সোমবার, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

নগরীর সংরাইশে সম্পত্তির বিরোধের জের ধরে সন্ত্রাসী হামলা, আহত ১

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ২০, ২০২০
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুমিল্লা মহানগরীর সংরাইশ এলাকায় সম্পত্তির বিরোধের জের ধরে সন্ত্রাসী হামলা ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় ৫ জনকে আসামী করে সংরাইশ মধ্যপাড়া (পাক পাঞ্জাতন মসজিদ সংলগ্ন) মৃত ফিরোজ মিয়ার পুত্র আমান উল্লাহ বাদী হয়ে কোতয়ালী মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযুক্তরা হলেন, সংরাইশ মুক্তার বাড়ির সামনের মৃত আবদুল কুদ্দুসের পুত্র শাকিল মুহুরী (৩৮), ঋষিপট্টির বিষ্ণু চন্দ্র দেবের পুত্র সুজন দেব (৪০) ও উজ্জ্বল দেব (৩৫), সংরাইশ নবগ্রামের জামালের পুত্র ইমরান, সংরাইশ দক্ষিণ পাড়ার দেলোয়ারের পুত্র মো: ইসমাইলসহ অজ্ঞাত আরো ১০/১৫ জন। এছাড়াও উল্লেখিত আসামীদের বিরুদ্ধে ১৫/৯/২০২০, ১৩/৯/২০২০, ১৮/৩/২০২০, তারিখে কোতয়ালী থানায় টি অভিযোগ রয়েছে এবং কুমিল্লা ফৌজদারী কার্যবিধি ১৪৫ ধারায় গত ২৭/৯/২০২০ইং তারিখ নোটিশ জারী করা হয়।

বিভিন্ন অভিযোগ থেকে জানা যায়, নগরীর সংরাইশ মধ্যপাড়া (পাক পাঞ্জাতন মসজিদ সংলগ্ন) মৃত ফিরোজ মিয়ার পুত্র আমান উল্লাহ দীর্ঘদিন প্রবাসে ছিল। কোতয়ালী মডেল থানার সংরাইশ মৌজার সাবেক দাগ নং-২৮২, হাল দাগ নং-১০৮৯, ১০৯০, ১০৯১ দাগের ৪৪ শতক ভূমির পৈত্রিক ওয়ারিশকৃত সম্পত্তির মালিক আমান উল্লাহ। উক্ত মৌজায় ওয়ারিশরা দীর্ঘদিন যাবত ভোগ দখল করে বসবাস করে আসছে। উক্ত ভূমিতে টিন সেড ঘর নির্মাণ করে ভাড়া দিয়ে রেখেছে।

উল্লেখিত আসামীরা ভাড়াটিয়াদের সাথে বিভিন্নভাবে অত্যাচার অবিচার করে আসছে। সুজন দেব ও উজ্জ্বল দেব উক্ত সম্পত্তি ক্রয় করেছে বলে দাবি করে আসছে। আসামীরা পরস্পর যোগসাজসে ওই আমান উল্লাহ পৈত্রিক সম্পত্তি দখল করার পায়তা করে আসছে। আমান উল্লাহসহ তার ভাই বোনসহ ওয়ারিশরা কুমিল্লা বিজ্ঞ আদালতে মোকদ্দমা দায়ের করে। যার নং-৪৩৭ দেওয়ানী মামলা চলমান রয়েছে।

এছাড়াও ফৌজদারী কা: বি: মোকাদ্দমা নং-৯৭৪/২০, ধারা-১৪৫ কা.বি. এর নিষেধাজ্ঞা জারী রয়েছে। তারপরও ভূমিদস্যুরা তাদের অত্যাচার থেমে নেই। প্রতিনিয়তই উক্ত জায়গায় বিভিন্ন অত্যাচার, হুমকি ধমকি দিয়ে আসছে। এই জের ধরে গত ১২/১২/২০২০ইং তারিখ সকাল ৬টায় শাকিল মুহুরী নেতৃত্বে সুজন দেব, উজ্জ্বল দেব, ইমরান ও ইসমাইলগণ সঙ্গীয় অজ্ঞাত নামা ১০/১৫ জন সন্ত্রাসীরা অস্ত্র শস্ত্র নিয়ে ওই সম্পত্তি জায়গায় নির্মিত টিনসেড ঘর জোড়পূর্বক অন্যায়ভাবে ভাংচুর করে প্রায় ৩০-৪০ হাজার টাকার ক্ষয়ক্ষতি করে। পরে আমান উল্লাহ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গেলে তাকে ইমরানসহ সন্ত্রাসীরা কিল ঘুষি মেরে মাটিতে ফেলে দিয়ে জখম করে। তার চিৎকারে ভগ্নিপতি মো: নাছির ও ভাগিনা জাহেদসহ অন্যান্যরা এগিয়ে এসে সন্ত্রাসীদের কবল থেকে রক্ষা করে। পরে তারা প্রকাশ্যে ভয়ভীতি প্রদর্শনসহ হুমকি ধমকি দেয় এবং খুন করে লাশ গুম করে ফেলবে বলেও হুমকি দেয়।

 

এছাড়াও উক্ত জায়ঘা দখল করে নিবে এবং ভাগিনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর করবে। এরপরদিন আসামী শাকিল মুহুরী জোড়পূর্বক অন্যানয়ভাবে উক্ত জায়গার ইট, বালু, সিমেন্ট এসে দেওয়াল নির্মাণের চেষ্টা করলে এতে বাঁধা দিলে করলেও তারা বাঁধা মানছে না।

এ বিষয়ে আমান উল্লাহ জানান, আমার পৈত্রিক সম্পত্তি জোড়পূর্বক দখলের চেষ্টা করছে শাকিল মুহুরী, সুজন দেব ও উজ্জ্বল দেবসহ বেশ কয়েকজন। বাঁধা দেয়ায় উল্টো আমাকে খুন, গুম করে ফেলার হুমকি দিচ্ছে। সন্ত্রাসীদের অত্যাচারে আমার ভাড়াটিয়া ভয়ে থাকতে পারছে না। তাদের বিরুদ্ধে আদালতে ও থানায় একাধিক অভিযোগ কররেও কোন সুরাহ হচ্ছে না।

আর পড়তে পারেন