মঙ্গলবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লা মহানগর ছাত্রলীগ: তিন মাসের আহ্বায়ক কমিটি ৬ বছরেও পূর্ণাঙ্গ হয়নি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ১, ২০২১
news-image

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু:
৭ সদস্য বিশিষ্ট ৩ মাস মেয়াদী কুমিল্লা মহানগর ছাত্র্রলীগ এখন ৬ বছর অতিক্রম করেছে। গুরুত্বপূর্ণ এই কমিটি ৬ বছর পরও পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে রূপ নিতে পারেনি। এই কমিটির সভাপতিসহ ৪ সদস্যও বিবাহিত। মহানগর আ’লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে গ্রুপিং বিদ্যমান থাকায় এই কমিটি পূর্ণাঙ্গ হতে পারেনি বলে একাধিক সূত্র জানায়। এছাড়া মহানগর আ’লীগের বিভিন্ন ইউনিট মেয়াদহীন এবং নানা সমস্যায় জর্জরিত। মহানগর ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি না হওয়ায় নেতাকর্মীদের মাঝে বিরাজ করছে চরম হতাশা ও ক্ষোভ। এছাড়া তরুণ নেতৃত্ব সৃষ্টিতে দেখা দিয়েছে প্রতিবন্ধকতা।ফলে সাংগঠনিকভাবেও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সংগঠনটি ।

জানা যায়, ২০১৫ সালের ২০ জুলাই কুমিল্লা মহানগর ছাত্রলীগের ৭ সদস্যবিশিষ্ট এই কমিটির অনুমোদন দেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলম । ওই কমিটিতে আহ্বায়ক পদে আবদুল আজিজ সিহানু, যুগ্ম আহ্বায়ক পদে নাইমুল হক হিমেল, গোলাম সারোয়ার কাওসার, সাইফুল আলম রবিন, মো. ফয়সাল হোসেন, নুর মোহাম্মদ সোহেল ও সাকিব আল হাসানকে দেয়া হয়। ৩ মাসের আহ্বায়ক কমিটি ৬ বছর ৩ মাসে গড়ালেও আজ পর্যন্ত পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠিত হয়নি। আরও জানা যায়, ওই কমিটির পদ-পদবি নিয়ে একই বছরের ১১ এপ্রিল কুমিল্লা টাউন হল মাঠে ছাত্রলীগের সম্মেলনকে ঘিরে দু’গ্রুপের সংঘর্ষ হয়। ওই সংঘর্ষে কুমিল্লা শহর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সাইফুল ইসলাম নিহত হন।

মহানগরের কমিটির অন্যতম শাখা কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের বেহাল দশা। ২০১৫ সালের ৩১ জুলাই ২১ সদস্য বিশিষ্ট ৩ মাসের আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করা হয়। ৬ বছর ২ মাসেও হয়নি পূর্ণাঙ্গ কমিটি। এই কমিটির সদস্য সচিব নাছিমুল ইসলাম হেলাল বিয়ে করে জাপানে রয়েছেন। নানা অনিয়মের কারণে এই কমিটির আশিক, জোবায়ের ও বাবু নামের তিন নেতাকে বহিষ্কার করা হয়। এ কমিটির অনেকেরই এখন ছাত্রত্ব নেই। অনেকেই বিয়ে করেছেন, চাকরি করছেন এবং কেউ কেউ বিদেশে অবস্থান করছেন । আবার অনেকের বিরুদ্ধে মামলাও রয়েছে।

কুমিল্লা সরকারি কলেজের কমিটি নেই। বিভিন্ন অনিয়মের কারণে ভেঙে দেওয়া হয়েছে। কমিটির সাবেক আহ্বায়ক হাদী বিয়ে করে এখন ইতালিতে অবস্থান করছেন।বর্তমানে সাবেক কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক সাকিব সরকারি কলেজ ছাত্রলীগকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

কুমিল্লা সিটি কলেজে কোন কমিটি নেই বলে একাধিক সূত্র জানায় । কুমিল্লা পলিটেকনিক্যাল কলেজ ও অজিত গুহ কলেজ ছাত্রলীগের কমিটির মেয়াদ নেই।

মহানগরীর ২৭টি ওয়ার্ডের কমিটিগুলোর বেশিরভাগই মেয়াদোত্তীর্ণ। সম্মেলন করে আজও কমিটি দেওয়া সম্ভব হয়নি বেশ কয়েকটি ওয়ার্ডে। অনিয়মের কারণে নগরীর ১ নং ওয়ার্ডের কমিটি ভেঙে দেওয়া হয়েছে। ৩ নম্বর ওয়ার্ড কমিটির সাধারণ সম্পাদক এখন প্রবাসে, ৫ নম্বর ওয়ার্ড সভাপতির বিরুদ্ধে নারী কেলেঙ্কারির ঘটনার পর সভাপতি পদ থেকে তাকে বহিষ্কার করা হয়, ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সভাপতি চাকরিজীবী, ১১ নম্বর ওয়ার্ডের সভাপতি পদত্যাগ করে বিয়ে করেছেন, সাধারণ সম্পাদক ধ্রুব মাদকসহ চান্দিনায় গ্রেফতার হয়েছেন, ১৫ নং ওয়ার্ডের সভাপতি পাপ্পু এখন কর্মের সন্ধানে পর্তুগাল অবস্থান করছেন। ২২ নং ওয়ার্ডের আহ্বায়ক রিপন সড়ক দুঘর্টনায় মারা গেছেন। যুগ্ম আহ্বায়ক মেহেদী অস্ত্র মামলায় গ্রেফতার হয়েছেন। এছাড়া এই ওয়ার্ডের যুগ্ম আহ্বায়ক বিবাহিত। ২৩, ২৪, ও ২৫ নম্বর ওয়ার্ড সভাপতি বিবাহিত। এ ছাড়া ৪, ৯ এবং ২১ নম্বর ওয়ার্ডে আজ পর্যন্ত সম্মেলন করে কমিটি দেওয়া সম্ভব হয়নি।

স্থানীয় নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন, যত দ্রুত আহ্বায়ক কমিটি ভেঙে নতুন কমিটি হবে, দলের জন্য ততই মঙ্গলজনক। কারণ অনেক ছাত্রনেতা অপেক্ষায় রয়েছেন কবে নতুন কমিটি হবে? কবে পদ পাবে, সংগঠনের জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত হয়ে কাজ শুরু করবে ।পূর্ণাঙ্গ কমিটি না হওয়ায় নেতাকর্মীদের মনোবল ভেঙে গেছে। কার্যক্রমেও নেমে এসেছে স্থবিরতা।

কুমিল্লা মহানগর ছাত্রলীগের আহ্বায়ক আবদুল আজিজ সিহানুক বলেন, আমিও চাই বর্তমান আহ্বায়ক ভেঙে নতুন কমিটি দেওয়া হোক। নতুন কমিটির মাধ্যমে তরুণরা উঠে আসার সুযোগ পাবে। এদিকে আমারও বয়স হয়েছে। দীর্ঘ ৬ বছর ধরে এই কমিটির নেতৃত্ব দিয়ে আসছি । চেষ্টা করেছি মানুষের জন্য কাজ করতে। সততা ও নিষ্ঠার সহিত কাজ করেছি। করোনার সময় মাঠে ছিলাম। অসহায় মানুষের জন্য কাজ করেছি। আর দলীয় সাংগাঠনিক কার্যক্রমে আমরা সব সময় সক্রিয় ছিলাম।

আর পড়তে পারেন