শুক্রবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

সৌদিতে সাংবাদিক সাইফুল রাজিবের আবেকঘন ফেসবুক স্ট্যাটাস

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ১৬, ২০২০
news-image

সালাহ উদ্দিন সোহেল, সৌদি আরবঃ
চলমান মহামারী প্রানঘাতি করোনা ভাই সৌদি আরবে হানা দেয়ার পর থেকেই সাংবাদিক সাইফুল রাজিব তার ফেসবুক পেইজ থেকে প্রতিদিনই প্রায় লাইভের মাধ্যমে প্রবাসীদের সমসাময়িক বিষয়, করোনা ভাইরাসের দিক নির্দেশনা, পাসপোর্ট,আকামা সংক্রান্ত জটিলতা বৈধ অবৈধ প্রবাসীদের নানা দিক নিয়ে পরামর্শমূলক সেবা প্রদান করতেন।আর এ জন্য তার জনপ্রিয়তা দিন দিন বেড়েই চলেছিল। তিনি স্থান করে নিয়েছেন হাজারো প্রবাসীর অন্তরে। কিন্তুু কে জানতো তার এ জনপ্রিয়তা কাল হবে।কিছু কুচক্রি মহল লেগেছিল তার পিচনে।মিথ্যা ভিক্তিহীন অভিযোগ এনে ১ বছরের জন্য বহিস্কার করা হয়েছিল জেদ্দা সাংবাদিকদের সংগঠন রিপোটার্স এসোসিয়েসন থেকে।শুধু তাই নয় কুচক্রি মহল এখনো হেয়পতিপন্ন করার চেষ্টা চালাচ্ছে বিভিন্ন ভাবে। তাই আজকে সাইফুল রাজিব একটি আবেকঘন স্ট্যাটাস দেন তার ফেসবুক পেইজে।

স্ট্যাটাসে লিখেনঃ

অন্য দশজনের মত আমিও একজন সাধারণ প্রবাসীর মতই জীবিকার তাগিদে সৌদি আরব অবস্থান করতেছি, আমার মূল লক্ষ্যই হচ্ছে উপার্জনের ভিত্তিতে পরিবারকে সচল রাখা, সেই লক্ষ্যে কেটে গেছে সৌদি আরবে বারটি বছর ।

সৌদি আরবের জেদ্দায় এই ১২ বছরে ক্ষেত্র বিশেষে অনেকের সাথেই পরিচয় হয়েছে,মানুষের সাথে চলতে গিয়ে অনেক কিছু শিখেছি জেনেছি বুঝেছি,আমার মূল কাজটির পাশাপাশি শখের বসে গান গাওয়ার কারণেই কমিউনিটির লোকজনের সাথে পরিচয় হয়ে উঠা, যদিও আমার পরিবারের কেউই গান বাজনার সাথে জড়িত না,আমিও কোন প্রাতিষ্ঠানিক ভাবে গান শিখিনি,মূল শিল্পীদের গান শুনে সেগুলো কাভার করেই পেয়েছি অনেকের ভালোবাসা সাধুবাদ, বিভিন্ন প্রোগ্রামে গিয়ে জেদ্দায় কর্মরত বিভিন্ন টিভি চ্যানেলের সাংবাদিক ভাইদের সাথে পরিচয় হওয়ার পরে তাদের কাছ থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে সাংবাদিকতা পেশায় ইচ্ছে জাগে, স্বীকার করতে কোন লজ্জা নেই এই পেশায় আসার জন্য যতটুকু শিক্ষাগত যোগ্যতা দরকার ততটুকু আমার নেই, আর এটির জন্য আমি নিজে দায়ী বাবা-মা সর্বোচ্চ দিয়ে চেষ্টা করেছিলেন উচ্চ শিক্ষিত করতে, কিন্তু নিজের খামখেয়ালিতে সেটি হয়ে ওঠেনি, তারপরেও শক্তি এটি ছিল প্রবাসীদের স্বার্থে কাজ করতে হয়তো খুব বেশি পড়াশোনার প্রয়োজন পড়বে না,কারন আমি যা তারাও তা, এই পেশায় আসার জন্য অনেকেই আশা দিয়ে নিরাশ করেছেন, কিন্তু আমি হতাশ হইনি,একটা সময় বেসরকারি স্যাটেলাইট চ্যানেল বাংলা টিভি আমার সেই স্বপ্ন পূরণ করে, প্রায় দেড় বছর বাংলা টিভি কর্তৃপক্ষের যথেষ্ট আন্তরিকতা ও প্রবাসীদের সহযোগিতায় বেশ কিছু কাজ করেছি যা সর্বমহলে প্রশংসিত হয়েছে,প্রবাসীদের পাশাপাশি কনস্যুলেট থেকে বিভিন্ন সরকারি দিবস অনুষ্ঠানের কাভারেজ এবং বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ জেদ্দা র সংবাদ কাভারেজের মাধ্যমে পেয়েছি কর্তৃপক্ষের ভালোবাসা, নিরলস পরিশ্রমের মধ্য দিয়ে পবিত্র হজে আসা বাংলাদেশি হাজিদের সকল খবরাখবর সবার আগে জানানোর চেষ্টা করেছি, সাথে ছিলাম জেদ্দার সামাজিক রাজনৈতিক সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোর পাশেই, দেশের মানুষের কাছে তুলে ধরেছি সৌদি আরবের ইতিহাস ঐতিহ্য সংস্কৃতি স্থাপনা,এজন্য করে বেরিয়েছি সৌদি আরবের এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে, এই পর্যন্তই সবকিছু ঠিক ছিল,আর আমার এই সকল কাজে সহযোগিতা করেছেন যুদ্ধে কর্মরত আমার সাংবাদিকসহ কর্মীরা,অর্থ দিয়ে সর্বোচ্চ সহযোগিতা করেছেন বাংলা টিভি দর্শক ফোরাম এর সম্মানিত সভাপতি মোহাম্মদ শাহিন লাল মিয়া, যার সহযোগিতায় বেশকিছু সফল অনুষ্ঠান আয়োজনের মধ্য দিয়ে সৌদি প্রবাসীদের কাছে পৌঁছে দিয়েছি বাংলা টিভির নাম জানাতে সক্ষম হয়েছি বাংলা টিভি প্রবাসীদের প্রতি ভালোবাসার কথা

এ পর্যন্ত সবকিছুই ঠিক ছিল, কিন্তু চলমান এই করোনা ভাইরাসের সকল আপডেট প্রবাসীদের কাছে পৌঁছে দেওয়া, তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করার জন্য রাত দিন না খেয়ে না ঘুমিয়ে নিরলস পরিশ্রম করেছি এখনো করে যাচ্ছি,আর এর প্রতিদান হিসেবে পেয়েছি লাখো প্রবাসীর ভালোবাসা, ঠিক সেটাই এখন আমার জীবনের কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে,সমর্থকদের পাশাপাশি তৈরি হয়েছে অল্পসংখ্যক হেটার্স, এরা সংখ্যায় কম হলেও শক্তির দিক থেকে অনেক শক্তিশালী, এরা প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে যাচ্ছে কিভাবে আমাকে ধ্বংস করা যায়, কিভাবে আমাকে বিপদে ফেলা যায়, কিভাবে আমাকে সাংবাদিকতা থেকে সরিয়ে দেওয়া যায়, কিভাবে আমাকে প্রবাসীদের কাছে বিষিয়ে তোলা যায়, তার ফলাফল গত দেড় মাস থেকে আপনারাই দেখতেছেন সেটা নতুন করে নাইবা বলি, আমি তাদের কখনো শত্রু ভাবি না, এবং তাদের থেকে নিজেকে খুব বেশি চালাক মনে করিনা, কিন্তু দুঃখ লাগে একটাই আমি তো কারো হক নষ্ট করতেছি না, কারো দুই টাকা নষ্ট করতেছি না, এই সাধারণ প্রবাসীদের কে সহযোগিতা করে পাশে থাকার চেষ্টা করি মাত্র, এবং মনে করি যদি আমাকে দিয়ে তাদের কোন উপকার হয়, কিন্তু এটি একটি মহলের পছন্দ হচ্ছে না

তারা আমার হাজারটা ভালো কাজকে কখনো সমর্থন করেনি এখনো করে না, কিন্তু একটি ভুল যদি কোথাও হয় সেটিকে অনেক বড় করে মানুষের কাছে উপস্থাপন করে, আমি মানি আমি ভুলে উদ্ধে না, মানুষ মাত্রই ভুল আমারও ভুল হয়, হতে পারে সেটি কোথায় বা হতে পারে কাজে,কিন্তু ভুলটি তারা শুধরিয়ে দিবে না, সেটাকে পুঁজি করবে,আর তা দিয়ে আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাবে

একজন গণমাধ্যমকর্মী যদি সর্বমহলে সাথে মিশতে না পারে, সবার কথা তুলে ধরতে না পারে, তাহলে সেটিকে পারবে, আর এটি যদি করতে না পারি তাহলে এই পেশায় থেকে কি লাভ?

গত দুই মাস ধরে আমার সাথে যা হচ্ছে তা যদি অন্য কারো সাথে হতো, এই চাপ সহ্য করতে না পেরে হয় সে স্ট্রোক করে মারা যেত না হলে আত্মহত্যা করত,কিন্তু মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন আমাকে সেটি সহ্য করে এখনো কাজ করার মত তৌফিক দিয়ে কে বাঁচিয়ে রেখেছেন,

পরিশেষে একটা কথা বলি, তাদের সাথে যুদ্ধ করে হয়তো আমি জয়ী হব হয়তোবা হেরে যাবো সেটা বড় কথা না, কিন্তু যে দেশে বসবাস করতেছি সে দেশের আইন আমাদের এই পেশাকে অনুমতি দেয়না, কথা এটি অনেক বড় অপরাধ, আর এখন রীতিমতো সেই হুমকিতেই পাচ্ছি যেকোনো সময় পুলিশ দিয়ে ধরিয়ে দিবে, তাই এই রিস্ক টি আমি নিতে চাই না, কারণ আমি একটি সাধারণ ঘরের ছেলে, আমাকে প্রবাসে পাঠিয়েছে সৎ পথে থেকে কাজ করে উপার্জন করে পরিবারকে ভালো রাখতে নিজের ভবিষ্যৎ গড়তে, আমার সাথে জড়িয়ে আছে আমার পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের ভবিষ্যৎ, আমার কিছু একটা হয়ে গেলে ক্ষতিগ্রস্ত হবে আমার পুরো পরিবার,

তাই তাদের কথা বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নিয়েছি হয়তো খুব শীঘ্রই দেড় বছরের সাংবাদিকতা পেশা কে ভালোবাসার স্বপ্নের এই কাজটি কে বিদায় জানিয়ে সাধারণ প্রবাসীদের কাতারে নাম লেখাবো

আমি সমালোচনায় ভয় পাইনা, অপমান আমাকে থামাতে পারেনা, কিন্তু আমি একজন অন্য দশজনকে বিপদে ফেলতে পারিনা

জানিনা আপনারা আমাকে মনে রাখবেন কিনা, হয়তো মনে রাখবেন হয়তোবা ভুলে যাবেন, কিন্তু আমি আপনাদের কি মনে রাখব কারণ এতক্ষণ চাই কিছু বললাম সবকিছুই কিন্তু দিয়েছেন আপনারা

সারা বিশ্ব আজ অদৃশ্য শক্তির কাছে কাবু, ইতিমধ্যে আমাদের মাঝ থেকে পরিচিত-অপরিচিত অনেকে বিদায় নিয়েছেন, আমাদের ভাগ্যে কি আছে তাও জানিনা, হয়তো নতুন এক পৃথিবীতে প্রবেশ করতে যাচ্ছি আমরা, সবকিছু শুরু করতে হবে আবার নতুন করে, এই পরিস্থিতিতে আমরা যারা বেঁচে আছি আমরা পরম ভাগ্যবান, আমাদের অতীত জীবনের পাপের জন্য ক্ষমা চেয়ে কিছু ভালো কাজ করার জন্য হয়তো আল্লাহ আমাদেরকে বাঁচিয়ে রেখেছেন, সুতরাং আসুন একে অন্যের উপর থেকে হিংসা বিদ্বেষ হানাহানি এসব কিছু প্রত্যাহার করি, একে অন্যকে ভালোবাসি পরস্পরের বিপদে এগিয়ে আসি, যে কর্মের জন্য আল্লাহ পাক আমাদেরকে সৃষ্টি করেছেন আমরা সবাই যেন সেই কাজটি করি, ঘরে থাকুন নিরাপদে থাকুন, মনোবল হারাবেন না, সবার জন্য শুভকামনা

আর পড়তে পারেন