার সরকারের অবদান। অবকাঠামো, শিক্ষা, সংস্কৃতি প্রভৃতি উন্নয়নের জন্য আওয়ামী লীগ সরকারের বিকল্প নেই। এ কারণেই মানুষ আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী নাইম ইউসুফ সেইনকে নৌকায় ভোট পুণরায় মেয়র নির্বাচিত করবেন।

উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘সরকারদলীয় একজন ব্যক্তি যেভাবে সরকারের উচ্চ পর্যায়ে যোগাযোগ করতে পারবেন, অন্য দলের ব্যক্তিরা সেভাবে পারবেন না। আর উন্নয়ন করতে হলে কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ এবং লবিংয়ের কোনও বিকল্প নাই। গত পাচ বছরে মেয়র থাকাকালীন সময়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থী নাইম ইউসুফ সেইন উন্নয়নের মাধ্যমে বুঝিয়ে দিয়েছেন। ভোটাররা এ বিষয়টি এবার বুঝে গেছেন, তাই আওয়ামী লীগের প্রার্থীই হবে ভোটারদের পছন্দের প্রার্থী।’ সরেজমিনে একাধিক সাধারণ ভোটারদের সাথে কথা হলে তারা বলেন, আমাদের প্রয়োজন উন্নয়ন। সরকারি দলের প্রার্থী পাশ করলে আমাদের জন্য বেশি বেশি কাজ করতে পারবেন। উন্নয়নের জন্য নানা ধরণের প্রকল্প এবং অর্থ বরাদ্দ আনতে পারবেন। যা গত পাঁচ বছরে আমরা পেয়েছি। আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায়, তাই উন্নয়নের জন্যই আওয়ামীলীগের প্রার্থী বর্তমান মেয়র নাইম ইউসুফ সেইনকেই আমরা ভোট দিমু।

অপরদিকে উপজেলা বিএনপির জেষ্ঠ যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক ভিপি জাহাঙ্গীর আলম বলেন, গত ১২বছরে দাউদকান্দি উপজেলা ও পৌর বিএনপির নেতাকর্মীরা হামলা মামলাসহ বহু নির্যাতনের স্বীকার হয়েছেন। বিএনপির নেতাকর্মীদের প্রতি সরকারের এ নির্যাতনের ফলে মানুষের মধ্যে সহমর্মিতা সৃষ্টি হয়েছে। তাই সাধারণ ভোটাররা তাদের সহমর্মিতা, ভালোবাসা আর সহানুভ‚তি নিয়েই বিএনপি মনোনীত প্রার্থী নুর মোহাম্মদ সেলিমকে বিপুল ভোটে এবার দাউদকান্দি পৌর মেয়র নির্বাচিত করে নির্যাতনের জবাব দিবেন।

স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহাম্মদ আবু মুছা বলেন, আমি একসময় ছাত্র রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলাম। তখন থেকেই নেশা ছিল মানুষের সেবা করা। মাঝখানে জীবিকার তাগিদে প্রবাসে ছিলাম। প্রবাসে থেকেও অসহায় মানুষদের সাধ্য মতো সহযোগিতা করেছি। এখন প্রতিটি গ্রামে গিয়ে ভোটারদের ব্যপক সাড়া পাচ্ছি। সাধারণ ভোটাররা চায় পরিবর্তন। পৌরসভাকে মাদকমুক্ত এবং বেকার যুবকদের কর্মসংস্থান করাই আমার নির্বাচনী অঙ্গিকার। আর ইভিএমে ভোট গ্রহন হবে শুনে ভোটারদের মাঝেও ব্যপক আগ্রহ ভোট কেন্দ্রে গিয়ে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দেয়ার। তাই আমি শতভাগ আশাবাদি, জনগণ আমাকে মেয়র নির্বাচিত করে তাদের সেবা করার সুযোগ দিবে।
বিএনপি মনোনীত প্রার্থী নুর মোহাম্মদ সেলিম বলেন, দাউদকান্দি হলো বিএনপি অধ্যুষিত একটি এলাকা। দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে এলাকায় গিয়ে ভোটারদের ব্যপক সারা পাচ্ছি। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে এবং জনগণ যদি সঠিকভাবে ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারে তাহলে আমার বিজয় নিশ্চিত ইনশাল্লাহ।

বর্তমান মেয়র নাইম ইউসুফ সেইন বলেন, এবারের নির্বাচনে আমিসহ চারজন মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলাম। এদের মধ্যে দল আমাকে মনোনয়ন দেয়ায় বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞ। গত পাঁচ বছরে আমি মেয়র থাকা অবস্থায় দাউদকান্দিকে মডেল পৌরসভা গড়ার লক্ষে কাজ করেছি। চোখে পড়ার মতো অবকাঠামো উন্নয়ন করেছি। প্রতিটি ওয়ার্ডের উন্নয়ন আজ দৃশ্যমান । করোনাকালীন সময়ে কর্মহীন হয়ে পড়া পৌরবাসীদের ঘরে ঘরে খাদ্যসামগ্রী পৌছে দিয়েছি।

তিনি আরো বলেন, গত নির্বাচনের ইশতেহারের প্রায় ৮০ শতাংশ কাজ করেছি। পৌরসভার সকল রাস্তাঘাট, ড্রেনেজ ব্যবস্থা, পানি সরবরাহ, বিদ্যুৎ ও স্বাস্থ্য সেবার উন্নয়ন হয়েছে। সোলার বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত পৌরসভার প্রতিটি জনপথ। আমি শতভাগ আশাবাদি এবারের নির্বাচনে বিপুল ভোটে বিজয়ী হব ইনশাল্লাহ। বিজয়ী হলে দাউদকান্দি পৌরসভাকে উন্নয়নের মাধ্যমে প্রথম শ্রেণীতে উন্নীত কওে মডেল পৌরসভায় রূপান্তরিত করার চেষ্টা করব। আমি পৌরবাসীর কাছে দোয়া প্রার্থনা করি। তারা আমাকে বিপুল ভোটে নির্বাচিত করবেন এ আমার দৃঢ় বিশ্বাস।
দাউদকান্দি পৌরসভা ৯টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত। এখানে মোট ভোটার সংখ্যা ৩১ হাজার ৫৪২। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ১৫ হাজার ৬০২ জন এবং মহিলা ভোটার ১৫ হাজার ৯৪০ জন। ১৭টি ভোট কেন্দ্রের ৮৯টি ভোট কক্ষে এবারই প্রথম দাউদকান্দি পৌরসভা নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে।

আর পড়তে পারেন