মঙ্গলবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

নানা বির্তকে জর্জরিত কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ চলছে ৭ বছর ধরে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ২৭, ২০২১
news-image

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু:
নানা বির্তক আর অনিয়মের বেড়াজালে জর্জরিত কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ। সাংগাঠনিক কার্যক্রমও চলছে দায়সারাভাবে। ছাত্রলীগের এখন বেহাল দশা। এ জেলা ছাত্রলীগের একটি ঐতিহ্য থাকলেও তা এখন ম্লান হওয়ার পথে। ছাত্রলীগের এ কমিটির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ বেশিরভাগ নেতাই বিবাহিত, কেউ প্রকাশ্যে আবার কেউ বা গোপনে সংসার করছে। এছাড়া জাতীয় দিবস ও দলীয় সাংগাঠনিক কর্মসূচি দায়সারাভাবে পালন, অনুষ্ঠানের নামে ফটোসেশন, উপজেলা পর্যায়ে দেয়া কমিটি নিয়ে বির্তকের সৃষ্টি, ছাত্রদল-শিবিরের কর্মীদের অনুপ্রবেশ, অছাত্র, মাদক সেবনকারি, মাদক ব্যবসায়িদের ছাত্রলীগে স্থান দেয়া নিয়ে রয়েছে নানা বির্তক।

অপি ও রুবেলের নেতৃত্বে ছাত্রলীগের ৬ বছর অতিক্রম :
কুমিল্লা জেলা সদর, সদর দক্ষিণ, লাকসাম, মনোহরগঞ্জ, লালমাই, বরুড়া, নাঙ্গলকোট, চৌদ্দগ্রাম, বুড়িচং ও ব্রাহ্মণপাড়া নিয়ে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা গঠিত। জানা যায়, ২০১৫ সালের ২০ জুলাই এক বছরের জন্য ৬ সদস্য বিশিষ্ট জেলা দক্ষিণ ছাত্রলীগের কমিটির অনুমোদন দেন বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের তৎকালিন সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকি নাজমুল আলম। আবু তৈয়ব অপিকে সভাপতি ও লোকমান হোসেন রুবেলকে সাধারণ সম্পাদক করে এ কমিটি ঘোষণা করা হয়। পরে ২০১৭ সালের ২৪ জুন এ কমিটি বর্ধিত করা হয়। ঘোষণা করা হয় ২০৯ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি। এ কমিটিতেও অপিকে সভাপতি ও রুবেলকে সাধারণ সম্পাদক রাখা হয়। তবে এ কমিটির মেয়াদ উল্লেখ করা হয়নি। এ কমিটি ঘোষণা করেন কেন্দ্রীয় কমিটির তৎকালিন সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ আর সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসাইন। যদিও এ কমিটি নিয়েও নানা বির্তক ছিল। ঘোষিত কমিটিতে ঠিকাদার, অছাত্র, সেলুন ব্যবসায়িদের স্থান দেয়া হয় বলে অভিযোগ ছিল। আবার অনেকের বিরুদ্ধে রয়েছে অস্ত্র, মাদকসহ বিভিন্ন মামলা। কমিটি ঘোষণার পর প্রথমদিকে সাংগাঠনিক কার্যক্রম দেখা গেলেও পরবর্তীতে তা দায়সারাভাবে পালন করা হয় বিভিন্ন সূত্র জানায়। এ কমিটি এখন ৬ বছর অতিক্রম করেছে । কবে নতুন কমিটি হবে ? বর্তমান কমিটি আরো কত বছর থাকবে তা অনেকেরই অজানা।

বিবাহিত ও সন্তানের পিতাদের আধিপত্য:
জানা যায়, জেলার সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, সহ-সভাপতি,যুগ্ম -সাধারণ সম্পাদক, সাংগঠনিক সম্পাদকসহ শতাধিক সদস্যই বিবাহিত জীবনযাপন করছেন। সাধারণ সম্পাদকসহ বেশ কয়েকজন এখন সন্তানের পিতা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ছাত্রনেতা জানান, দক্ষিণ জেলার মত এক গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় এক কমিটি এত বছর ধরে আছে, ভাবতে কষ্ট হয়। এসব ছাত্রলীগ নেতাদের অনেকের বয়সই ৩৫ এর উপর। অনেকেরই ছাত্রলীগ করার বয়স আর নেই। প্রায় অনেকেই বিবাহিত, সন্তানের পিতা। তাদেরকে যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগে নিয়ে যাওয়া উচিত। নতুন অনেক ছাত্রনেতা আছে যাদের ছাত্রলীগে স্থান দেওয়া উচিত। এ কমিটি ভেঙ্গে দেওয়া উচিত।

ছাত্রলীগের নেতারা বিভিন্ন পেশায় জড়িয়ে পড়েছে:
কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের অনেক নেতাই এখন বিভিন্ন পেশায় জড়িত। এ কমিটির অনেকেই এখন চাকুরীজীবি, ঠিকাদার ও ব্যবসায়ি । সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক দুজনই নিজ উপজেলা রাজনীতি ও ঠিকাদারি ব্যবসা নিয়ে ব্যস্ত। বর্তমান কমিটির সভাপতি আবু তৈয়ব অপির পিতা মরহুম আবু তাহের ও চাচা আবু জাহের ব্রাহ্মনপাড়া উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামীগের নৌকা প্রতিকের প্রার্থী জাহাঙ্গীর খান চৌধুরীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে বিজয়ী হয়। সাধারণ সম্পাদক লোকমান হোসেন রুবেল নিজ উপজেলা চৌদ্দগ্রামের শ্রীপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হতে চায়। নির্বাচনে প্রার্থীতার প্রকাশিত সংবাদ নিজেই ফেসবুকে শেয়ার করছেন লোকমান হোসেন রুবেল। বিভিন্ন সূত্রমতে, সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক দুজনেই ঠিকাদারি নিয়ে ব্যস্ত। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বরুড়ার জসিম উদ্দিন শাহিন এলজিইডির ঠিকাদার। বিবাহিতও বটে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জেলা ছাত্রলীগ কমিটির এক নেতা জানান, বয়স হয়েছে। বিবাহ করেছি, সংসার হয়েছে। কিছু তো করে খেতে হবে। এ কমিটি কবে বিলুপ্ত হবে তা জানি না। তাই বসে থাকলে হবে না।

বর্তমান কমিটির অনেকেই এখন অন্য সংগঠনের সদস্য:
দীর্ঘদিন ধরে চলতে থাকা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের কমিটির সদস্যরা ক্রমেই অন্য সংগঠনে নিজেদের যুক্ত করে নিচ্ছেন। চলতি বছরের (২০২১ সাল) ২২ জুলাই জেলা দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবকলীগের ১০১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করা হয়। জেলা দক্ষিণ ছাত্রলীগের জেলা দক্ষিণ ছাত্রলীগের সহ সভাপতি মিজানুর রহমান রাতুল এখন জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, জেলা ছাত্রলীগের সহ সম্পাদক রবিউল আলম রবি এখন জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাংগাঠনিক সম্পাদক, জেলা দক্ষিণ ছাত্রলীগের সহ সম্পাদক রাশেদ মাহমুদ শাওন এখন জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের নির্বাহী সদস্য। বিভিন্ন সূত্রমতে, জেলা দক্ষিণ ছাত্রলীগের কমিটির প্রায় ৭ জন সদস্য জেলা দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবকলীগের কমিটিতে স্থান পেয়েছে।

সভাপতি-সেক্রেটারির সাথে সমন্বয় নেই অন্যদের:
বিভিন্ন কমিটি ঘোষণা দেয়ার আগে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক কমিটির অন্য সদস্যদের কখনো আলোচনা করেন না বলে অভিযোগ রয়েছে। জেলা ছাত্রলীগের কমিটি হওয়ার পর এই ৫/৬ বছরে কোন পরিচিতি সভা হয়নি। ৬ বছরে দুয়েকটি বর্ধিত সভা হয়েছে। যদিও ৩ মাস পর পর বর্ধিত সভা হওয়ার কথা । পদের চিঠিটিও পায় নি কমিটির সদস্যরা। জেলা ছাত্রলীগের কমিটির এক সদস্য জানান, বিভিন্ন কমিটি ঘোষণা হওয়ার পর ফেসবুকে, সংবাদপত্রে আমরা দেখতে পাই। কমিটি হওয়ার আগে কোন আলোচনা হয় না।

দায়সারাভাবে চলছে জাতীয় ও দলীয় কর্মসূচীঃ
দায়সারা কর্মসূচী পালনের অভিযোগ রয়েছে এ কমিটির বিরুদ্ধে। নামেমাত্র ফটোসেশন কিংবা দায়সারাভাবে অনুষ্ঠান পালন করছে। এ নিয়ে তৃণমূলে বেশ ক্ষোভ রয়েছে। ২০১৯ সালের ১৩ জুন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পাদক মোঃ আহসান হাবিব স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ২০১৯-২০ সালের মেগা বাজেটকে স্বাগত জানিয়ে বাংলাদেশ ছাত্রলীগকে আনন্দ মিছিল করার নির্দেশনা দেওয়া হয়। কিন্তু জানা যায়, জেলা দক্ষিণ ছাত্রলীগ সে নির্দেশনা পালন করেনি। কোন স্বাগত মিছিল করা হয়নি। এমনকি ওই বছরের একুশে আগষ্ট গ্রেনেড হামলার অনুষ্ঠানে জেলা আ’লীগের অনুষ্ঠানে ছাত্রলীগ সভাপতি অপি ছিলেন না। সাংগাঠনিক কার্যক্রমে নিস্ত্রিয় থাকার অভিযোগে ২০১৭ সালের ১৫ মে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি অপি ও সাধারণ সম্পাদক রুবেলকে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। চট্টগ্রামে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ কর্তৃক আয়োজিত বিভাগীয় প্রতিনিধি সভায় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক অনুপস্থিত থাকায় তাদেরকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়।

উপজেলা কমিটিগুলো নিয়ে নানা বির্তক ঃ
কুমিল্লা দক্ষিণ জেলার বিভিন্ন উপজেলা কমিটিগুলো গঠন নিয়ে রয়েছে নানা বির্তক। অভিযোগ রয়েছে প্রায় অযোগ্য ব্যক্তিদের হাতেই তুলে দেয়া ছাত্রলীগের কমিটিগুলো। কয়েকটি উপজেলায় কমিটির মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। এ জেলা কমিটির অধীনে ২৩ টি ইউনিট রয়েছে। প্রায়গুলোতে কিছু না কিছু বির্তক রয়েছে।

লালমাই উপজেলা ছাত্রলীগে ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র :
লালমাই উপজেলা প্রতিষ্ঠার চার বছর পর চলতি বছরের ৫ অক্টোবর সন্ধ্যায় কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবু তৈয়ব অপি ও সাধারণ সম্পাদক লোকমান হোসেন রুবেল ৭১ সদস্য বিশিষ্ট উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা দেন। কমিটিতে উপজেলার বাকই উত্তর ইউনিয়নের ছাত্রলীগের সভাপতি শাহপরান সওদাগরকে সভাপতি ও বাগমারা উত্তর ইউনিয়নের সহ-সভাপতি আরিফুল ইসলাম রাব্বিকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে। ওই কমিটিতে স্থান পায় ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র আজমাইন আঞ্জুম নোয়েল। এ বিষয়টি জানাজানি হলে মুহূর্তে তা ভাইরাল হয়। পরে ৬ অক্টোবর বিকেলে আজমাইন আঞ্জুম নোয়েলকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

সদরে কমিটি নেই :
জেলা ছাত্রলীগ নেতা কবির শিকদার ও আনিছুর রহমান মিঠুর সময়ের পর সদরে আর কমিটি হয়নি। ২০০৪ সালে মামুন ছিলেন ওই সময়ের সভাপতি ও গাজী রিয়াজ ছিলেন সাধারণ সম্পাদক। পরে ২০১১ সালের ২৭ জুন আ ফ ম আহসান উদ্দিনকে সভাপতি ও জালাল উদ্দিন আহাম্মদকে সাধারণ সম্পাদক করে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের ১৫ সদস্যবিশিষ্ট আংশিক কমিটি এক বছরের জন্য অনুমোদন করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। এরপর সদর উপজেলার আর কোন কমিটি হয় নি। বর্তমান কমিটির ৬ বছর পার হলেও তারাও ব্যর্থ হন কমিটি দিতে ।
বুড়িচংয়ে কমিটি নেই:
জানা যায়, ২০১৬ সালের ২৪ জুলাই মোঃ জালাল উদ্দিনকে সভাপতি ও মোঃ বাছির খানকে সাধারণ সম্পাদক করে এক বছরের জন্য বুড়িচং উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করে জেলার সভাপতি অপি ও সম্পাদক রুবেল । কিন্তু একদিন পরেই ২৬ জুলাই কেন্দ্রীয় কমিটি বুড়িচং উপজেলার এ কমিটি বাতিল করে দেন। সূত্র জানায়, ওই সময়ের সাংসদ আব্দুল মতিন খসরুর অনুমতি ছাড়াই এ কমিটি করা হয়েছিল। এছাড়া সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলা, বয়স সমস্যাসহ নানা অভিযোগ থাকায় এ কমিটি একদিনের বেশি স্থায়ী হয়নি। বর্তমানে বুড়িচং উপজেলা ছাত্রলীগের কোন কমিটি নেই বলে বিভিন্ন সূত্র জানায়।

বি পাড়া উপজেলার আহŸায়ক কমিটির মেয়াদ নেই:
জেলা দক্ষিণ ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল হাসান পলাশকে বি-পাড়া উপজেলার ছাত্রলীগের আহŸায়ক করে তিন মাসের জন্য কমিটি ঘোষণা করেন জেলার সভাপতি আবু তৈয়ব অপি ও সাধারণ সম্পাদক লোকমান হোসেন রুবেল। যা এখনো চলছে। যা এখনো পুর্ণাঙ্গ হয়নি।

বরুড়া উপজেলা ছাত্রলীগ কমিটি বিলুপ্ত:
২০১৮ সালের ২৫ জুলাই ও ২৬ জুলাই নাজমুল হোসেন মজুমদারকে আহবায়ক করে ২৭ সদস্যের বরুড়া উপজেলা শাখা ছাত্রলীগ ও গোলাম ফারুক রুবেলকে আহবায়ক করে ২৩ সদস্যের বরুড়া পৌরসভা ছাত্রলীগের কমিটি প্রকাশ করে জেলা ছাত্রলীগ। অভিযোগ উঠে, অনৈতিক লেনদেনের মাধ্যমে গঠনতন্ত্র লংঘন করে বরুড়া উপজেলা শাখার ওই কমিটিতে অছাত্র, বিবাহিত, সরকারি চাকুরি, মাদক ব্যবসায়ী ও বয়স্ক লোকদের স্থান দেয়া হয়। জানা গেছে, গঠনতন্ত্র লংঘন করায় এ কমিটি প্রকাশে বিলম্বও করে তারা। ২৯ জুলাই কমিটি ঘোষণার দুই ঘণ্টার মাথায় কমিটিতে স্থগিতাদেশ দিয়ে দলীয় শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে জেলার দুই নেতাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয় কেন্দ্রীয় কমিটি। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এরপর চলতি বছরের (২০২১ সাল) ৭ অক্টোবর বরুড়া উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত করে জেলা শাখা। জেলা সভাপতি আবু তৈয়্যব অপি ও সাধারণ সম্পাদক লোকমান হোসেন রুবেল স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা শাখার আওতাধীন বরুড়া উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ায় ০৭/১০/২০২১ ইং হতে বিলুপ্ত ঘোষণা করা হল।’ কমিটি বিলুপ্তির সংবাদ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বরুড়া উপজেলা ছাত্রলীগের বিলুপ্ত কমিটির আহ্বায়ক নাজমুল হোসেন মজুমদার ও যুগ্ম আহ্বায়ক লিপন খন্দকার পূর্বের তারিখ দিয়ে ৮টি ইউনিটের কমিটি ঘোষণা করে। যেগুলো নিয়ে ইতিমধ্যে ফেসবুকে সমালোচনার ঝড় বইছে। অবৈধ সে কমিটিগুলো হলো- আড্ডা ডিগ্রি কলেজ, পয়ালগাছা কলেজ, ভাউকসার ইউনিয়ন, শাকপুর ইউনিয়ন, শীলমুড়ি উঃ ইউনিয়ন, খোশবাস দঃ ইউনিয়ন, পয়ালগাছা ইউনিয়ন ও ঝলম ইউনিয়ন শাখা ছাত্রলীগের কমিটি। ছাত্রলীগের নেতারা বলছেন, বিবাহিত, শিবির নেতা, ছাত্রদল করা ও বয়স নাই এমন লোকদের দিয়ে বিলুপ্ত কমিটির নেতারা ইউনিয়ন ও কলেজ শাখা কমিটি দিয়েছে। আমরা এগুলো মানি না। অছাত্র, বিবাহিত ও দুই সন্তানের পিতাও স্থান পেয়েছেন এসব কমিটিতে। বাপ ছেলে এক কমিটিতে আছে, এমনও অভিযোগ আছে। এর মধ্যে ভাউকসার ইউনিয়ন শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি করা হয়েছে শিবির নেতা মো. সাইফুল ইসলামকে। ২০১১ সালে নবম শ্রেণিতে পড়ার সময় সে শিবিরের সমর্থক হয়েছে। পরে ২০১৩ সালে কর্মী হয়। মুদাফ্ফরগঞ্জ স্কুলে সে শিবির নেতা ছিল। শিবিরের সেসময়কার দুটি ফরম প্রতিবেদকের হাতে এসেছে। পয়ালগাছা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি ইসমাইল পাটোয়ারি শিমুল বিবাহিত ও সন্তানের বাবা। তার শশুর বাড়ি পিলগিরি, শশুরের নাম শাহজাহান মুক্তার। সন্তানের নাম ইছাম। তার সঙ্গে সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার পাটোয়ারিও বিবাহিত, তার ছাত্রত্বও নাই। প্রবাসে দীর্ঘদিন থেকে এসে এখন এলাকায় ব্যবসার পাশাপাশি যুবলীগের রাজনীতিতে যুক্ত ছিলেন। এই কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক, প্রচার সম্পাদক ও সমাজসেবা সম্পাদকও শিবির থেকে আসা বলে স্থানীয় সূত্র জানায়। খোশবাস দক্ষিণ শাখায় সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে মো. ইয়াছিনকে। সে এবং তার পরিবার বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত বলে জানা গেছে। এসব অবৈধ কমিটি ঘোষণা হওয়ার পর থেকে ফেসবুকে নানা অভিযোগ উত্থাপন করে পদত্যাগও করেছে অনেকে। অনেকে এ নিয়ে ধিক্কার জানাচ্ছেন। কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ফরহাদ হোসেন ভূঁইয়া বলেন, ‘তালাক দেওয়ার ১১ মাস পর বাচ্চা হলে, বৈধ না অবৈধ? যারা নেতা হয়েছে, আমি তাদের সবাইকে চিনি। অনেক ত্যাগ, পরিশ্রম ও অর্থ ছাত্রলীগের জন্য দিয়েছে। ইনশাল্লাহ, তাদের জীবন নিয়ে খেলা লোকদের বরুড়া মাটিতে বিচার হবে, শুধু সময়ের ব্যাপার।’ পয়ালগাছা ইউনিয়ন শাখায় নতুন কমিটিতে যুগ্ম সম্পাদক হওয়া মিজানুর রহমান বলেন, ‘কোন প্রকার সমন্বয় ছাড়া একটি অনাকাংক্ষিত গঠণতন্ত্র বিরোধী কমিটির ঘোষণা হওয়ায় এর তীব্র নিন্দা এবং প্রতিবাদ জানাই। সেই সাথে অতি সত্বর কমিটির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে আমার নাম বাদ দেওয়ার জন্য অনুরোধ করছি। অছাত্র, বিবাহিত এই হজবরল আজব কমিটি থেকে মুক্তি চাই।’ আনোয়ার হোসাইন নামের ছাত্রলীগের এক নেতা বলেন, ‘বিকালে বিলুপ্তি সন্ধ্যায় ব্যাক ডেইট দিয়ে ইউনিয়ন কমিটি ঘোষণা। ১৫ নং পয়ালগাছা ছাত্রলীগ কমিটির সভাপতি বিবাহিত, সাধারণ সম্পাদক বিবাহিত, সাংগঠনিক সম্পাদক একজন জামাত শিবির থেকে আগত, আরেকজন দশম শ্রেণির ছাত্র। দু জনের কেউ ফরম নেন নি উপজলো থেকে। প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ছাত্রদল থেকে আগত। আরও অনেক সমস্যায় জর্জরিত এই কমিটি।’ এক ছাত্রলীগ নেতা বলেন, ‘অবৈধ কমিটির অবৈধ কমিটি ঘোষণা। বিকালে বিলুপ্ত, সন্ধ্যায় কমিটি ব্যাক ডেট দিয়ে। তাও আবার বাপ ছেলে এক কমিটিতে।’

ভাউকসার ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহবায়ক কাউছার খান প্রশ্ন করেছেন, ‘উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত হওয়ার পর, বিলুপ্ত কমিটি কলমের পাওয়ার দেখাইয়া ব্যাক ডেট দিয়ে দেওয়া কমিটি গুলোর বৈধতা কতটুকু?’ তার জবাবে আড্ডা ডিগ্রি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. সোহেল হোসেন বলেন, ‘ভাইরে এগুলো বলে লাভ নাই, শিবিরের কমিটি দিয়েছে।’ এম এইচ ফাহিম নামের শাকপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের এক নেতা বলেন, ‘ভাই আমাদের কমিটি টা তারা কি করলো? শিবির এবং ছাত্রদলের লোক দিয়ে কমিটি করছে। তারপর অছাত্র, বয়ষ্ক দিয়ে কমিটিটা করেছে। যারা দীর্ঘ দিন ধরে ছাত্রলীগ করে আসতেছে তাদেরকে সদস্য পদেও রাখা হয় নাই।

নাঙ্গলকোট উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি:
২০১৫ সালের ১৫ ডিসেম্বর আব্দুর রাজ্জাক সুমনকে সভাপতি ও ওমর ফারুক মামুনকে সাধারণ সম্পাদক করে ১০১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। এক বছরের কমিটি এখনও চলছে বলে জানা গেছে। এছাড়াও ২০১৬ সালের ৫ নভেম্বর নাঙ্গলকোট উপজেলায় মেমোরিয়াল সরকারি কলেজের ছাত্রলীগের কমিটি গঠন নিয়েও বেশ বির্তক হয়। কলেজ ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম আহŸায়ক মো. ওবায়দুল হককে সভাপতি ও শিবির নেতাদেরকে পদায়িত করে ৬১ সদস্য বিশিষ্ট ছাত্রলীগের কমিটির অনুমোদন দেয় কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ। ওই সময় এ বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় ওঠে। বিষয়টি নিয়ে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি বরাবরে লিখিত অভিযোগ করা হয়। যদিও পরে ওই কমিটিতে কোন পরিবর্তন আসেনি।

সদর দক্ষিণ উপজেলা কমিটি নিয়েও বির্তক:
সুদীর্ঘ ১৬ বছর পরে চলতি বছরের (২০২১ সাল) ৫ অক্টোবর কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবু তৈয়ব অপি ও সাধারণ সম্পাদক লোকমান হোসেন রুবেল স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আব্দুল্লাহ আল মামুন অপুকে সভাপতি, তুহিন হোসেনকে সাধারণ সম্পাদক এবং মাধব চন্দ্র বৈষ্ণবকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে সদর দক্ষিণ উপজেলা ছাত্রলীগের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। বিভিন্ন সূত্রমতে, এই কমিটির সাধারণ সম্পাদক তুহিন হোসেন এক সময় ছাত্রদল নেতা ছিলেন। বিএনপি নেতা মনিরুল হক চৌধুরীর কর্মী ছিলেন। জানা যায়, ২০১৬ সালে তুহিন ছাত্রলীগে যোগদান করে। উল্লেখ্য যে, ২০১৯ সালের ২৯ নভেম্বর পিপুলিয়া কলেজ মাঠে কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। করোনা পরিস্থিতির কারণে দীর্ঘ প্রায় দু’বছর পর সদর দক্ষিণ উপজেলা ছাত্রলীগ কমিটি ঘোষণা করা হয়। এর আগে একবার সদর দক্ষিণ উপজেলা ছাত্রলীগের আহŸায়ক করা হয় মোঃ আয়াত উল্লাহকে। ওই কমিটি ছিল মৌখিক কমিটি। কাগজে-কলমে ছিল না। যুগ্ম আহŸায়ক ছিলেন ইকরাম হোসেন সুজন, কামরুল হাসান ভুট্টো। প্রথমে ২১ সদস্য, পরে আরো ২ জন বাড়ানো হয়।

মনোহরগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি :
মনোহরগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি নিয়েও বির্তক রয়েছে। যদিও কমিটি মেয়াদ উর্ত্তীণ। ২০২০ সালের ৩০ জানুয়ারি কামরুজ্জামান শামীমকে সভাপতি ও আমজাদ হোসেনকে (বিপ্লব) সাধারণ সম্পাদক করে আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। যার মেয়াদ ছিল এক বছর। পরবর্তীতে এক মাসের মধ্যে পুর্ণাঙ্গ কমিটি করার নির্দেশনা দেয়া হলেও ৭ মাস পর তা ওই বছরের সেপ্টেম্বর মাসে ৭১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করা হয়। এই কমিটির মেয়াদ চলতি বছরের (২০২১) জানুয়ারি মাসে শেষ হয়ে গেছে। জানা যায়, সভাপতি কামরুজ্জামান শামীম সদ্য বিবাহিত । সাধারণ সম্পাদক আমজাদ হোসেন বিপ্লব মৈশাতুয়া ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি জাহাঙ্গীর আলমের ছেলে । বিপ্লবের পিতা এখন আ’লীগের রাজনীতি করে বলে স্থানীয় সূত্র জানায় ।

লাকসাম উপজেলা ছাত্রলীগ:
২০২০ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর কুমিল্লার লাকসাম উপজেলা ও পৌরসভা ছাত্রলীগের ১ বছর মেয়াদের কমিটি ঘোষণা করা হয়। উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটিতে সালাউদ্দিন সানি সভাপতি ও আমিনুল ইসলাম তুষার সাধারণ সম্পাদক এবং পৌরসভা ছাত্রলীগের কমিটিতে সাইফ খাঁন স্বাধীন সভাপতি ও কাউছার আহমেদকে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করা হয়। এই কমিটির মেয়াদও শেষ হয়ে গেছে।

চৌদ্দগ্রাম উপজেলা ছাত্রলীগ:
২০১৭ সালের ১৪ জুলাই চৌদ্দগ্রাম উপজেলা ছাত্রলীগের ৯ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির নেতৃবৃন্দরা হলেন- আহবায়ক তৌফিকুল ইসলাম সবুজ, যুগ্ম আহবায়ক কাউছার হানিফ, মতিউর রহমান জালাল, কাজী আল রাফি, মোঃ নুরুল আলম, আবদুল মোতালেব, সোহাগ মাহমুদ, খন্দকার মাসুদ ও আরিফুর রহমান। পরে দীর্ঘ ৪ বছর পর চলতি বছরের (২০২১) ৫ জানুয়ারি উপজেলা ছাত্রলীগের একটি কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবু তৈয়ব অপি জানান, আমরা যখন নতুন কমিটি ঘোষণা দেই, এর আগে সংশ্লিষ্ট এলাকার সাংসদ, সাবেক ছাত্রনেতাদের সাথে আলোচনা করে কমিটি ঘোষণা দেই। আর আমাদের কমিটির যারা অভিযোগ করে তাদের সাথে আলোচনা করি না, তারা তো আমাদের বিভিন্ন সাংগাঠনিক প্রোগ্রামে আসে না। বসে বসে ভিত্তিহীন অভিযোগ করে। কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ চট্টগ্রাম বিভাগের সবচেয়ে সক্রিয় সংগঠন। আমরা দায়িত্বশীলতার সহিত সকল জাতীয় ও দলীয় সাংগাঠনিক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি। দায়সারাভাবে কার্যক্রম পরিচালনার বিষয়টি ভিত্তিহীন। আমরা বেশ কয়েকটি বর্ধিত সভা করেছি। জেলা ছাত্রলীগের ৩ জন নেতা স্বেচ্ছাসেবকলীগের কমিটিতে গেছে। তারা আমাদের অবহিত না করেই গেছে। এ বিষয়ে আমরা কেন্দ্রে অবহিত করেছি। বরুড়ার ৮ ইউনিটের কমিটির বিষয়ে অপি জানান, যেহেতু বরুড়া উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়েছে, সেহেতু তাদের ঘোষিত ৮ কমিটিও বিলুপ্ত হবে। সদর দক্ষিণের ঘোষিত কমিটির সাধারণ সম্পাদকের বিষয়ে অপি জানান, সাধারণ সম্পাদক তুহিন ছাত্রদলের কর্মী ছিলেন না। একটা স্কুলের অনুষ্ঠানে বিএনপি নেতা মনিরুল হক চৌধুরী এসেছিলেন , ওই সময়ে উনাকে ফুল দেয়া হয়েছিল। ওই সময়ের ছবিটি ফেসবুকে দেয়া হয়েছে। তা ভিত্তিহীন অভিযোগ। আমি সততার সাথে ছাত্রলীগের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি । যতদিন দায়িত্বে আছি সততা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করে যাবো।

আর পড়তে পারেন