বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

অণুগল্প : বিশ্বকাপের উত্তেজনা- কবির কাঞ্চন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ৫, ২০১৮
news-image

 

অণুগল্প :

বিশ্বকাপের উত্তেজনা
কবির কাঞ্চন

এই যে ভাই, আপনি ব্রাজিল নাকি আর্জেন্টিনা? খুব উৎস্যুক হয়ে জিজ্ঞেস করলো মিজান সওদাগর।
– না ভাই, আমি ব্রাজিল বা আর্জেন্টিনা কোনটাই নই। আমি জুয়েল। আমাকে আগে এক কাপ চা দিন।
– চা দেবো। আগে বলেন, এবারের বিশ্বকাপে আপনি কোন দলের সমর্থক।
জুয়েল রেগে গিয়ে বলল,
– ধুত্তুরী ভাই, আপনি দল দল করে পাগল হয়ে গেছেন। আপনার দোকানের চা-ই খাবো না।
এই কথা বলে দোকান থেকে বেরিয়ে যেতে উদ্যত হলো জুয়েল। মিজান সওদাগর জুয়েলের মনোভাব বুঝতে পেরে কোমল গলায় বলল,
– দুঃখিত ভাই, আপনার সাথে একটু মজা করলাম। আপনি বসুন। আমি চা দিচ্ছি।
মিজানের এমন আচরণ জুয়েলের মনের সব রাগ দূর করে দেয়। জুয়েল আবার টেবিলে বসলো।
এরপর চায়ে চুমুক দিয়ে লুকিয়ে মিজান সওদাগরের মুখের দিকে তাকালো।
জুয়েল মনে মনে ভাবতে লাগলো, লোকটা খুব লজ্জা পেয়েছে। বোধ হয় মুখের ওপর ওভাবে কড়া কথা বলা ঠিক হয়নি। বেচারা নিশ্চয় কোন দলকে মন দিয়ে ভালোবাসেন।
এসব ভাবতে ভাবতে মিজান সওদাগরকে উদ্দেশ্য করে বলল,
– মিজান ভাই, আপনি বিশ্বকাপে কোন দলের সমর্থক?
মিজান মৃদু হেসে বলল,
– আমার প্রিয় দল আর্জেন্টিনা। মেসিদের খেলা আমার খুব ভালো লাগে। জুয়েল ভাই, আপনার?
এবার জুয়েল মিষ্টি হাসি দিয়ে বলল,
– আমি তেমন ফুটবল বুঝি না। তাছাড়া সারাদিন কাজে ব্যস্ত থাকি। খেলা দেখার সময় পাই না। তবু সেই ছোটবেলা থেকে ব্রাজিলের খেলা আমার ভালো লাগতো। বিশেষ করে ৯৪, ৯৮ ও ২০০২ সালের ব্রাজিল দলের খেলায় আমি মুগ্ধ ছিলাম।

জুয়েলের কথা শোনে আশাহত হয় মিজান। তার মুখ থেকে কোন কথাই বেরুচ্ছে না। আশা করেছিল তার মতো আর্জেন্টাইন সমর্থক হবে। নয়তো নিরপেক্ষ থাকবে। কিন্তু ব্রাজিল সমর্পক তো মেনে নেয়া যায় না। কেউ ব্রাজিলের গুণগান গাইলে তার ভালো লাগে না। ইচ্ছে করে দোকান থেকে তাকে জোর করে বের করে দিতে। শুধু ব্যবসার খাতিরে তা পারে না।
এরিমধ্যে জুয়েলের পাশে এসে বসেছে সজীব। বয়সে মিজানের সমবয়সী। গার্মেন্টসে চাকরি করে। অফিস থেকে ফিরে এসে মিজানের দোকানে আড্ডায় মাতে সে। বলা যায় এ দোকানের একজন নিয়মিত কাস্টমার। দিনে দিনে মিজানের সাথে ওর ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক গড়ে উঠেছে। প্রায় সব বিষয়ে দুজনের খুব মিল রয়েছে। শুধু খেলায় যত পার্থক্য!
সজীব সবসময় রসিকতা করতে পছন্দ করে। তার কথা শুনে হাসে না এমন লোক পাওয়া ভার। সে মিজানের দিকে আড় চোখে তাকিয়ে বলল,
– কি খবর, মিজান ভাই?
– ভালো। কাল তো আর্জেন্টিনা জিতে দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠে গেল!
– উঠলে কী হবে! আবার হারবে।
– আমার আর্জেন্টিনা নিয়ে টানাটানি করতে হবে না। তোমার ব্রাজিল নিয়ে টেনশন করো। দ্বিতীয় রাউন্ডে যায় কিনা সন্দেহ আছে!
– ব্রাজিল গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই দ্বিতীয় রাউন্ডে যাবে, ইনশাল্লাহ। তোমার আর্জেন্টিনা তো মরে মরে উঠেছে।
সজীবের কথা শুনে মিজান প্রচন্ড রেগে গিয়ে বলল,
– আমার দোকানে বসে আর্জেন্টিনাকে নিয়ে কেউ কোন বাজে মন্তব্য করো না।
– করলে কী হবে?
– আমি তাকে ধাক্কা দিয়ে দোকান থেকে বের করে দেব।
– এই ব্যাটা, পারলে ধাক্কা দে না?
এই কথা বলে সজীব মিজানের দিকে এগুতেই মিজান তাকে সজোরে ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলে দেয়। সজীবও উত্তেজিত হয়ে তেড়ে আসে। জুয়েলসহ উপস্থিত লোকজনের মধ্যস্থতায় ঝগড়া থামে। সজীব রাগ করে দোকান থেকে বেরিয়ে যায়।

এভাবে দু/চারদিন কেটে গেল। একদিন রাতে হঠাৎ মিজানের ঘুম ভেঙ্গে যায়। সজীবকে নিয়ে দুঃস্বপ্ন দেখেছে সে।
ঘুম ঘুম চোখে সজীবের আবছা আবছা মুখখানা তার চোখে ঘুরেফিরে ধরা দেয়। মিজানের মনে পড়ে, এই সজীব সবসময় তার বিপদআপদে ঝাঁপিয়ে পড়তো। শুধু খেলা নিয়ে ওর সাথে অমন আচরণ করা ঠিক হয়নি। আবার ভাবতে লাগলো, সজীবের নিশ্চয় সামনে কোন বিপদ আসছে। নইলে ওকে নিয়ে খারাপ স্বপ্ন দেখবো কেন? তাছাড়া আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল নিয়ে আমরা বেশি মাতামাতি করছি। নিজের ঘনিষ্ঠ বন্ধকে পর্যন্ত দূরে ঠেলে দিয়েছি। কিছুদিন পর তো বিশ্বকাপ খেলা এমনিতেই শেষ হবে। আর্জেন্টিনা তো আমার কোন কাজে আসবে না।
ইত্যাদি ভাবতে ভাবতে আবার ঘুমোতে চেষ্টা করলো। কিন্তু চোখে ঘুম নেই। সারারাত ছটফট করতে করতে কেটে গেল তার।

পরদিন সন্ধ্যায় সজীব মিজানের দোকানের সামনে দিয়ে চলে যাচ্ছে। দোকানের দিকে ফিরে তাকাচ্ছে না। মিজান সওদাগর দোকান থেকে বেরিয়ে পিছন থেকে সজীবকে উদ্দেশ্য করে আর্দ্র গলায় বলল,
– এই সজীব, এদিকে আয়। তোর সাথে আমার কথা আছে।
সজীব মিজানের ডাকে কষ্টের সুর অনুভব করে। এরপর কোনকিছু না ভেবে দৌড়ে ছুটে আসে দোকানের দিকে । মিজান তাকে জড়িয়ে ধরে কাঁদতে লাগলো। সজীবও কাঁদছে। উপস্থিত সবাই অবাক চোখে তাদের দিকে তাকিয়ে আছে।
মিজান সজীবকে বলল,
– তুই আমার সবচেয়ে ভালো বন্ধু। সামান্য খেলা নিয়ে আমি তোর সাথে আমার ঝগড়া হয়। সেই থেকে তুই আমাকে দেখলে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছিস। আমিও তাই। আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল আমাদের দেশ নয়,প্রতিবেশী রাষ্ট্রও নয়। ওরা আমাদের চিনেও না। তোর আর আমার মধ্যে ওদের নিয়ে যে ঝগড়া হয়েছে ওরা তা জানেনি, জানবেও না। যার জন্য আমাদের বন্ধুত্বের সম্পর্ক নষ্ট হচ্ছে সে আমার কেউ নয়। এ আমাদের বোকামি ছাড়া কিছু নয়। এতো দিন আমি খেলার প্রতি অন্ধ ছিলাম। গতরাতে ঘুমে তোকে নিয়ে দেখা সেই স্বপ্ন আমার সব ভুল ভেঙ্গে দিয়েছে। বিশ্বাস কর, আমি তোকে ভালোবাসি; আর্জেন্টিনাকে শুধু খেলায় সাপোর্ট করি মাত্র।
সজীব আবেগী কন্ঠে বলল,
– সেদিন তোর সাথে ঝগড়ার পর আমি মনে খুব কষ্ট পেয়েছিলাম। সামান্য খেলার জন্য আমার প্রিয় বন্ধু আমাকে তার দোকান থেকে ধাক্কা দিয়ে বের করে দিয়েছে। তোর দোকানের সামনে দিয়ে যেতে এই কথা মনে পড়ে যায়। তাই মুখ ফিরিয়ে চলে যেতাম। কিন্তু কেন জানি মন ফেরাতে পারতাম না। মনে মনে চেয়েছিলাম তুই শুধু একবার আমায় ডাক দে। তাহলে আবার তোর সাথে মিশবো। সব রাগ মন থেকে মুছে ফেলবো।
– আমি সেদিনের অনাকাঙ্খিত ঘটনার জন্য দুঃখিত ও লজ্জিত, বন্ধু। আজ থেকে আর আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল নিয়ে কারোর সাথে তর্ক হবে না। সবাই মিলে এক সাথে বসে খেলা উপভোগ করবো। তুই কি বলিস?
– আমিও সেদিনের আচরণের জন্য অনুতপ্ত। তুইও আমাকে ক্ষমা করে দিস। আমি তোর কথায় সম্পূর্ণ একমত।

পরদিন আবার খেলা শুরু হয়ে গেছে। মিজান সওদাগর দোকানের টিভিটা অন করে ক্যাশ বক্সের পাশে বসেছে। সজীবও ঠিক তার পাশের চেয়ারে বসেছে। পুরো দোকানের একটি সীটও ফাঁকা নেই। খেলায় টানটান উত্তেজনা চলছে। হঠাৎ মিজান সওদাগর বলে উঠলো,
– এই হলো আর্জেন্টিনা। বিশ্বের সেরা দল। আর্জেন্টিনার সাথে কেউ খেলায় পারবে না।
সজীব বাঁকা চোখে মিজানের দিকে তাকিয়ে দীর্ঘশ্বাস ছাড়লো। তারপর বলল,
– আগামীকাল ব্রাজিলের খেলা দেখিস। তখন বুঝতে পারবি, ফুটবল খেলা কাকে বলে! ফুটবল খেলা কতো সুন্দর!

আর পড়তে পারেন