বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

সাংসদ নির্বাচনে চৌদ্দগ্রামে বেগম জিয়াকে প্রার্থী চান নেতাকর্মীরা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ২৩, ২০১৮
news-image

স্টাফ রিপোর্টার ঃ

গত ৮ই ফেব্রুয়ারী বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া “জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট” দুর্ণীতি মামলায় আটক হয়ে কারাবন্দি হন। এরপর চৌদ্দগ্রামের গাড়ি পোড়ানো মামলাসহ একে একে আরও বিভিন্ন মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয় সাবেক এ প্রধানমন্ত্রীকে। একে একে সকল মামলায় জামিন পেলেও একমাত্র চৌদ্দগ্রামের ঐ মামলায় জামিন না পেয়ে এখনো কারাবন্দি তিনি। তাই আসন্ন ১১তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কুমিল্লা-১১ (চৌদ্দগ্রাম) আসনে তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী, কারাবন্দী বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে প্রার্থী হিসেবে দেখতে চান দলটির চৌদ্দগ্রাম উপজেলার বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা। এ লক্ষ্যে ইতিমধ্যেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, পোষ্টার এবং ব্যানারের মাধ্যমে সরব প্রচারনা চালাচ্ছেন তারা।

বেগম জিয়ার প্রার্থীতার পক্ষে প্রচারকারীদের ভাষ্য : কারাবন্দী জননেত্রী ৩ বারের সাবেক সফল প্রধানমন্ত্রী এবং সাবেক সেনাপ্রধান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের স্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে জেলে বন্দি করে রেখেছে সরকার। ইতিমধ্যেই প্রায় সকল মামলায় জামিন পেলেও চৌদ্দগ্রামের মিয়াবাজারের মামলায় বেগম জিয়াকে আটক রেখে নির্বাচন থেকে দুরে রাখার পায়তারা করছে তারা। তাই যদি বেগম জিয়া ও বিএনপি আসন্ন ১১তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণের স্বীদ্ধান্ত নেয় তবে চৌদ্দগ্রামের আপামর জনতা সরকারের এ নীল নকশা ব্যর্থ করে দিয়ে বেগম জিয়াকে চৌদ্দগ্রাম আসনে বিপুল ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী করে সমুচিত জবাব দেবে। এছাড়া চৌদ্দগ্রাম বিএনপি’র মেয়াদোত্তীর্ণ বর্তমান কমিটির বিভিন্ন বিতর্কিত কর্মকান্ডে চৌদ্দগ্রামে বিএনপি’র ইমেজ অনেকটাই ক্ষুন্ন হয়েছে। তাই তৃণমুলের নেতাকর্মীদের ভাবনা, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া প্রার্থী হওয়ার মধ্যদিয়েই চৌদ্দগ্রাম বিএনপি আবারো সোনালী যুগে ফিরে আসবে।

দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে প্রার্থী চেয়ে খোলা হয়েছে “জাতীয়তাবাদী ফাউন্ডেশন”সহ বিভিন্ন গ্রুপ ও ফেসবুক পেইজ। ইতিপুর্বে বড় বিভিন্ন বড় ভাইদের পক্ষ নিয়ে পক্ষে বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে গ্রুপিংয়ে থাকা নেতাকর্মীরাও বড় ভাইদের প্রার্থী না চেয়ে বেগম জিয়াকেই প্রার্থী চেয়ে ফেসবুক প্রচারণায় অংশ নিচ্ছেন। অল্প সময়ের মধ্যেই এসব পেজে ও আইডিতে ৩০ হাজারের কাছাকাছি লাইক পড়ে। জাতীয়তাবাদী ফাউন্ডেশনের ব্যানারে প্রচার শুরু করে চৌদ্দগ্রাম পৌরসভা বিএনপি’র আহবায়ক ও সাবেক উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি জিএম তাহের পলাশী, ড্যাব ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শাখা’র সভাপতি ডা: একেএম মহিউদ্দিন ভূঁইয়া (মাছুম), ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপি’র প্রচার সম্পাদক চৌদ্দগ্রামের কৃতিসন্তান ও সরকারী তিতুমীর কলেজের সাবেক ভিপি মোঃ হানিফ, কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সহ-সভাপতি নিয়াজ মাখদুম মাছুম বিল্লাহ, চৌদ্দগ্রাম উপজেলা বিএনপি’র সিনিয়র যুগ্ন আহবায়ক সাজেদুর রহমান মোল্লা হিরণ, উপজেলা বিএনপি’র যুগ্ন আহবায়ক আবু তাহের মজুমদার, উপজেলা ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আমেরিকা প্রবাসী আজাদ পাটোয়ারী, উপজেলা যুবদলের সাধারন সম্পাদক নাজমুল হক প্রমুখ।

এছাড়া কুমিল্লা দক্ষিন জেলা বিএনপি’র সহ-সভাপতি কাজী নাছিমুল হকের ঘনিষ্ঠজন হিসেবে খ্যাত, উপজেলা বিএনপি নেতা হুমায়ুন পাটোয়ারী, আজাদ চৌধুরী, জেলা যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক ও উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি তোফায়েল হোসেন জুয়েল, উপজেলা ছাত্রদলের সাধারন সম্পাদক আমিনুল ইসলাম ছুট্রু, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ-সভাপতি গাজী কবির হোসেন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি হামিদ মজুমদার সুমন, কেন্দ্রীয় ওলামা দলের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মাওলানা জিয়াউর রহমান মজুমদার। এছাড়াও এই প্রচারে অগ্র ভূমিকায় রয়েছেন উপজেলা বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদল, স্বেচ্ছাসেবক দলসহ বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃত্ব স্থানীয়রা।

প্রচার মাধ্যমে সক্রিয় ভূমিকায় রয়েছেন ১ নং কাশিনগর ইউনিয়ন বিএনপি’র সভাপতি ছিদ্দিক মেম্বার, উপজেলা বিএনপি’র সদস্য ওহিদুর রহমান, বিএনপি নেতা হারুন মজুমদার, ২ নং উজিরপুরে বিএনপি নেতা দলিলুর রহমান কামাল, আব্দুল্লাহ আল নোমান, ছাত্রদল নেতা সোহেল আরমান, ৩ নং কালিকাপুরে বিএনপি নেতা বিপ্লব চৌধুরী ভানু, মোখলেছুর রহমান, কামাল উদ্দিন, ছাত্রদল নেতা বাহার, খোরশেদ আলম, ৪নং শ্রীপুরে বিএনপি নেতা আমানউল্লাহ, শাহজাহান মজুমদার, আব্দুল জলিল, শাখাওয়াত হোসেন মিঠু, ৫নং শুভপুরে বিএনপি’র সভাপতি সাইদ মেম্বার, সেক্রেটারি ডা: আবুল বাশার, বিএনপি নেতা এ্যাড. রফিক, সাবেক সভাপতি আব্দুল কুদ্দুছ মজুমদার, ৬নং ঘোলপাশায় বিএনপি নেতা একেএম শাহ আলম, বিএনপি নেতা ফরিদ, ছাত্রদল নেতা এ্যাড. কামরুল, চৌদ্দগ্রাম পৌরসভায় অলি মেম্বার, আবুল খায়ের চেয়ারম্যান, অহিদ উল্লাহ ভূঁইয়া, কাজী জসিম, গোলাম মোস্তফা অভি, ছাত্রদলের এম দিদার, ৮নং মুন্সিরহাটে বিএনপি নেতা আব্দুর রাজ্জাক, আব্দুল কাদের বাবলু, জালাল মোল্লা, ৯নং কনকাপৈতের সভাপতি কবির আহমেদ, সাবেক সভাপতি আলম, বিএনপি নেতা সাংবাদিক এয়াছিন ভূঁইয়া, ১০নং বাতিসায় বিএনপি’র সভাপতি ইকবাল হোসেন বিপু, ছাত্রদল নেতা আবু বকর ছিদ্দিক, ১১নং চিওড়ায় বিএনপি নেতা ও জেলা যুবদল নেতা রাসেল আহমেদ মজুমদার, সাবেক ছাত্রদল নেতা জিয়াউর রহমান, ছাত্রদল নেতা কাজী রকিব, দেলোয়ার হোসেন মাছুম, ১২ নং গুনবতী ইউনিয়ন বিএনপি’র সাবেক সভাপতি রফিক চৌধুরী, বিএনপি নেতা আলী হোসেন পন্ডিত, মোঃ তুহিন, ১৩নং জগন্নাথদিঘীতে এয়াকুব চৌধুরী, মাহবুবুল হক, ১৪ নং আলকরা উপজেলা বিএনপি নেতা খন্দকার মীর হোসেন, বিএনপি নেতা সলিমুল্লাহ টিপু, কামরুল ইসলাম চৌধুরী, মাহবুবুর রহমান প্রমুখ।

তবে চৌদ্দগ্রামের অধিকাংশ নেতাকর্মী বেগম জিয়াকে প্রার্থী চাইলেও বর্তমান উপজেলা বিএনপি’র আহবায়ক কামরুল হুদা পক্ষের বেশ কিছু নেতাকর্মী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এর বিরোধীতা করে আসছে শুরু থেকেই। তাদের বক্তব্য চৌদ্দগ্রামে একমাত্র কামরুল হুদাই যোগ্য প্রার্থী। তার পক্ষে প্রচারকারিরা এমনও হুমকি প্রদান করে; দল মনোনয়ন না দিলেও সে শেষ পর্যন্ত চৌদ্দগ্রামে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিবে। অবস্থাদৃষ্টে মনে হয় সে বেগম জিয়া থেকেও বড় নেতা।
এ বিষয়ে চৌদ্দগ্রাম পৌরসভা বিএনপি’র আহবায়ক ও সাবেক উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি জিএম তাহের পলাশী বলেন, বেগম জিয়াকে জেলে রেখে বাংলাদেশে কোন নির্বাচন হলে তা জনগণ মেনে নিবে না। প্রায় সকল মামলায় তিনি জামিন পেলেও চৌদ্দগ্রামের গাড়ি পোড়ানোর মামলায় বেগম জিয়াকে জামিন দেওয়া হচ্ছে না। তাই চৌদ্দগ্রামের হাজার হাজার জাতীয়তাবাদী কর্মী সমর্থকদের প্রাণের দাবি বেগম জিয়া যেন চৌদ্দগ্রাম আসনে নির্বাচনে অংশ নেন।

চৌদ্দগ্রাম উপজেলা বিএনপি’র সিনিয়র যুগ্ন আহবায়ক সাজেদুর রহমান মোল্লা হিরণ এ বিষয়ে বলেন, কু অত্যাচার, মৃত্যুর হুমকিকে উপেক্ষা করেও বেগম জিয়া নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনে অংশগ্রহণের বিষয়ে কোন আপোষ করেন নাই। আমরা আশাবাদি আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন নির্দলীয়, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে অনুষ্ঠিত হবে। এই নির্বাচনে চৌদ্দগ্রামের আপামর জনতা দেশের জন্য নিজের জীবনকে উৎসর্গ করার স্বীকৃতি স্বরুপ বেগম জিয়াকে চৌদ্দগ্রাম আসনে নির্বাচনে অংশগ্রহণের অনুরোধ জানাচ্ছে। ইনশাআল্লাহ বেগম জিয়া চৌদ্দগ্রাম থেকে নির্বাচনে অংশ নিলে বিপুল ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হবেন।

উপজেলা বিএনপি’র যুগ্ন আহবায়ক আবু তাহের মজুমদার জানান, চৌদ্দগ্রামের আপামর জনতার এবং দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের প্রাণের দাবি বেগম জিয়া চৌদ্দগ্রামের প্রার্থী হিসেবে আসন্ন সংসদ নির্বাচনে অংশ নিবেন। ইনশাআল্লাহ বেগম জিয়াকে চৌদ্দগ্রামের আসনে বিপুল ভোটে বিজয়ী করার মাধ্যমে বর্তমান সরকারের সকল প্রকারের ঝুলুম ও নির্যাতনের জবাব দেওয়া হবে।

আর পড়তে পারেন