শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

পহেলা বৈশাখ কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের ব্যাপক প্রস্তুতি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ১৩, ২০১৯
news-image

 

অনলাইন ডেস্কঃ
দরজায় কড়া নাড়ছে পহেলা বৈশাখ । ১৪২৬ বাংলা নববর্ষের এই দিনটিকে স্মরণ করে রাখতে প্রস্ত্তত কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজ । কুমিল্লা জেলা প্রশাসনের আয়োজনে এবং ভিক্টোরিয়া কলেজের সহযোগিতায় এবারও ভিক্টোরিয়া কলেজের উচ্চমাধ্যমিক শাখা থেকে নগরীতে মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করা হবে ।

তাই এ শোভাযাত্রাটি কিভাবে আরও সুন্দর ও প্রাণবন্ত করা যায় সে বিষয়টি নিয়ে দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন কলেজ প্রশাসনসহ কলেজের সকল সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের কর্মীরা।
কলেজ সূত্রে জানা যায়, ভিক্টোরিয়া কলেজে নববর্ষকে বরণ করে নিতে বরাবরের ন্যায় এবারও দিনব্যাপি কর্মসূচি হাতে নিয়েছে । ১৪ এপ্রিল রবিবার সকাল ৭টায় কলেজের উচ্চ মাধ্যমিক শাখার জামতলা থেকে নববর্ষ বরণ র্য্যলি শুরুর পর বিভিন্ন অনুষ্ঠানমালার মধ্যদিয়ে দিনব্যপী এই অনুষ্ঠান চলবে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ।

মঙ্গল শোভাযাত্রায় কলেজের সকল সাংস্কৃতিক সংগঠন ,শিক্ষক, সাধারণ শিক্ষার্থী এবং কর্মচারীদের নিয়ে বৈশাখী উৎসবে মেতে ওঠবে সবাই। বাড়তি আয়োজনে পান্তা-ইলিশ খাওয়ার জন্য কলেজে থাকবে নিজস্ব স্টল। কলেজর ৬টি নিজস্ব স্টলে সবার জন্য সকাল বিকাল উন্মুক্ত থাকবে । এতে তোলা হবে ঐতিহ্যের পিঠাপুলি ,ডাবের পানি ,সরবতসহ আপ্যায়ণের সুন্দর ব্যবস্থা ।

সংস্কৃতি অনুষ্ঠানের জন্য সাজানো হবে বিশাল মঞ্চ , দর্শকদের জন্য থাকবে প্যা-েল আর পর্যাপ্ত আসন ব্যবস্থা । র্যালিতে বাড়তি বিনোদনের জন্য থাকবে ঐতিহ্যের ঘোড়ার গাড়ি আর রানীর পালকি । সবমিলিয়ে দারুণ জমবে বলে আশা করছেন কলেজের বৈশাখ উদযাপন কমিটির সবাই ।

এ ব্যাপারে কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর রতন কুমার সাহা বলেন, অসম্প্রদায়িক চেতনার বাংলাদেশে অন্যতম উৎসব এই পহেলা বৈশাখ । এই উৎসব আমাদের কলেজের ইতিহাস এবং সংস্কৃতির সাথে জড়িত । গত বছর আমাদের কলেজের বর্ষবরণ উৎসব কুমিল্লার সর্বস্তরের মানুষের কাছে ব্যাপক সাড়া পড়েছে ।

এবার আমরা নতুন কিছু কর্মসূচি বৃদ্ধি করেছি। আশা করি কুমিল্লা সদরের এমপি মহোদয়, জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, সাংবাদিক মহল সহ সর্বস্তরের মানুষকে নিয়ে এ বছর বৈশাখী উৎসব সবার কাছে খুব উপভোগ্য হবে। এই সর্বজনীন উৎসবে আমরা কুমিল্লার সর্বস্তরের মানুষদের আমন্ত্রণ জানাই ।

বৈশাখ উদযাপন কমিটির আহবায়ক ও অর্থনীতি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আসফাক হোসেন বলেন, ঈদ মুসলমানদের ,পুজা হিন্দুদের ,তেমনিভাবে সবধর্মেরই নিজস্ব ভিন্ন ভিন্ন উৎসব আছে ।

কিন্তু সার্বজনীন উৎসব শুধুমাত্র একটি আর সেটি হচ্ছে পহেলা বৈশাখ ।

এই উৎসবে জাতি ,ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকল ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে মেতে উঠে এক প্রাণের উৎসবে । এই উৎসবটি আমাদের নিজস্ব সাংস্কৃতিকে তুলে ধরার একমাত্র বড় উৎসব । আমি মনে করি, এর মাধ্যমে জাতির চেতনা ও নিজস্ব হারানো কৃষ্টি ও ঐতিহ্যকে তুলে ধরার একটি সুবর্ণ সুযোগ রয়েছে ।

এছাড়াও কলেজের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক ও সামাজিক সংগঠনগুলোও কলেজের এই বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের সাথে একাত্মতা পোষণ করে অনুষ্ঠানকে আরো ঝাঁকজমক ও প্রাণবন্ত করে তুলতে নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছেন ।

কলেজের দ্বি-মাসিক সৃজনশীল মুখপত্র ক্যাম্পাস বার্তার সম্পাদক আর.কে.নীরব জানান তাদের পরিকল্পনার কথা । বৈশাখে কলেজে দিনব্যাপি কর্মসূচিতে ক্যাম্পাস বার্তার অনুষ্ঠান পর্বে থাকবে “বাঙ্গালী আনা” স্টল, যেখানে স্বল্প মূল্যে শতভাগ বাঙ্গালির খাবার পরিবেশন করা হবে। এছাড়াও থাকবে “বৈশাখী প্রেম” নামের একটি মজার নাটিকা, একক এবং দলীয় গান সহ আরো অনেক কিছু ।

ভিক্টোরিয়া কলেজ থিয়েটারের সভাপতি রিপন চৌধুরী আপন এবং সাধারণ সম্পাদক নূর হোসেন রাজিব জানান তাদের ভিন্ন আয়োজনের কথা। এবারের মঙ্গল শোভাযাত্রায় বাঙালির ইতিহাস ঐতিহ্য মন্ডিত বিভিন্ন গ্রামীন চরিত্রসমুহ তুলে ধরা হবে, এতে থাকবে ৪০টির মতো সাজ।

এছাড়াও থাকবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে বৈশাখের আগমনী নৃত্য ‘এসো হে বৈশাখ এসো এসো ‘ থাকবে আর্কষনীয় নাটিকা, গান, নাচ ও গ্রামীন জনগোষ্ঠীর ওপর একটি মডেলিং।

এছাড়াও কলেজের সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন, বিতর্ক পরিষদ, নোওর বাঁধন, রোভার স্কাউট ,রেডক্রিসেন্ট ,বিএনসিসি সহ সকল সংগঠন তাদের কর্মসূচি নিয়ে অনুষ্ঠান সাজানোর প্রস্ত্ততি নিচ্ছে ।

আর পড়তে পারেন