বুধবার, ১০ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

বাগমারায় প্রভাবশালীরা ভরাট করলো ২ শত বছর পুরনো দুই পুকুর!

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ১৫, ২০২২
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:
কুমিল্লার লালমাই উপজেলার বাগমারা এলাকা। বাজারটির পূর্ব দিকে উত্তর-দক্ষিণ বরাবর জাতীয় প্রধান ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথ , আর পশ্চিমে একইমুখী কুমিল্লা-নোয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়ক। এই বাজারটির উত্তর সীমানায় সড়ক পথের পশ্চিম পাশে রয়েছে শতাব্দির প্রাচীণ বাগমারা উচ্চ বিদ্যালয় । এই স্কুলের উত্তর সীমানা প্রাচীর ঘেষা রয়েছে বাগমারা গার্লস হাই স্কুল নামে অন্য আরেকটি প্রতিষ্ঠান। এই দুটি স্কুলের ঠিক পূর্বদিকে সড়ক ও রেলপথের মাঝে রয়েছে কমপক্ষে দু’শতাধিক বছরের পুরনো দুটি পুকুর। স্থানীয়ভাবে যা চৌধুরী পুকুর নামে পরিচিত। প্রতিটি পুকুরের আয়তন প্রায় দু’ একরের।

বাগমারা উচ্চ বিদ্যালয়ের গর্বিত ছাত্র বর্তমান অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল। স্কুলটির অবস্থানও তার পৈত্রিক জন্মস্থানের অনেকটা কাছাকাছি এলাকায়। বর্তমানে এই স্কুল দুটির গভর্নিং কমিটির সভাপতি অর্থমন্ত্রী নিজেই। সরকারীভাবে যেখানে পুকুর,ডোবা বা কোন জলাধার ভরাট সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ , সেখানে সেই নির্দেশনাকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে স্থানীয় রাজনৈতিক পরিচয়ে প্রভাবশালী একটি চক্র রাত-দিন সমানে ট্রাকযোগে মাটি এনে পুকুর দুটি ভরাট করে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় একাধিক মানুষ জানান, ১৯২১ সালে প্রতিষ্ঠিত বাগমারা উচ্চ বিদ্যালয়ের শততম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী গত ১৯ মার্চ ২০২২ ইং জাকজমক অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে পালন করা হয়েছে। সেখানে ভার্চ্যূয়ালী অর্থমন্ত্রী প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

এরপর অর্থাৎ গেল রমজানের শুরুতেই স্থানীয় লালমাই যুবলীগ আহবায়ক মোতালেব হোসেনের নেতৃত্বে সংগঠনের নেতা পুকুর দুটি ভরাট করে ফেলে।

উল্লেখ্য যে, সুপ্রাচীন কাল হতে এই এলাকার লোকজন ছাড়াও বিশেষ করে সড়কপথে চলাচলকারী মানুষদের গোসল,কাপড় ধোঁয়াসহ নিত্য প্রয়োজনে এই পুকুরের পানি ব্যবহার করা হতো। মাছ চাষ হতো। স্বাধীনতা পরবর্তীতে পুকুরের উত্তর পাড়ে বাগমারা উচ্চ বিদ্যালয়ের হোষ্টেল প্রতিষ্ঠার পর এখানকার আবাসিক ছাত্রদের একমাত্র পানির উৎস ছিল এই পুকুর দুটি।

এছাড়াও স্থানীয় নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি সূত্র আরো জানায়, এক সময় হোষ্টেলটির সামনের ভরাট হয়ে যাওয়া পুকুরটিতে আন্তঃ স্কুল সাঁতার প্রতিযোগীতাও হতো। তাছাড়া বর্ষার বৃষ্টিতে সড়ক ও রেলপথের পানি নিষ্কাশনে যেমন পুকুরটির গুরুত্ব ছিল,তেমনি স্থানীয় এলাকা ছাড়াও সড়ক-মহাসড়কের আশপাশে অগ্নিকান্ডে পানির অন্যতম উৎস হিসেবেও এই পুকুরের পানি ব্যবহৃত হতো।

স্থানীয় সুত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে আরো জানান, স্কুল কমিটির নেতৃবৃন্দের সাথে আতাতসহ সরকারী নির্দেশনা উপেক্ষা করে যখন ভরাট কার্যক্রম শুরু করে, তখন কুমিল্লা জেলা প্রশাসন, পরিবেশ অধিদপ্তর, লালমাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার, লালমাই থানাসহ সরকারের একাধিক দপ্তরে চিঠিসহ লিখিতভাবে ঐতিহ্যবাহী পুকুর দু’টি ভরাট বন্ধে প্রশাসনের সহযোগীতা চাইলেও সংশ্লিষ্ট কোন বিভাগই এগিয়ে আসেনি। আর এভাবেই দু’শ বছরের প্রাচীণ পুকুর দু’টির কবর রচিত হয়ে যায়। বর্তমানে ভরাট হওয়া পুকুর দুটিকে কেন্দ্র করে প্রভাবশালীদের রমরমা অর্থনৈতিক কার্যক্রম শুরু হয়ে গেছে।

উল্লেখ্য যে, স্কুলের পুকুর দুটি ভরাটের আবেদন জানিয়ে উল্লেখিত নেতৃবৃন্দ স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি আ.হ.ম মোস্তফা কামালের কাছে গেলে তিনি তাদের সেই আবেদনে সাড়া দেননি।

 

আর পড়তে পারেন