মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

“বেঁচে থাকার জন্য প্রয়োজন মানসিক সুস্থতা”

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ৩০, ২০২২
news-image

ফাহিমা আক্তার:

স্বাস্থ্য এক অমূল্য সম্পদ। বলা হয়ে থাকে যে ‘ স্বাস্থ্যই সকল সুখের মূল’। বেঁচে থাকার জন্য সুস্থতার প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য। মানুষের মধ্যে সাধারণত দুই ধরণের অসুস্থতা লক্ষ্য করা যায়-শারীরিক অসুস্থতা, মানসিক অসুস্থতা। আমরা সাধারণত শারীরিক সুস্থতাকেই বেশি প্রাধান্য দিয়ে থাকি। কিন্তু শারীরিক সুস্থতার পাশাপাশি মানসিক সুস্থতাও যে জরুরী সেটা কি আমরা আদৌ ভেবে দেখেছি?

অনেকেই আছেন মানসিক অসুস্থতাকে অবহেলা করে থাকেন। অনেকে আবার এমনও বলে থাকেন, ” মানসিক অসুস্থতা বলতে কিছু নেই, এটা হলো মনের শয়তানি। ” দুঃচিন্তা, হতাশা, ব্যর্থতা থেকে মানসিক অসুস্থতার সুত্রপাত ঘটলেও তা ধীরে -ধীরে মারাত্মক আকার ধারণ করে। একমাত্র ভুক্তভোগীই উপলব্ধি করতে পারেন এর যন্ত্রণা কতটা তীব্র, কতটা ভয়ানক এবং কতটা কষ্টদায়ক। এর ফলে ব্যক্তি হয়ে যায় নিজেই নিজের শত্রু। তখন হয়ত ভুক্তভোগীর কাছে বেঁচে থাকাটা অর্থহীন মনে হয়। কেউ আবার পরিবারের সমর্থন পায় না বলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে পারে না।কেউ কেউ আবার মানসিক অসুস্থতার তীব্র যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যার মতো ঘৃণিত পথ বেছে নেয়।

ব্যক্তির মন ভালো না থাকলে কোনো কিছুতেই প্রকৃত সুখ – শান্তিও পাওয়া যায় না। বিভিন্ন বয়সের মানুষ বিভিন্ন কারণে মানসিক অসুস্থতায় ভোগেন। অনেক ছাত্র -ছাত্রীও এই যন্ত্রণার শিকার। তাই বাবা -মায়েদের কর্তব্য হলো: আপনার সন্তানের দিকে বিশেষ খেয়াল রাখুন, তাদের উপর কোনো কিছু চাপিয়ে দিবেন না, তারা যদি কোনো কারণে মানসিক অসুস্থতায় ভোগে, তাদের প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিন, প্রয়োজন হলে চিকিৎসকের কাছ থেকে চিকিৎসা সেবা গ্রহণ করুন কারণ বেঁচে থাকার জন্য মানসিক সুস্থতা অতীব প্রয়োজন।

– ফাহিমা আক্তার
বাংলা বিভাগ, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়।

আর পড়তে পারেন