রবিবার, ১৪ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

রাজনীতিতে কর্মীদেরকে পরনির্ভরশীল বানানোর কৌশল

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ১২, ২০১৭
news-image

ব্যারিস্টার সোহরাব খান চৌধুরীঃ
মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত বাংলাদেশের বীর বাঙালীকে শাসক গোষ্ঠি বিশেষ করে ৯১’র পরবর্তী শাসকের অনুসারী বিশেষ করে উপজেলার শীর্ষ নেতারা তাদের ব্যক্তি স্বার্থের জন্য এবং তাদের অনুসারীরা পেশী শক্তির ব্যবহার করে বা জুজুর ভয় দেখিয়ে দিনের পর দিন, মাসের পর মাস, বছরের পর বছর ধরে কর্মীদেরকে এক ধরনের ক্রীতদাসের মত পরনির্ভরশীল করে গড়ে তুলেছে। কর্মীরাও তাদের জ্ঞান, গরিমা, বুদ্ধি, মান মর্যাদা ও সক্ষমতা বাক্সবন্দি করে নেতার পায়ের তলে রেখে নেতার হাতে চাবি তুলে দিয়ে এক ধরনের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে দেতাং দেতাং করে শরীর নাচাঁতে নাচাঁতে বের হয়ে যায় পাইছি পাইছি বলে। নেতার পায়ের নিচে যখন মুখবন্ধ বাক্স থাকে, তখন নেতার পায়ে চুলকানি না থাকলেও এক পা থেকে লাথি মেরে আরেক পায়ে নিয়ে খেলার মজা নিতে থাকে। যখন কেউ জিজ্ঞাসা করে কি পেয়েছো নেতার কাছ থেকে তখন আর কিছুই দেখাতে পারেনা শুধু বলে পাইছি। বাড়িতে গিয়ে স্ত্রী কিংবা অভিভাবককেও কিছুই দিতে বা দেখাতে পারেনা। এক দিকে পরিবারের অশান্তি, অন্যদিকে নেতা কর্মীর অপকর্মের দ্বারা অর্জিত ভাণ্ডার বা মুনাফা থেকে বঞ্চিত হয়ে কখনো কখনো প্রতিবাদী হয়ে কেবলা পরিবর্তন করেও মাজা সোজা করে দাড়াঁতে না পেড়ে দেনার দায়ে জর্জরিত হয়ে রাজনীতি থেকে প্রস্থান করেছে। এদের মধ্যে যারা নেতার আশির্বাদে বা ছত্র ছায়ায় নিয়ন্ত্রণকারী হয়ে রয়ে গেছে (মাঝেমধ্যে নিয়ন্ত্রণকারীও বদল হয়) তারা অবশিষ্ট নেতাকর্মীদের ভাগ্য নিয়ন্ত্রক হয়ে গেছে। তারা প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার জন্য শপথ করে উঠে পড়ে লাগে তাদেরকে মাদকাসক্ত বানিয়ে বা রাজনীতির মাঠছাড়া বা গ্রামছাড়া করেছে, এরই মাঝে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক নেতাকর্মীরা অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের ভাষা হারিয়ে ভোতা হয়ে গেছে । নিচের কতগুলো উদাহরণই যথেষ্ট কিভাবে মানুষকে অকেজো বা বাকরুদ্ধ করে ক্রীতদাসের মত করে ফেলেছে।
১. যে কোন ইস্যুতে বা কোন কারণে থানায় মামলা করা হলে অথবা মিথ্যে মামলা সাজিয়ে নিয়ন্ত্রণকারী বাহিনীর সহায়তায় অন্যায়কারী একজন বা দুজন আসামীর সাথে আরো নিরপরাধ অনেককেই আসামী বা গং দিয়ে মামলা রুজূ করে হয়রানী করতে করতে একটি পরিবারকে ধ্বংস করে থাকে।
২.পুরাতন পারিবারিক বা জমি সংক্রান্ত মামলা পুনরুজ্জীবিত করে উভয় পক্ষকে আপস হওয়ার তাগিদ দিয়ে অথবা থানায় পড়ে থাকা নথিভুক্ত মামলার তদবির করে ওয়ারেন্ট বের করে থানায় আসামী ধরে নেওয়া এবং তদবির করে সেই আসামীকে ছুটিয়ে আনা খুব দক্ষতা বা নিপুণতার সাথে করে থাকে যার ফলে সাধারণ মানুষসহ কর্মীরা ভয়ে টটস্থ থাকে যে, কে কখন কোন বিপদে পড়ে যায়।
৩.কমিটির পদ পদবী বা কোন প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটির পদ পাওয়া বা না পাওয়ার ভয় অথবা দখলে থাকা পদ পদবী হারানোর ভয়ে সারাক্ষণ জ্বি হুজুর জ্বি হুজুর করতে করতে মুখে ফেনা তুলতে তুলতে দিনে ক্লান্ত হয়ে রাতে যখন ঘুমিয়ে পড়ে কিংবা ঘুমের মধ্যে স্বপ্নে চিৎকার করে উঠে যে আমার পদ কেড়ে নিল বলে, তখন পরিবারের লোকজন পানি এগিয়ে নিয়ে এসে স্বপ্নে চিৎকারের কারণ জিজ্ঞাসা করলে নিশ্চুপ থাকে।
৪. টেন্ডার কাজের নেগুশিয়েশনের কমিশন পাওয়া বা টেন্ডার পাওয়া না পাওয়া, টেন্ডার পাইলেও অতি কষ্টে কাজ সমাপ্ত করলেও ঠুনকো অযুহাতে বিল না পাওয়ার ভয়ে কখনো প্রতিবাদী হওয়ার দুঃসাহসও দেখাবে না। কাজের বিল কে কত পাবে বা না পাবে তা সংশ্লিষ্ট দপ্তরকে আগেই ঠিক করে দিয়ে রেখে কমিশন ভাগাভাগি করা হয়ে থাকে।
৫. যে কোন নির্বাচনে মনোনয়ন পাওয়া না পাওয়ার ভয় আর মনোনয়ন পেলেও ফেল করার ভয় থাকে, তাই আর কখনো এই নিরহ জনতা অন্যায়ের প্রতিবাদ ভুলে গিয়ে তোষণ নীতি পোষণ করে থাকে।
সর্বশেষ চাকুরী পাওয়া, চাকুরী চ্যুতির ভয়, বদলির ভয়, অপছন্দের লোক হলে চাকুরীর স্থলে গর হাজিরের শাস্তি, গ্রাম্য শালিসে ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হওয়ার ভয়, মামলা হামলার ভয়, দখলে থাকা জমা জমি হারানোর ভয়ে মানুষ এতটাই ভিতু হয়ে গিয়েছে যে এখন আর জুলুমকারীর অন্যায় কিংবা সমাজের অসংগতি চোখে পরলেও পাশ কাটিয়ে চলে যায়। অর্থাৎ যে সমাজ নির্ভয়ে কথা বলে না সে সমাজ নির্ভরশীল না।
লেখক-
ব্যারিস্টার সোহরাব খান চৌধুরী
আইনজীবি- বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট

আর পড়তে পারেন