মঙ্গলবার, ২৮শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

ভালো নেই চৌদ্দগ্রামের বেদেরা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ২, ২০২২
news-image

 

মুহা. ফখরুদ্দীন ইমনঃ

বিচিত্র জাতি বেদেরা। ধর্মে ইসলাম, আচারে পুরা হিন্দু। যাযাবর জীবনযাপনই এদের ঐতিহ্য। প্রান্তিক এই জনগোষ্ঠীর সিংহভাগ নারী-পুরুষ ভাসমান জীবনযাপনে অভ্যস্ত। কথিত আছে, তাদের আদি গোষ্ঠী আরাকান রাজ্যের মনতং আদিবাসী গোত্রের দেশত্যাগী অংশ। জীবিকার তাগিদে এরা ঘুরে বেড়ায় গ্রামে, শহরে ও বন্দরে। সাধারণ মানুষকে দেখিয়ে থাকে সাপ-বানরের খেলা, জাদুবিদ্যাসহ নানাবিধ অদ্ভুত কাজ। বেদেদের জীবনযাপন, আচার-আচরণ এবং সংস্কৃতি সাধারণ মানুষের থেকে অনেকটাই আলাদা। বেদেরা মূলত নৃগোষ্ঠি। বাইদ্যা নামে এরা সর্বাধিক পরিচিত।

ইতিহাসবিদের মতে, ১৬৩৮ সালে শরণার্থী আরাকানরাজ বলালরাজের সঙ্গে মনতং জাতির যে ক্ষুদ্র অংশ বাংলাদেশে প্রবেশ করে তারা আশ্রয় নেয় বিক্রমপুরে। পরবর্তীতে এরা ছড়িয়ে পড়ে ঢাকা, মুন্সীগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, কুমিল্লা, শেরপুর, বগুড়াসহ দেশের প্রায় ৫৩ জেলায়। এমনকি ভারতের পশ্চিমবঙ্গ এবং আসামেও দেখা মেলে বেদে জনগোষ্ঠীর। পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বাংলাদেশে প্রায় ৭.৮০ লাখ বেদে জনগোষ্ঠী রয়েছে। বেদেরা শতকরা ৯০ ভাগই নিরক্ষর। উপার্জনের ক্ষেত্রে বেদেরা নারীনির্ভরশীল। তবে সম্প্রদায়ভিত্তিক পেশার ক্ষেত্রে এরা নারী-পুরুষ মিলেই উপার্জন করে থাকে। বেদেরা ঝাড়ফুঁক, শিঙা লাগানো, তাবিজ-কবচ বিক্রি করা, জাদুটোনা, সাপ ধরা, সাপের খেলা, বাঁদরের খেলা দেখিয়ে উপার্জন করে থাকে। তবে তাদের সংখ্যা অনেক কম। কালের বিবর্তনে মানুষ এসবে আস্থা হারিয়ে ফেলেছে বলে তারা নিজেদের পেশায় পরিবর্তন আনতে বাধ্য হয়েছে। তবে শিক্ষার অভাব, বাল্যবিবাহ প্রথা চালু, নিরাপদ সেনিটাইজেশন ব্যবস্থার অভাব, আধুনিক নাগরিক সুবিধাবঞ্চিত হওয়ায় পিছিয়ে পড়ছে দেশের প্রান্তিক এই জনগোষ্ঠি। তাদের অনেকে আজ পার করছে মানবেতর জীবন। জীবিকার তাগিদে এরা ঘুরে বেড়ায় গ্রামের বিভিন্ন হাটবাজারে। সাপ-বানরের খেলা, জাদুবিদ্যাসহ নানাবিধ অদ্ভুত কাজ করে থাকে বেদেরা। সাধারণ মানুষের থেকে অনেকটাই আলাদা জীবনযাপন, আচার-আচরণ এবং সংস্কৃতি তাদের।

চৌদ্দগ্রাম উপজেলার বাতিসা ইউনিয়নের কালিকাপুর গ্রামের বেদে পল্লীতে সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, এখানে মূলত দু’টি বেদে সম্প্রদায়ের বসবাস। একটি স্থানীয় বেদে গোত্র অপরটি ঢাকাইয়া বেদে গোত্র। স্বাধীনতার পূর্বেই এ এলাকায় বরইয়া টিলা নামক স্থানে ক্ষীর মোহন ও আপিল উদ্দিন নামে দুই বেদে সর্দার তাবু টানিয়ে তাদের পবিবার নিয়ে বসবাস শুরু করে। দেশ স্বাধীনের পরে ঢাকাইয়া বেদে সম্প্রদায়ের সর্দার নুরুল ইসলাম তার পরিবার নিয়ে এ অঞ্চলে আবাস গড়েন। কালের পরিক্রমায় পরিবারগুলোর সদস্য সংখ্যা বাড়তে থাকলে স্থানীয় লোকদের থেকে জমি ক্রয় করে তারা নতুন নতুন তাবু ও টং ঘর নির্মাণ করে বৃহৎ পরিসরে বসবাস শুরু করেন। বর্তমানে ওই এলাকায় স্থানীয় এবং ঢাকাইয়া বেদে মিলে প্রায় ৬০টি পরিবার বসবাস করছে। শিক্ষা সংস্কৃতিতে কিছুটা এগোলেও সচেতনতার অভাবের ফলে এখনো অনেক ক্ষেত্রে তারা পিছিয়ে রয়েছে। পর্যাপ্ত সরকারি সুযোগ-সুবিধার অভাবে এখনো তারা মানবেদর জীবনযাপনেই অভ্যস্ত। এখনো অনেকেই কুঁড়েঘর, টং ঘর ও তাবু টানিয়ে কোনো মতে পরিবার নিয়ে বসবাস করছে। পরিবারের সদস্য সংখ্যা বৃদ্ধিতে বসবাসে পড়তে নান বিড়ম্বনায়। সরকারি উদ্যোগেই তাদের জীবনমানে পরিবর্তন আসতে পারে। এ ব্যাপারে সরকারি কার্যকর প্রদক্ষেপের প্রত্যাশা দেশের অবহেলিত প্রান্তিক এ জনগোষ্ঠির।

এ ব্যাপারে কালিকাপুর গ্রামের ঢাকাইয়া বেদে সম্প্রদায়ের সর্দার মানিক মিয়া, আবুল হোসেন স্বপন, দুদ মিয়াসহ অনেকই আজকের কুমিল্লাকে বলেন, স্বাধিনতার পর থেকেই বংশীয় পরম্পরায় আমরা এখানে বসবাস করছি। কেই আমাদের খোঁজ খবর নেয়না। সাংবাদিকরা আমাদের খোঁজ খবর নিতে আসায় আমরা অত্যন্ত খুশি। আমাদের কথা পত্রপত্রিকায় আসলে হয়তো সরকার আমাদের প্রতি বিশেষ নজর দেবে। মানুষ আর আগের মত তাবিজ-কবজে বিশ্বাস করে না। সেকারণে আমাদের এখন রুটি-রুজিও কমে গেছে। করোনা পরিস্থিতিতে সামান্য কিছু চাল-ডাল সহায়তা ছাড়া তেমন কিছুই পাইনি। বয়স্ক ও বিধবা ভাতাসহ সরকারি বিভিন্ন ভাতা পাওয়া মত যোগ্য প্রচুর লোকজন আছে এখানে। কয়েকজন ছাড়া সকলেই ভাতা বঞ্চিত রয়েছে। বয়স্ক ও বিধবা ভাতা কার্ড করে দিলে এসব বয়স্ক ও বিধাব নারীদের জীবনযাপন আরো সহজ হবে। আমাদের এখানে অনেকেরই নিজস্ব কোনো ঘর নেই। অন্যের জায়গায় টং ঘর তৈরি করে কোনো মতে জীবনযাপন করছে। সরকারের আশ্রয়ণ প্রকল্প থেকে যদি কিছু ঘর বরাদ্ধ পেতাম তাহলে আমাদের জীবনযাপন আরো সহজ হতো।

বেদে সম্প্রদায়ের নারী সদস্য রিনা বেগম ও ছালেহা বেগম অশ্রুসিক্ত নয়নে আজকের কুমিল্লাকে জানান, ‘তাদের ঘরে উপযুক্ত ছেলে-মেয়ে থাকায় একই ঘরে থাকতে খুব কষ্ট হয়। শুনেছি সরকার অসহায় মানুষদেরকে ঘর নির্মাণ করে দিচ্ছে। আমাদের গোত্রের অনেক অসহায় লোকজন আছে, যাদের থাকার জায়গা ও ঘর নাই। সরকারিভাবে যদি একটি ঘর পেলে আমাদের সম্প্রদায়ের অসহায় পরিবারগুলোর অনেক উপকার হতো’।

এ বিষয়ে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম মনজুরুল হক আজকের কুমিল্লাকে বলেন, ‘সাংবাদিকের মাধ্যমে জেনেছি চৌদ্দগ্রামের বাতিসা ইউনিয়নের কালিকাপুর গ্রামে বেদে সম্প্রদায়ের লোকজন বসবাস করে। আবেদন পেলে যাচাই-বাচাই শেষে ওই জনগোষ্ঠির অসহায় ও গৃহহীন পরিবারগুলোকে সরকারের আশ্রয়ণ প্রকল্প থেকে ঘর নির্মাণ করে দেয়া হবে। গণসচেতনতা তৈরীর মাধ্যমে তাদের জীবন মানে পরিবর্তন আনয়নে উদ্যোগ নেওয়া হবে’।

আর পড়তে পারেন