শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লার ব্রিটানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিষ্টারকে অপসারণ ও প্রাণনাশের হুমকি ! থানায় অভিযোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ২৩, ২০২২
news-image

ডেস্ক রিপোর্ট:

কুমিল্লার  ব্রিটানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরি থেকে অপসারণ করার ষড়যন্ত্র ও প্রাণনাশের হুমকি প্রদানের অভিযোগে  সদর দক্ষিণ মডেল থানায়  লিখিত অভিযোগ করেছেন এ বিশ্ববিদ্যালয়ের  রেজিস্ট্রার, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) বিশ্ববিদ্যালয়ের  BoT– চেয়ারম্যানের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পরিচালক (IQAC) ও বিষয়ভিত্তিক অধ্যাপনাসহ চার অতি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বের অধিকারি ড. আনোয়ার জাহিদ।

প্রথমত: বেআইনিভাবে বেতন বন্ধ করে দেয়া, অতঃপর অফিস কক্ষ তালা দেয়া, পরবর্তীতে ২০১০ এর আইন বিধি বহির্ভুতভাবে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ ব্যতীত ১৪ অগাস্ট  একটি কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়ার মাধ্যমে তাকে অপসারণ করার ষড়যন্ত্র  ও জীবননাশের হুমকির বিরুদ্ধে  ২১শে  আগস্ট  সদর দক্ষিণ মডেল থানায় একটি নিয়মিত অভিযোগ দায়ের করেন ড. আনোয়ার জাহিদ।

সদর দক্ষিণ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বিষয়টি  তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণের জোর আশ্বাস দিয়েছেন।

মামলার বিবরণে উল্লেখ্য করা হয়েছে, রেজিস্ট্রার ছুটিতে থাকা অবস্থায় কয়েকজন কর্মকর্তা/কর্মচারীর সামনে শিহাব উদ্দিন আহমেদ, পিতা : মরহুম শফিউদ্দিন আহমেদ, অফিসার (মাকেটিং) রেজিস্ট্রার কক্ষের চাবিটি নিয়ে গেছে। চেয়ারম্যান, বোর্ড অব ট্রাস্টিজ সৈয়দ এহসানুল হক বছরের সিংহভাগ সময় লন্ডনে বসবাসের কারণে তার টেলিফোন বা ইমেইলকৃত নির্দেশ মতো তার দ্বারা এককভাবে মনোনীত ভিসি ইনচার্জ দায়িত্বপালন করেন। বর্তমান ভারপ্রাপ্ত ভিসি র বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের তহবিল থেকে অতিরিক্ত টাকা উত্তোলন , অবৈধ পন্থায় পদোন্নতি ও ভুয়া যোগ্যতা দেখিয়ে ভিসি হিসেবে রাষ্ট্রপতি কর্তৃক নিয়োগ প্রাপ্তির প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন।

বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকাংশ ফাইলপত্র রেজিস্ট্রারের কক্ষের দেয়ালের সাথে বানানো আলমারিতে এবং অফিস কক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও কম্পিটার অপারেটর সঞ্জয় দাস এর কাছে । এগুলোর তালাচাবি তার নিকট থাকলেও রেজিস্ট্রারের টেবিলের ড্রয়ার এবং কেবিনেটে রেজিস্ট্রারের ব্যক্তিগত চেক বই, এনআইডি, টেক্স বিটার্ন, টিআইএন সহ ব্যক্তিগত মূল্যবান জিনিসপত্র এবং রেকে লিখিত বইয়ের পান্ডুলিপি এবং মূল্যবান বইপত্র ও ডকুমেন্টস রয়েছে তা কারো দ্বারা ক্ষতিসাধন, খোয়া যাওয়া ও বিনষ্ট হওয়ার ও সম্ভাবনা রয়েছে। এমনকি আমার ব্যবহৃত পিসিটিও ভিসি (ভারপ্রাপ্ত) অফিসের প্রয়োজনে ব্যবহার করতেন।

এদিকে কর্মকর্তা কর্মচারীদের মধ্যে প্রতিষ্ঠান ত্যাগের হিড়িক পড়েছে , অনেকের বেতন, ভাতা ও বকেয়া রয়েছে। ছাত্রছাত্রীরা এ পরিস্থিতিতে চরম হতাশায় নিমজ্জিত। যে কোনো ধরণের বিশৃঙ্খলা ঠেকাতে আইনশৃখলা বাহিনী সতর্ক অবস্থানে রয়েছে।

আর পড়তে পারেন